২০১৬-র থেকে অনেক ফারাক, প্রশান্তের ছোঁয়াতেই বদলে গেল তৃণমূলের ইস্তেহার?

২০১৬-র থেকে অনেক ফারাক, প্রশান্তের ছোঁয়াতেই বদলে গেল তৃণমূলের ইস্তেহার?

প্রশান্তের ছোঁয়াতেই বদলে গেল তৃণমূলের ইস্তেহার?

ইস্তেহার দেখলেই স্পষ্ট, সহজ কথায় আরও বেশি সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছে যাওয়াই লক্ষ্য তৃণমূলের৷

  • Share this:

    #কলকাতা: ২০১৬-তে ছিল ১৪৬ পাতা৷ ২০২১ তা কমে হল পঞ্চাশ পাতার ইস্তেহার৷ সরকার কী কাজ করেছে পাতার পর পাতা জুড়ে তার ঢালাও ফিরিস্তি দেওয়ার বদলে কম কথায় দলের আগামী পাঁচ বছরের পরিকল্পনা সুনির্দিষ্ট ভাবে তুলে ধরা৷

    ইন্ডিয়া টুডে-তে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী, পাঁচ বছরের মধ্যে তৃণমূলের ইস্তেহারের এই রূপ বদলের নেপথ্যে আসলে বড় অবদান রয়েছে প্রশান্ত কিশোর এবং তাঁর পেশাদার দলের৷ সেই কারণে অনেক বেশি ঝকঝকে, পেশাদার কায়দায় উপস্থাপন করা হয়েছে দিদির দশ অঙ্গীকার৷ কৃষি, শিক্ষা থেকে শুরু করে অর্থনীতি, সামাজিক উন্নয়ন- সবক্ষেত্রের জন্যই কিছু না কিছু প্রতিশ্রুতি থাকছে এই দশ অঙ্গীকারের মাধ্যমে৷

    ইস্তেহার দেখলেই স্পষ্ট, সহজ কথায় আরও বেশি সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছে যাওয়াই লক্ষ্য তৃণমূলের৷ এর পাশাপাশি তৃণমূলের এই নির্দিষ্ট প্রতিশ্রুতিগুলি যাতে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আমজনতার চর্চার বিষয় করে তোলা যায়, সেই কৌশলও নেওয়া হয়েছে৷

    তৃতীয় বারের জন্য ক্ষমতায় ফিরতে নির্দিষ্ট ভাবে সমাজের বিভিন্ন অংশকে টার্গেট করে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে রাজ্যের শাসক দল৷ তার মধ্যে যেমন মহিলাদের মন জয়ে পরিবার পিছু মাসিক সাহায্য রয়েছে, সেরমই তরুণ প্রজন্মের জন্য রয়েছে পড়াশোনার জন্য সহজে ঋণ, কর্মসংস্থানের কথা৷ পাশাপাশি কৃষক, তপসিলি, আদিবাসীদের জন্যও রয়েছে নির্দিষ্ট ঘোষণা৷

    তৃণমূলের ইস্তেহারে এবার অন্যতম জোর দেওয়া হয়েছে মানুষের দোরগোড়ায় সরকারি পরিষেবা পৌঁছে দেওয়ার উপরে৷ তার মধ্যে রয়েছে দুয়ারে রেশন, বছরে একাধিকবার দুয়ারে সরকার, পাড়ায় পাড়ায় সমাধানের মতো প্রকল্পের ব্যবস্থা করা৷ আবার যেহেতু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে এবার নন্দীগ্রাম থেকে লড়ছেন, তাই সেখানে মডেল টাউন গড়ে তোলার কথাও বলা হয়েছে তৃণমূলের ইস্তেহারে৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: