West Bengal Assembly Election 2021: বাংলার নির্বাচনে উত্তর প্রদেশের পুলিশ নয়, কমিশনে দাবি তৃণমূলের

West Bengal Assembly Election 2021: বাংলার নির্বাচনে উত্তর প্রদেশের পুলিশ নয়, কমিশনে দাবি তৃণমূলের

Yogi Adityanath UP Police

বুধবরাই নির্বাচনী প্রচারে পুরুলিয়ায় গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেছিলেন, ভোট লুট করতেই উত্তর প্রদেশ থেকে পুলিশবাহিনী আনা হচ্ছে৷

  • Share this:

    #কলকাতা: উত্তর প্রদেশের পুলিশকে বাংলায় ভোটের নিরাপত্তার দায়িত্বে মোতায়েন করা যাবে না৷ এই দাবি জানিয়ে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হল তৃণমূল কংগ্রেস৷ তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন কমিশনে এই অভিযোগ জানিয়েছেন৷

    টাইমস অফ ইন্ডিয়ায় প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, তৃণমূলের তরফে যুক্তি দেওয়া হয়েছে, উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ নিজের পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি-র তারকা প্রচারক৷ ফলে সেই রাজ্য থেকে সশস্ত্র বাহিনী বাংলার নির্বাচনে মোতায়েন করলে তৃণমূলের আপত্তি রয়েছে৷ শুধু উত্তর প্রদেশ নয়, বিজেপি শাসিত অন্যান্য যে রাজ্যগুলির মুখ্যমন্ত্রীরা এ রাজ্যে প্রচার করছেন, সেই সব রাজ্যের সশস্ত্র পুলিশবাহিনীকে নিয়েও একই আপত্তি রয়েছে তৃণমূলের৷ শাসক দল অবশ্য স্পষ্ট করে দিয়েছে, অ- বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলি থেকে পুলিশ বাহিনী পাঠালে তাদের আপত্তি নেই৷

    কমিশনে নিজেদের অভিযোগে তৃণমূল দাবি করেছে যা তাদের কাছে খবর রয়েছে, এ রাজ্যের নির্বাচনে উত্তর প্রদেশ থেকে ৩০ কোম্পানি সশস্ত্র পুলিশ বাহিনীকে মোতায়েন করা হবে৷

    একই সঙ্গে তৃণমূলের তরফে দাবি জানানো হয়েছে, ইডি, সিবিআই, এনআইএ এবং আয়কর দফতরের মতো কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনে থাকা দফতরগুলির কার্যকলাপ যেন নিয়ন্ত্রণ করে কমিশন৷ তৃণমূলের অভিযোগ, বেছে বেছে তাদের দলের প্রার্থী এবং মুখপাত্রদের ডেকে পাঠাচ্ছে ও জেরা করছে৷ অথচ একই অভিযোগে অভিযুক্ত বিজেপি নেতাদের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপই করা হচ্ছে না৷

    বুধবরাই নির্বাচনী প্রচারে পুরুলিয়ায় গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেছিলেন, ভোট লুট করতেই উত্তর প্রদেশ থেকে পুলিশবাহিনী আনা হচ্ছে৷ এ প্রসঙ্গে তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন বলেন, 'এরকম হলে নির্বাচন প্রক্রিয়ার নিরেপক্ষতা নিয়েই প্রশ্ন উঠবে৷ আমাদের আশঙ্কা, এই বাহিনী এলে তারা বিজেপি-র সমর্থনে কাজ করবে৷'

    কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলি নিয়ে তাঁদের করা অভিযোগ করা প্রসঙ্গে তৃণমূল সাংসদ বলেন, 'আমাদের প্রার্থী, নেতা, মুখপাত্রদের হেনস্থা করতে ইচ্ছাকৃত ভাবে ডেকে পাঠানো হচ্ছে৷ অথচ একই অভিযোগে অভিযুক্ত বিজেপি-র কোনও নেতা, প্রার্থী, মুখপাত্রদের একজনকেও ডাকা হচ্ছে না!' ডেরেকের অভিযোগ, কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলির অপব্যবহার করে তৃণমূল সম্পর্কে মিথ্যে ধারণা তৈরি করতে এবং ভোটারদের প্রভাবিত করতেই এমন করা হচ্ছে৷

    ডেরেক দাবি করেন, রাজ্য প্রশাসন এই মুহূর্তে নির্বাচনব কমিশনের অধীনে রয়েছে৷ একই ভাবে পক্ষপাতহীন ভাবে কাজ করার জন্য কমিশন যাতে কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলিকে নির্দেশ দেয়, সেই দাবিও জানান ডেরেক৷

    তৃণমূল সাংসদ আরও অভিযোগ করেন, প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, বিজেপি শাসিত বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এবং কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা সরকারি সুযোগ সুবিধে নিয়েই বাংলায় নির্বাচনী প্রচার করছেন৷ যার ফলে বাড়তি সুবিধে পাচ্ছে বিজেপি৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    লেটেস্ট খবর