Mamata Banerjee: হুইল চেয়ার ছাড়ার সময় হয়ে এল? ভাঙা পা নিয়ে 'মনের কথা' মমতার!

Mamata Banerjee: হুইল চেয়ার ছাড়ার সময় হয়ে এল? ভাঙা পা নিয়ে 'মনের কথা' মমতার!

এবার কি হুইল চেয়ারের দিন ফুরোল?

দুদিন এসএসকেএম-এ থেকে তারপর থেকেই হুইল চেয়ারের ভোট-সফর। কেটে গেল প্রায় দেড় মাস। কিন্তু কেমন আছে মুখ্যমন্ত্রী মমতার পায়ের অবস্থা? কবে কাটা হবে প্লাস্টার?

  • Share this:

    #কলকাতা: ঘটনাটা ঘটেছিল ১১ মার্চ। নন্দীগ্রামের এক সন্ধ্যায় হঠাতই পায়ে চোট পেলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। তারপর সোজা এসএসকেএম। চিকিৎসকরা বললেন, অন্তত এক মাস বিশ্রাম। কিন্তু ভোটের মাঝে এমন সিদ্ধান্তে নারাজ 'অগ্নিকন্যা'। দুদিন এসএসকেএম-এ থেকে তারপর থেকেই হুইল চেয়ারের ভোট-সফর। কেটে গেল প্রায় দেড় মাস। কিন্তু কেমন আছে মুখ্যমন্ত্রী মমতার পায়ের অবস্থা? কবে কাটা হবে প্লাস্টার?

    রবিবার মুর্শিদাবাদের ১১ কেন্দ্রের জন্য ভার্চুয়াল বৈঠক থেকে মমতা বললেন, 'পায়ে চোট নিয়ে গত দেড় মাস আমি জেলায়-জেলায় ঘুরে বেড়িয়েছি। এখন হয়তে আমার পা'টা ভালো হয়ে গিয়েছে। আমি যেহেতু এখন বাড়িতে যেতে পারছি না, তাই প্লাস্টারও কাটতে পারছি না। টানা দশ দিন আমি বাড়ির বাইরে রয়েছি। এরপর বাড়ি ফিরে প্লাস্টারটা আমাকে কাটিয়ে নিতে হবে।'

    নন্দীগ্রামে চোট পাওয়ার ঘটনায় বারবার BJP-র ষড়যন্ত্রের দিকে আঙুল তুলেছেন মমতা। বিজেপিও পালটা মমতার পা'য়ের অবস্থাকে 'নাটক' বলে কটাক্ষ ছুড়েছে। কিন্তু হুইল চেয়ারে বসা ভাঙা পায়ের মমতাই এবারের ভোটের ইউএসপি। প্রতিটি সভায় নিয়ম করে তিনি বলেছেন, 'আমার এক পা আছে এখন। বাকি এক পা আমার মা-বোনেদের। আমার ওই মা-বোনেদের পায়ের জোরেই বাংলাকে বহিরাগতদের হাত থেকে রুখব তিনি।' অর্থাৎ, সুকৌশলে তিনি নিজের ভাঙা পায়ের সঙ্গে জুড়ে দিয়েছিলেন মহিলা ভোটের প্রসঙ্গও।

    এদিনও মমতা বলেছেন, 'পায়ের এই অবস্থা নিয়েও গত দেড় মাস একটা মুহূর্তও নষ্ট করিনি আমি। প্রতিটা জেলায় গিয়ে প্রচার করেছি। প্রচারের সময় সেই জেলাতেই থেকেছি। পায়ে চোট নিয়েই একের পর এক সভা করেছি। গত ১০ দিন ধরে আমি বাড়ি ফিরতে পারিনি।' সেই ভাঙা পা কি মমতা ভোটবাক্সে কোনও ডিভিডেন্ট দিল, উত্তর মিলবে ২ মে।

    Published by:Suman Biswas
    First published:

    লেটেস্ট খবর