West Bengal Election 2021 : একাধিক অভিযোগ, মোদি-অমিতের প্রচার বন্ধের দাবিতে কমিশনে তৃণমূল!

West Bengal Election 2021 : একাধিক অভিযোগ, মোদি-অমিতের প্রচার বন্ধের দাবিতে কমিশনে তৃণমূল!

নরেন্দ্র মোদি ও অমিত শাহ৷ Photo-File/PTI

কেন তাঁরা বিজেপির এই দুই শীর্ষনেতার নির্বাচনী প্রচারের নিষেধাজ্ঞার দাবি তুলেছেন তাঁর কারণ ব্যাখ্যা দিয়ে বিস্তারিত জানান তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি : প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের নির্বাচনী প্রচারে নিষেধাজ্ঞা জারি করার দাবি তুলল তৃণমূল কংগ্রেস ৷ এই দাবি নিয়ে বুধবার নয়াদিল্লিতে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেসের এক প্রতিনিধি দল৷ পরে সাংবাদিকদের কাছে প্রতিনিধি দলের তরফে ব্যাখ্যা দিয়ে বিস্তারিত জানান তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।

    কেন তাঁরা বিজেপির এই দুই শীর্ষনেতার নির্বাচনী প্রচারের নিষেধাজ্ঞার দাবি তুলেছেন তাঁর কারণ হিসেবে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, বঙ্গে প্রচারে এসে মডেল কোড অব কন্ডাক্ট অমান্য করছেন প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তাঁর দাবি, নরেন্দ্র মোদি কল্যাণীর জনসভা থেকে অভিযোগ করেন মতুয়াদের জন্য তৃণমূল কংগ্রেসের সরকার কিছু করেনি ৷ এই মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনী আদর্শ আচরণবিধি ভেঙেছেন ৷ কারণ, এভাবে কোনও জাতি নিয়ে নির্বাচনী প্রচারে মন্তব্য করা যায় না৷ একই সঙ্গে শ্রীরামপুর থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ দাবি করেছেন যে মোদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে গুণ্ডা বলেছেন ৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুগামীদের গুণ্ডা বলেছেন৷ এতেও নির্বাচনী বিধিভঙ্গ হয়েছে বলে তাঁর অভিযোগ ৷

    এছাড়াও বেশ কিছু কারণ দেখিয়ে প্রাধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির প্রচারে নিষেধাজ্ঞা জারির দাবি করেছে তৃণমূল কংগ্রেস৷ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় প্রশ্ন তুলেছেন যে প্রধানমন্ত্রী হয়ে কীভাবে এত নিচু মানের কথা বলতে পারেন নরেন্দ্র মোদি? তাঁর কথায়, "মোদির কথা শুনে মনে হচ্ছে আমেদাবাদের রকে বসে কেউ এসব কথা বলছেন৷"

    অন্যদিকে তৃণমূলের তরফে অমিত শাহ সম্পর্কেও একই কথা বলা হয়েছে ৷ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের অভিযোগ, অমিত শাহ রাজবংশী ও অন্য জাতির মধ্যে ভেদাভেদ তৈরি করার মত মন্তব্য করেছেন ৷ এটাও বিধিভঙ্গ৷ তাই অমিত শাহের নির্বাচনী প্রচারে নিষেধাজ্ঞা জারির দাবি তুলেছে তৃণমূল৷

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: