কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

"উত্তরপ্রদেশ ধর্ষণপ্রদেশ, সেদিকে নজর দিন অমিত শাহ", বলছেন খাদ্যমন্ত্রী

সভায় বলছেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।

জবাব দিলেন রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী ও জেলা তৃণমূলের সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক

  • Share this:

#বারসাত: বাংলার আইনশৃঙ্খলার দিকে না তাকিয়ে উত্তরপ্রদেশের আইনশৃঙ্খলার দিকে নজর দিক কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।আজও সেখানে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।উত্তরপ্রদেশ নয় যোগীর জামানা রাজ্য টা এখন ধর্ষণ প্রদেশ হয়েছে। বাংলার আইনশৃঙ্খলা অবনতি  নিয়ে প্রশ্ন তোলায় এভাবেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে পাল্টা  জবাব দিলেন রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী ও জেলা তৃণমূলের সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।

বারাসত পৌরসভার বিদ্যসাগর সভাগৃহে এক দলীয় সভায় হাজির ছিলেন তিনি।সেখানেই গতকালের নিউজ ১৮ কে দেওয়া কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ সাক্ষাৎকারের জবাব দেন রাজ্যের খাদ্য মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ।সভা শেষে খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, "বাংলা মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর নেতৃত্বে  সুন্দর ভাবে চলছে।এরাজ্যে সেভাবে কোনও রাজনৈতিক গন্ডগোল হয়না।অমিত শাহ বাংলা নিয়ে না ভেবে বরং উত্তরপ্রদেশে নজর দিন। আজও সেখানে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।" উত্তরপ্রদেশ এখন ধর্ষণ প্রদেশ হয়ে গেছে বলে এই দিন অভিযোগ করেন খাদ্যমন্ত্রী।

রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বিজেপি   নেতৃত্ব ও মন্ত্রীরা এই রাজ্যে বারবার ৩৫৬ ধারা প্রয়োগের দাবি তুলেছেন।এই বিষয়  খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, "যা খুশি করুক।এখানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ক্ষমতা সবাই জানে।মমতা বন্দোপাধ্যায়ের লড়াই দেখেছে ভারতের মানুষ।তিনি কোন জায়গায় পৌঁছাতে পারেন তা কেন্দ্রীয় সরকার খুব ভালোভাবে জানে। দুটো সাংসদ কি দাবি করল তাতে কিছু আসে যায়না। তাঁরা সাংসদ নয়,ছোকরা।২০২৪-এ এঁরা আর সাংসদ হিসেবে আসতে পারবে না" বলে দাবি করেন খাদ্য মন্ত্রী।

জ্যোতিপ্রিয়র কথায়, "বিজেপির  লোকসভার আসন ১৮ থেকে শূন্যে এসে ঠেকবে।বিজেপি  নেতারা বুঝতে পারছে তাঁদের পায়ের তলার মাটি ক্রমশ সরে যাচ্ছে ।রাজ্যে উত্তরবঙ্গে বিজেপির  অবস্থা খুব খারাপ।" সেখানে নব্য ও আদি নেতা- কর্মীদের কোন্দল ক্রমশ বাড়ছে।ফলে উত্তরবঙ্গে  ৫৩-৫৪ টি আসনের মধ্যে তিনটি আসনও বিজেপি  দখল করতে পারবে না বলে দাবি করেছেন তিনি।

এদিন ফের রাজ্যপালের ভূমিকা নিয়েও মুখ খুলেছেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।তিনি বলেন, "রাজ্যপালের ভূমিকা নিরপেক্ষ নয়।তিনি একটি রাজনৈতিক দলের এজেন্সি হয়ে কাজ করছেন।ওঁর ভূমিকায় আমরা বিরক্ত।ভারতীয় সংবিধান এমনভাবে হওয়া উচিত যেখানে রাজ্যপাল রাজনীতি করতে পারবে না।"

এমনকি ওই পদে কোনও মন্ত্রী কিংবা জনপ্রতিনিধিকে বসানো উচিত নয় বলেও মনে করেন তিনি।পুলিশ হেফাজতে বিজেপি  কর্মীর মৃত্যু হয়নি বলেও দাবি করেছেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।এই বিষয়ে রাজ্যপালকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন,"ওই বিজেপি  কর্মীর হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে।আদালত ও পুলিশের কাছে সেই তথ্য রয়েছে।কিন্তু রাজ্যপাল তথ্য ছাড়াই পুলিশি হেফাজতে মৃত্যুর কথা বলছেন বলে অভিযোগ খাদ্য মন্ত্রীর।

Published by: Arka Deb
First published: October 18, 2020, 9:33 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर