কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

একই দিনে করোনার বলি রাজ্য়ের তিন চিকিৎসক, মৃত সাগর দত্ত মেডিক্যালের অধ্য়ক্ষা

একই দিনে করোনার বলি রাজ্য়ের তিন চিকিৎসক, মৃত সাগর দত্ত মেডিক্যালের অধ্য়ক্ষা
সাগর দত্ত মেডিক্যাল কলেজের প্রয়াত অধ্য়ক্ষা হাসি দাশগুপ্ত৷

উত্তর ২৪ পরগণার কামারহাটির সাগর দত্ত মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষা চিকিৎসক হাসি দাশগুপ্ত দু' দিন আগে হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়েন। করোনা ধরা পড়ে তাঁর৷

  • Share this:

#কলকাতা: রক্তক্ষরণ হলেও লড়াই থেমে থাকবে না। থামতে পারে না। মরণপণ লড়াই চলবেই। নভেল করোনা ভাইরাস ঠেকাতে চিকিৎসকদের মৃত্যু মিছিল চলছে বিশ্বজুড়েই। এ রাজ্য তার ব্যতিক্রম নয়।রাজ্যে প্রায় ১০০ জন চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে করোনা আক্রান্ত হয়ে। বৃহস্পতিবার রাজ্যের চিকিৎসক মহলের কাছে ছিল আরও এক অত্যন্ত শোকের দিন। একই দিনে রাজ্যের তিন বিশিষ্ট চিকিৎসকের প্রাণ কাড়ল নভেল করোনা ভাইরাস।

উত্তর ২৪ পরগণার কামারহাটির সাগর দত্ত মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষা চিকিৎসক হাসি দাশগুপ্ত দু' দিন আগে হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়েন। করোনা ধরা পড়ে তাঁর৷ কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই বৃহস্পতিবার দুপুরে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।শিয়ালদহ এনআরএস হাসপাতালে সুপার এবং অ্যানাটমি বিভাগের প্রধানের পদ দীর্ঘদিন তিনি সামলেছেন তিনি। ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় ছিলেন এই চিকিৎসক।

অন্যদিকে নদিয়ার কল্যাণীরবিশিষ্ট কার্ডিওথোরাসিক সার্জন রমেন হাজরা কয়েকদিন আগে করোনা আক্রান্ত হওযার পর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরেন। বাড়ি ফেরার পর তার আবার শারীরিক সমস্যা দেখা যায় তাঁর। ফের তাঁকে ঢাকুরিয়া আমরি হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করানো হয়। সেখানে বৃহস্পতিবার বেলা বারোটা নাগাদ তাঁর মৃত্যু হয়। অন্যদিকে জলপাইগুড়ির বিশিষ্ট ইএনটি সার্জেন মৃণালকান্তি আচার্য নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন।আরজিকর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রাক্তনী মৃনালকান্তি আচার্যরও বৃহস্পতিবার  করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়। শিলিগুড়ির একটি হাসপাতালে দীর্ঘদিন ভর্তি ছিলেন তিনি৷

ওয়েস্ট বেঙ্গল ডক্টরস ফোরাম, সার্ভিস ডক্টরস ফোরাম, ডক্টরস ফর পেশেন্টস বা ডোপা, অ্যাসোসিয়েশন অফ হেলথ সার্ভিসেস ডক্টরস, শ্রমজীবী স্বাস্থ্য উদ্যোগ সহ বিভিন্ন চিকিৎসক সংগঠন এই তিন চিকিৎসকের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেন। ডক্টরস ফর পেশেন্টস বা ডোপার পক্ষ থেকে চিকিৎসক শারদ্বত মুখোপাধ্যায় জানান, 'এই শোক প্রকাশের ভাষা নেই। একে একে অনেক করোনা যোদ্ধা চিকিৎসকই আমাদের ছেড়ে চলে যাচ্ছেন। এঁদের পরিবারের পাশে দাঁড়ানো আমাদের প্রত্যেকের কর্তব্য।"

ওয়েস্টবেঙ্গল ডক্টরস ফোরামের পক্ষ থেকে চিকিৎসক রাজীব পান্ডে জানান, "চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীদের আরও অনেক সতর্ক হয়ে কাজ করতে হবে। চিকিৎসক-নার্স স্বাস্থ্যকর্মীরা করোনা আক্রান্ত হলে তাঁদের জন্য সরকারি, বেসরকারি হাসপাতালে আলাদা বিশেষ বেডের ব্যবস্থা করতে হবে সরকারকে।'

Avijit Chanda

Published by: Debamoy Ghosh
First published: December 3, 2020, 7:47 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर