• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • TMC RESHUFFLE THERE MAY BE A MAJOR CHANGE IN TRINAMOOL CONGRESS LEADERSHIP IN THIS WEEK SANJ

TMC Reshuffle : যুব শক্তিতে জোর! চলতি সপ্তাহেই তৃণমূলের সাংগঠনিক পদে ব্যাপক পরিবর্তনের ইঙ্গিত...

বড় রদবদলের ইঙ্গিত

সংগঠন ঢেলে সাজাচ্ছে (TMC Reshuffle) তৃণমূল কংগ্রেস। সূত্রের খবর, আগামী দু-একদিনের মধ্যেই সংগঠনে বড়সড় রদবদল আনতে চলেছে জোড়া ফুল শিবির (Trinamool Congress)।

  • Share this:

#কলকাতা : লক্ষ্য ২০২৪। তাই সংগঠন ঢেলে সাজাচ্ছে (TMC Reshuffle) তৃণমূল কংগ্রেস। সূত্রের খবর, আগামী দু-একদিনের মধ্যেই সংগঠনে বড়সড় রদবদল আনতে চলেছে জোড়া ফুল শিবির (Trinamool Congress Reshuffle)। দলের মূল সংগঠন ও যুব সংগঠন উভয় ক্ষেত্রেই আনা হবে বদল। এমনটাই দলীয় সূত্রে খবর। তবে মূল সংগঠনে বদল আনার ক্ষেত্রে যুব শক্তিতে জোর ও বেশ কিছু জেলায় একাধিক সাংগঠনিক পদের ব্যক্তি থাকতে পারে।

দলীয় সূত্রে খবর, একাধিক সাংগঠনিক জেলায় বদল আনা হতে পারে। এক ব্যক্তি এক পদ নীতি কার্যকর করা হবে বলে আগেই জানিয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেস। উত্তর ২৪ পরগণা, হাওড়া, পূর্ব মেদিনীপুর এবং পূর্ব বর্ধমান জেলায় সেই অঙ্কে বদল (TMC Reshuffle) হতে পারে সভাপতি। তার কারণ এই জেলাগুলিতে ৫ সভাপতি রয়েছে যারা একই সাথে রাজ্য মন্ত্রী সভার সদস্য। উত্তর ২৪ পরগণা জেলায় আছেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। তিনি সাংগঠনিক দায়িত্বের পাশাপাশি গত ১০ বছর ধরে রাজ্যের খাদ্য মন্ত্রী, এখন বন মন্ত্রীর দায়িত্ব সামলাচ্ছেন উনি। দলের নয়া নীতিতে তিনি মন্ত্রী থাকবেন নাকি সভাপতি থাকবেন তা নিয়ে আলোচনা চলছে। সূত্রের খবর, তিনি মন্ত্রীত্বে থাকবেন।

অন্যদিকে, হাওড়া জেলা গ্রামীণ ও শহর দুই সভাপতি এখন একাধারে সংগঠন সামলাচ্ছেন, অন্যদিকে মন্ত্রীত্ব। হাওড়া জেলা শহরাঞ্চলের দায়িত্বে অরুপ রায়। তিনি এবারেও রাজ্য মন্ত্রী সভায় আছেন। হাওড়া জেলার গ্রামীণ অংশের দায়িত্বে পুলক রায়। তিনিও এবার রাজ্য মন্ত্রীসভার সদস্য। সূত্রের খবর, দুই জেলাতেই সভাপতি বদল হতে চলেছে।

পরিবর্তন করে নয়া মুখ আনা হবে পূর্ব মেদিনীপুর জেলাতেও। দীর্ঘ সময় ধরে এই জেলায় দলে একছত্র আধিপত্য ছিল অধিকারী পরিবারের। যদিও নির্বাচনের আগে থেকেই জোড়া ফুল শিবিরের সাথে দূরত্ব বাড়তে শুরু করে অধিকারী পরিবারের। গত বছরের শেষ দিকে শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগদানের পরেই ফাটল আরও চওড়া হয়৷ জেলা সামলানোর দায়িত্ব দেওয়া হয় সৌমেন মহাপাত্রকে। তিনি নিজেও এবার ভোটে জিতেছেন। গুরুত্বপূর্ণ দফতরের মন্ত্রী হয়েছেন। ফলে দলের নয়া নীতি অনুযায়ী তাকেও একটি দায়িত্ব বেছে নিতে হবে। সূত্রের খবর তিনি মন্ত্রীত্ব সামলাবেন।

 পূর্ব বর্ধমান জেলায় আছেন স্বপন দেবনাথ। তিনিও একাধারে দলের সাংগঠনিক দায়িত্ব, অন্যদিকে মন্ত্রীত্ব দুটিই সামলাচ্ছেন। সূত্রের খবর তিনিও এক ব্যক্তি, এক পদ নীতির আওতায় পড়বেন। সম্ভবত  তিনি মন্ত্রীত্বেই থাকতে চলেছেন।এই সব কটি জেলার মধ্যে রাজনৈতিক ভাবে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ জেলা হল উত্তর ২৪ পরগণা। ৫টি লোকসভা কেন্দ্র রয়েছে এই জেলায়। এর মধ্যে বনগাঁ লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্ভুক্ত বিধানসভাগুলিতে দারুণ ফল করেছে বিজেপি। লোকসভা ভোটে মতুয়া ভোট ব্যাঙ্কের কথা মাথায় রেখে কেন্দ্রে মন্ত্রী করা হয়েছে শান্তনু ঠাকুরকেও। ফলে উত্তর ২৪ পরগণা জেলায় একাধিক সাংগঠনিক জেলা তৈরি করতে পারে তৃণমূল কংগ্রেস। সূত্রের খবর, অত্যন্ত ভালো ফল করলেও সাংগঠনিক ভাগ হতে পারে দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলাতেও।

Published by:Sanjukta Sarkar
First published: