• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • TMC ALLEGES THAT GOVERNOR JAGDEEP DHANKHAR IS PROVING HIMSELF AS BJP STATE PRESIDENT DMG

Bratya Basu on Jagdeep Dhankhar: ব্যর্থ বিজেপি রাজ্য সভাপতি, সেই ভূমিকা নিয়েছেন রাজ্যপাল, কটাক্ষ ব্রাত্যর

রাজ্যপালকে নিশানা শিক্ষামন্ত্রীর৷

এ দিন রাজ্যপালের (Jagdeep Dhankhar) বিরুদ্ধে ফের একবার রাজ্য ভাগের চক্রান্ত করার অভিযোগও তুলেছেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু (Bratya Basu)৷

  • Share this:

    #কলকাতা: রাজ্যপালের বিরুদ্ধে ফের একবার ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ তুলল তৃণমূল কংগ্রেস৷ শাসক দলের অভিযোগ, ক্ষমতার অপব্যবহার করে রাজ্যপাল সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছেন৷ জগদীপ ধনখড় মানুষের মধ্যে বিভাজনও তৈরির চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ করেছেন তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায়৷

    এ দিন রাজ্যপালের বিরুদ্ধে ফের একবার রাজ্য ভাগের চক্রান্ত করার অভিযোগও তুলেছেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু৷ তিনি এ দিনও দাবি করেছেন, রাজ্যপাল দার্জিলিংয়ে গিয়ে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন৷ তাঁর আরও কটাক্ষ, রাজ্য বিজেপি সভাপতিকে ব্যর্থ প্রমাণ করতে নিজেই সেই ভূমিকা পালন করার চেষ্টা করছেন রাজ্যপাল৷

    রাজ্যপাল অভিযোগ করেছিলেন, জিটিএ-তে আর্থিক গরমিল রয়েছে৷ ক্যাগ-কে দিয়ে অডিট করানোর হুঁশিয়ারিও দেন তিনি৷ এ দিন শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু দাবি করেন, 'জিটিএ আইনে পরিষ্কার বলা আছে যে জিটিএ পার্বত্য বিষয়ক দফতরের মন্ত্রীর অধীনে থাকবে৷ এই দফতরের দায়িত্বে রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই৷ রাজ্যপাল চাইলেই সেই হিসেব তাঁর কাছে পৌঁছে যেত৷ কিন্তু সরকারের কাছে সেই হিসেব না চেয়ে তিনি সংবাদমাধ্যমে সরকারের বদনাম করছেন৷ তিনি নিজেকে রাজ্যের অভিভাবক বলে দাবি করেন৷ অথচ আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে যখন কেন্দ্রীয় সরকার হেনস্থা করছে, তখন তিনি চুপ করে ছিলেন৷'

    রাজ্যপাল যেভাবে রাজ ভবনে বেসরকারি সংবাদমাধ্যমকে ডেকে নিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করছেন বা নিয়মিত ট্যুইটারের মতো সামাজিক মাধ্যমকে ব্যবহার করছেন, তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন শিক্ষামন্ত্রী৷ তিনি বলেন, 'এই গেজেট গুলি রাজ্যপাল আদৌ ব্যবহার করতে পারেন কি না, করলেও তার রূপরেখা কী হবে, সংবিধানে তার কোনও ব্যাখ্যা নেই৷ কেন্দ্রীয় সরকার এই বিষয়ে নির্দিষ্ট গাইডলাইন তৈরি করে দিক৷ কারণ অনেক রাজ্যপালই নিয়মিত এগুলি ব্যবহার করছেন৷ উনি দিল্লিতে গিয়ে সাধারণত প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে ব্যস্ত থাকেন, কিন্তু ওনার যিনি আসল বস, সেই রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করার বিষয়ে তিনি সেরকম উৎসাহ দেখান না৷' কটাক্ষের সুরে ব্রাত্য বসু বলেন, রাজ্য বিজেপি সভাপতি ব্যর্থ প্রমাণ করতে সেই ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন রাজ্যপাল৷

    এর পাশাপাশি জৈন হাওয়ালা মামলা নিয়েও রাজ্যপালের দাবিকে অর্ধসত্য বলে তোপ দেগেছেন তৃণমূল সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায়৷ সাংবাদিক বিনীথ নারায়ণের ফেসবুক পোস্টের উল্লেখ করে তিনি দাবি করেন, আইনি জটিলতায় এই মামলার বিচার পর্বই শুরু হয়নি৷ ফলে অভিযুক্তদের অব্যাহতি পাওয়ারও প্রশ্ন নেই৷ রাজ্যপাল সোমবার দাবি করেছিলেন, এই মামলার চার্জশিটে তাঁর নাম নেই৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: