• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • করোনা ঠেকাতে আপনি বাড়িতেই থাকুন, বাজার পৌঁছে দিচ্ছেন তৃণমূলের কাউন্সিলর

করোনা ঠেকাতে আপনি বাড়িতেই থাকুন, বাজার পৌঁছে দিচ্ছেন তৃণমূলের কাউন্সিলর

বাজারের থেকে অবশ্য অনেকটা কম মূল্যেই বাসিন্দাদের বাড়িতে পৌঁছে দিচ্ছেন নিত্য সামগ্রী। এখনো পর্যন্ত ভালোই সাড়া মিলেছে বলে দাবি কাউন্সিলরের।

বাজারের থেকে অবশ্য অনেকটা কম মূল্যেই বাসিন্দাদের বাড়িতে পৌঁছে দিচ্ছেন নিত্য সামগ্রী। এখনো পর্যন্ত ভালোই সাড়া মিলেছে বলে দাবি কাউন্সিলরের।

বাজারের থেকে অবশ্য অনেকটা কম মূল্যেই বাসিন্দাদের বাড়িতে পৌঁছে দিচ্ছেন নিত্য সামগ্রী। এখনো পর্যন্ত ভালোই সাড়া মিলেছে বলে দাবি কাউন্সিলরের।

  • Share this:

#কলকাতা: করোনার জেরে দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। এ রাজ্যেও সমানভাবেই চলছে লকডাউন। যদিও লকডাউন কে উপেক্ষা করে বাজারে বাজারে সাধারণ মানুষের ভিড়। কার্যত সোশ্যাল ডিসটেন্স বা সামাজিক দূরত্ব কে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে বাজারে ভিড় করছেন সাধারণ মানুষ। এরই মাঝে বিচিত্র ছবি ধরা পড়ল দক্ষিণ দমদম পৌরসভার ১৮ নম্বর ওয়ার্ডে। এখানে অবশ্য এলাকার বাসিন্দাদের বাজারে গিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে বাজার করতে হচ্ছে না। কারণ এলাকার কাউন্সিলর নিজেই বাড়িতে বাড়িতে বাজার পৌঁছে দিচ্ছেন।১৮ নম্বর ওয়ার্ডের প্রায় নয় হাজার বাসিন্দা রয়েছেন। এলাকার প্রত্যেকটি বাসিন্দাদের জন্য একটি করে হেল্পলাইন নাম্বার দিয়েছেন কাউন্সিলর সঞ্জয় দাস। হেল্পলাইন নম্বরে ফোন করলেই এক ঘন্টার মধ্যেই বাড়িতে সবজি থেকে শুরু করে নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী এমনকি মুদিখানার জিনিসও পৌঁছে দিচ্ছেন স্থানীয় কাউন্সিলর। তবে শুধু নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী নয়, পৌঁছে দিচ্ছেন ওষুধও। অবশ্যই প্রত্যেকটি বাড়িতে সামগ্রী পৌঁছে দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দুটি করে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে দেওয়া থাকছে। এ প্রসঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের এই কাউন্সিলর সঞ্জয় দাস বলেন " যেদিন থেকে রাজ্যে লক ডাউন শুরু হয়েছে সেদিন থেকেই আমরা এই উদ্যোগ নিয়েছি। এলাকার প্রত্যেকটি বাসিন্দাকে বলেছি বাজারে আপনাদের ভিড় করতে হবে না। আমরা আপনাদের বাড়িতে বাজার পৌঁছে দেব।"

তবে বাজারের থেকে অবশ্য অনেকটা কম মূল্যেই বাসিন্দাদের বাড়িতে পৌঁছে দিচ্ছেন নিত্য সামগ্রী। এখনো পর্যন্ত ভালোই সাড়া মিলেছে বলে দাবি কাউন্সিলরের। এ প্রসঙ্গে কাউন্সিলর সঞ্জয় দাস বলেন " আমরা সরাসরি চাষিদের থেকে সবজি কিনছি।তার ফলে বাজারদরে তুলনায় কিছুটা হলেও কম দামে জিনিস পৌঁছে দিতে পারছি।"

স্থানীয় কাউন্সিলরের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানাচ্ছেন এলাকার বাসিন্দারা। ওই ওয়ার্ডের এক বাসিন্দা বলেন " উনি সবসময়ই আমাদের পাশে থাকেন। আমরা দেখছি বাজার করতে অনেক মানুষ এই ভিড় করছেন। এতে সংক্রমণের আশঙ্কা থাকছে। তাই বাড়িতে বাড়িতে আমরা বাজার পাওয়াতে অনেকটাই নিশ্চিত বোধ করছি।" অবশ্য অনেকেই কাউন্সিলরের এই উদ্যোগ এবং সামগ্রিকভাবে দক্ষিণ দমদম পৌরসভার ১৮ নম্বর ওয়ার্ড কে মডেল ওয়ার্ড হিসেবেই তুলে ধরতে চাইছেন।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: