কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘হিম্মত থাকলে ভাইপো না বলে নাম বলুন’, চ্যালেঞ্জ কুণালের, ‘কে ভাইপো সকলে জানে', দিলীপের পাল্টা

‘হিম্মত থাকলে ভাইপো না বলে নাম বলুন’, চ্যালেঞ্জ কুণালের, ‘কে ভাইপো সকলে জানে', দিলীপের পাল্টা

কৈলাশ-পুত্র আকাশকে হাতিয়ার করেও বিজেপিকে নিশানা করেন কুণাল ৷ তৃণমূল যুবনেতাতে নিশানা করে কৈলাস বিজয়বর্গীর বক্তব্যেরই এদিন জবাব দিলেন তৃণমূলের মুখপাত্র ৷ তবে কুণাল ঘোষের বক্তব্যের পাল্টা জবাব দিতে ছাড়েননি দিলীপ ঘোষও ৷

  • Share this:

#কলকাতা: যত দিন যাচ্ছে ততই বাড়ছে আক্রমণের ধার ৷ এবার স্বজনপোষণের অভিযোগের পাল্টা বিজেপিকে চ্যালেঞ্জ করলেন তৃণমূলের মুখপাত্র তথা প্রাক্তন সাংসদ কুণাল ঘোষ ৷ এদিন সাংবাদিক সম্মেলনে বিজেপিকে চ্যালেঞ্জ করে তৃণমূল নেতা বলেন, ‘যদি সাহস থাকে ভাইপো না বলে নাম উচ্চারণ করুন।’ কৈলাশ-পুত্র আকাশকে হাতিয়ার করেও বিজেপিকে নিশানা করেন কুণাল ৷ তৃণমূল যুবনেতাতে নিশানা করে কৈলাস বিজয়বর্গীর বক্তব্যেরই এদিন জবাব দিলেন তৃণমূলের মুখপাত্র ৷ তবে কুণাল ঘোষের বক্তব্যের পাল্টা জবাব দিতে ছাড়েননি দিলীপ ঘোষও ৷

তৃণমূল কংগ্রেস যুবনেতা বরাবরই বিজেপির নিশানায় ৷ প্রথম থেকেই মুখ্যমন্ত্রীর ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম করে স্বজনপোষণের অভিযোগ নিয়ে রাজনীতির হাওয়া গরম করে আসছে গেরুয়া শিবির ৷ নাম না করে প্রতিটি বক্তব্যে বিজেপি নেতাদের ‘ভাইপো’ শব্দের ব্যবহার নিয়ে এদিন সরব হলেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ ৷ সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি সরাসরি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে বলেন, ‘‘ভাইপো’ শব্দ ব্যবহার কাপুরুষোচিত ৷ কৈলাস বিজয়বর্গীয় ‘ভাইপো’ বলছেন ৷‘ভাইপো’ বলতে কার কথা বলছেন কৈলাস ৷ হিম্মত থাকলে ‘ভাইপো’-র নাম বলুন ৷ কৈলাসকে চ্যালেঞ্জ করছি ৷ কৈলাসের ‘ভাইপো’ BCCI-এর সচিব ৷’

কুণালের প্রশ্ন, ‘রাজনীতিবিদের পরিবারে রাজনীতিবিদ হতে পারেন না?’ বিজেপির স্বজনপোষণের অভিযোগের জবাবে তিনি বলেন, ‘শুভ্রাংশু রায় কোথা থেকে রাজনীতিতে এল ৷ মুকুল রায়ের ছেলে হিসেবে আসতেই পারেন ৷ আপনার ছেলে আকাশ বিজয়বর্গীয় পুরকর্মীদের মেরেছিলেন। আকাশ বিজয়বর্গীয় নিজেও তো বিজেপির বিধায়ক। গুণ্ডামি করে গ্রেফতার হয়েছিলেন আকাশ। তাহলে শুধু তরুণ ওই নেতাকে নিয়ে কেন কথা? আসলে রাজনীতিতে পাল্লা দিতে না পারায় চরিত্রহনন করছেন বিজেপি ৷ ভয় পেয়েই যুবনেতাকে আক্রমণ করছে।’

মুকুল রায়কে দলে নেওয়া নিয়েও গেরুয়া শিবিরকে বিঁধতে ছাড়েনি কুণাল ঘোষ ৷ প্রাক্তন এই তৃণমূল সাংসদ বলেন, ‘বিজেপি কি ওয়াশিং মেশিন ৷ পাশে বসালেই সব কি ধুয়ে যাচ্ছে? ২০১৫-য় বলেছিলেন ভাগ মুকুল ভাগ। তাঁকেই তো আবার দলে নিয়েছেন ৷ মুকুল রায়কে দলে নিয়ে সারদা নিয়ে জ্ঞান দেবেন না।’ এখানেই শেষ নয় নারদা তদন্ত প্রসঙ্গ টেনে এনে কুণাল বলেন, ‘তৃণমূল তদন্তে ভয় পায় না ৷ মুকুল রায়কে যৌথ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঠান ৷ আমি এই নিয়ে চিঠিও দিয়েছি ৷ মুকুল রায়ের গ্রেফতার হওয়া উচিত ৷ মির্জাকে গ্রেফতার করা হয়েছে ৷ তাহলে মুকুল রায়কে কেন গ্রেফতার নয় ৷ মুকুল-মির্জার ভিডিও ফুটেজ তো আছে৷’

কুণাল ঘোষের ছুঁড়ে দেওয়া চ্যালেঞ্জের উত্তরে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলছেন, ‘কে দিদি, কে ভাইপো, সকলেই জানে। তাই আলাদা করে বলার প্রয়োজন নেই। আর সময় হলে নামও বলে দেওয়া হবে। বিজেপি কাউকে ভয় পায় না। আমাদের চ্যালেঞ্জ করে লাভ নেই ৷ কে গুন্ডা, কে গুন্ডা নয়, সবাই জানে ৷ সিন্ডিকেট-গুন্ডা কোথায় রয়েছে, মানুষ জানেন ৷ উন্নয়নে ভরসা নেই, তাই পালিয়ে বেড়াচ্ছেন ৷’

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের একাংশের মতে, শাসক দলের অঘোষিত নাম্বার টু অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁকেই মমতার উত্তরসূরী বলে অনেকে মনে করছেন। বিজেপি অভিষেককে টার্গেট করছে বুঝে, পাল্টা আক্রমণের পথে তৃণমূল।

Published by: Elina Datta
First published: November 22, 2020, 5:45 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर