তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় চাণক্যনীতি, বাদ পড়লেন ওঁরা...

তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় চাণক্যনীতি, বাদ পড়লেন ওঁরা...

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে দাঁড়াচ্ছেন নন্দীগ্রামেই।

৫০ জন মহিলা প্রার্থীকে তালিকায় স্থান দিল তৃণমূল। তফশিলিরা ৭৯টি আসন থেকে লড়বেন তৃণমূলের হয়ে।

  • Share this:

    কলকাতা: খেলেঙ্গে, লড়েঙ্গে, জিতেঙ্গে, এই স্লোগান তুলেই প্রার্থীতালিকা ঘোষণা করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রথমেই পরিষ্কার করে দিলেন, নন্দীগ্রামের প্রার্থী তিনি। টিকিট পেলেন বহু নতুন মুখ। বাদও গেলেন বেশ কয়েকজন চেনামুখ। যদিও মমতার আশ্বাস, যাঁরা বাদ পড়লেন তাঁদের অনেকেই যাবেন বিধান পরিষদে।

    তৃণমূল এবার আগে থেকেই বলেছিল অশীতিপরদের লড়াই থেকে বাদ রাখা হবে। বিশ্রাম দেওয়া হবে অসুস্থদেরও। আজ শুক্রবার পুরনো নতুনের মিশেলে এই প্রার্থীতালিকা যখন সামনে এল, দেখা গেল  পূর্ণেন্দু বসু নেই। রাজনৈতিক মহল বলছে, দক্ষ রাজনীতিবিদ, ঘনিষ্ঠ সহযোদ্ধা পূর্ণেন্দু বসুকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সর্বাত্মক প্রচারের কাজে লাগবেবেন নন্দীগ্রামে। অমিত মিত্রও এবার শারীরিক অসুস্থতার কারণে সরে দাঁড়াচ্ছেন। খড়দহে তাঁর পরিবর্তে দাঁড়াচ্ছেন কাজল সিনহা। থাকছেন না মনীশ গুপ্ত। থাকছেন না সিঙ্গুরের মাস্টারমশাই রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য। সিঙ্গুরের আসনে দাঁড়াচ্ছেন বেচারাম মান্না। বয়সের কারণে বাদ পড়ছে ব্রজ মজুমদারের নাম। শারীরিক সমস্যার কারণে বাদ যাচ্ছেন সোনালি গুপ্তও। । বাদ পড়ছেন অমল আচার্যও। নাম নেই জটু লাহিড়ির। আগে থেকে নিজেই সরে দাঁড়িয়েছেন মমতার প্রিয় বুয়া তথা সমীর চক্রবর্তী। নিজেকে আগেভাগেই সরিয়ে নিয়েছিলেন রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়ও।

    টিকিট দেওয়া হয়নি রেজ্জাক মোল্লা, মালা সাহা, রত্না ঘোষ কর, স্মিতা বক্সী,নার্গিস বেগম, রবীন ভট্টাচার্যদেরও। টিকিট পেলেন না রায়দিঘির বিধায়ক দেবশ্রী রায়ও। এছাড়াও আশিস চক্রবর্তী, প্রদ্যুত ঘোষেরাও টিকিট পাননি। টিকিট পাননি হিতেন বর্মন, দীপেন্দু বিশ্বাসরা। বাদ পড়াদের মধ্যে রয়েছেন মোট ২৭ জন।

    এবারের প্রার্থী তালিকায় তৃণমূল কাজে লাগিয়েছে সোশ্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং তত্ত্ব। অর্থাৎ সমাজের বিভিন্ন স্তরের প্রতিনিধিদের কৌশলে ভাগ করে দেওয়া হয়েছে টিকিট।তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় এবার স্থান পেয়েছেন ৪২ জন মুসলিম প্রার্থী। ৫০ জন মহিলা প্রার্থীকে তালিকায় স্থান দিল তৃণমূল। তফশিলিরা ৭৯টি আসন থেকে লড়বেন তৃণমূলের হয়ে।

    Published by:Arka Deb
    First published: