TMC Party Fund: এবার থেকে দলীয় তহবিলে দ্বিগুণ 'চাঁদা' দিতে হবে তৃণমূল বিধায়কদের

TMC MLA

পরিসংখ্যান অনুযায়ী , অন্যান্য রাজনৈতিক দলের তুলনায় তৃণমূল কংগ্রেসের তহবিলের পরিমাণ অনেকটাই কম।

  • Share this:

#কলকাতা:  তৃণমূলের তহবিলে মাসিক (TMC Party Fund) অনুদান বাড়তে চলেছে। কারা দেবে অনুদান ? এই প্রশ্নের উত্তরে এখনও পর্যন্ত সূত্র মারফত যেটা জানা যাচ্ছে তা হল, শাসক দলের বিধায়কদের (TMC MLA) মাসিক চাঁদা ছিল এতদিন এক হাজার টাকা। সেই চাঁদা দ্বিগুণ হতে চলেছে। অর্থাৎ এবার থেকে তৃণমূলী বিধায়কদের চাঁদা দুহাজার টাকা দিতে হবে দলীয় তহবিলে। সূত্রের দাবি, বিধায়করা প্রতি মাসে যে টাকা ভাতা পান, এবার থেকে দলীয় তহবিলের চাঁদা কেটে বাকিটা বিধায়কদের অ্যাকাউন্টে জমা দেওয়া হবে।

প্রতিমাসে এ রাজ্যের বিধানসভার সদস্য বিধায়করা ভাতা ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার খরচ বাবদ প্রায় ৮২ হাজার টাকা পান। সেখান থেকেই আগামী মাস থেকে দলীয় বিধায়কদের (TMC MLAs to give double amount to Party Fund) প্রতিমাসে দুহাজার টাকা করে দলীয় তহবিলের জন্য জমা পড়বে বলে তৃণমূলের পরিষদীয় দল সূত্রের খবর।

প্রসঙ্গত , ২০১৯-২০ আর্থিক বছরে একক ব্যক্তি, ইলেকটোরাল ট্রাস্ট এবং কর্পোরেটদের কাছ থেকে ৭৮৫ কোটি টাকা অনুদান হিসেবে পেয়েছে কেন্দ্রের শাসক দল বিজেপি। যা একই সময়ে বিরোধী দল কংগ্রেসের পাওয়া অনুদানের তুলনায় পাঁচ গুণ! ফেব্রুয়ারিতে নির্বাচন কমিশনে জমা দেওয়া বিজেপির সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী, এক বছরে ৭৮৫ কোটি টাকা অনুদান পেয়েছে বিজেপি। অন্যদিকে কংগ্রেসের অনুদানের প্রতিবেদন অনুযায়ী, তারা পেয়েছে ১৩৯ কোটি টাকা। তৃণমূল কংগ্রেস পেয়েছে আট কোটি টাকা এবং সিপিআই পেয়েছে ১.৩ কোটি টাকা। সিপিএমের প্রাপ্ত অনুদানের পরিমাণ ১৯.৭ কোটি টাকা।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী , অন্যান্য রাজনৈতিক দলের তুলনায় তৃণমূল কংগ্রেসের তহবিলের পরিমাণ অনেকটাই কম। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে দল বাড়ছে। জাতীয় রাজনীতিতেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেসের গুরুত্ব সর্বভারতীয় স্তরে বেড়েছে। দল পরিচালনার ক্ষেত্রে এই অবস্থায় আর্থিক দিকটিও ক্রমশ ভাবাচ্ছে শাসক দলকে। তাই তহবিল বৃদ্ধির ভাবনায় প্রথমে দলীয় বিধায়কদেরই তালিকায় রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দল বলে তৃণমূল সূত্রের খবর।

তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রত্যেককে স্পষ্ট বার্তা দিয়েছেন, অনৈতিক কাজের সঙ্গে কেউ যেন কোনও ভাবেই যুক্ত না থাকেন। প্রত্যেকেই যেন স্বচ্ছতা বজায় রেখে দলের সঙ্গে যুক্ত থাকেন। এই নির্দেশও দিয়েছেন । এই অবস্থায় দলের তহবিল বৃদ্ধির বিষয়টিও স্বচ্ছতা মেনেই করছে শাসকদল। বলাবাহুল্য , ২০০১ সাল থেকে তৃণমূল বিধায়কদের বেতন থেকে প্রতি মাসে ১,০০০ টাকা করে তহবিলে নিত। ২০০৬, ২০১১ এবং ২০১৬ সালের ভোটের পরেও সেই পরিমাণে কোনও বদল আসেনি। কিন্তু গত বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল জয়ের পর সেই টাকার পরিমাণে এবার বদল আনতে  চলেছে তৃণমূল কংগ্রেস।ইতিমধ্যেই দলীয় বিধায়কদের আলাদা আলাদা করে এই বিষয়টি জানানোর প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে দলের তরফে। বিধানসভার সদস্যদের অনেকেরই ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট রয়েছে আবার যারা নতুন ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন তাঁদের অনেকেরই এখনও ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খোলা হয়নি। তাই আগামী মাসের মধ্যে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খুলে গোটা প্রক্রিয়াাটি সম্পন্ন করতে চাইছে শাসক দল। দলের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন বিধায়করা।

Published by:Pooja Basu
First published: