Home /News /kolkata /
Debanjan Deb: পড়ুয়া হিসাবে কেমন ছিলেন দেবাঞ্জন? মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের নম্বর দেখলে তাজ্জব হয়ে যাবেন

Debanjan Deb: পড়ুয়া হিসাবে কেমন ছিলেন দেবাঞ্জন? মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের নম্বর দেখলে তাজ্জব হয়ে যাবেন

সূত্রের খবর ২০০৯ সালে মাধ্যমিক এবং ২০১১ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছিলেন এই দেবাঞ্জন।

  • Share this:

#কলকাতা: গত কয়েকদিন ধরেই দেবাঞ্জন দেবের (Fake IAS Debanjan Deb) কীর্তিতে সরগরম রাজ্য। দেবাঞ্জন দেবের ঘটনা নিয়ে একদিকে যেমন পুলিশ তৎপর। অন্যদিকে শাসক-বিরোধী তরজা তুঙ্গে দেবাঞ্জন দেবের কীর্তি নিয়ে। কিন্তু এই দেবাঞ্জন দেব স্কুলে কেমন ছাত্র ছিলেন? কত পেয়েছিলেন মাধ্যমিক- উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায়? সূত্রের খবর ২০০৯ সালে মাধ্যমিক এবং ২০১১ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছিলেন এই দেবাঞ্জন। শিয়ালদার টাকি বয়েজ গভমেন্ট স্কুল থেকেই এই ছাত্র পরীক্ষা দিয়েছিলেন। কত পেয়েছিলেন মাধ্যমিক উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায়? তার বিস্তারিত তথ্য এসেছে নিউজ ১৮ বাংলার হাতে।

সূত্রের খবর ২০০৯ সালে মাধ্যমিক দেন দেবাঞ্জন দেব। বাংলার দুটি পেপার মিলিয়ে মোট ২০০ নম্বরে ১৩১ পান। ইংরেজিতে ১০০ তে ৭৬ পান। অঙ্কে ৭০, পদার্থবিজ্ঞানে ৮৭, জীবন বিজ্ঞানে ৬৭, ইতিহাসে ৫৫, ভূগোলে ৭৫ নম্বর পান দেবাঞ্জন। অর্থাৎ মাধ্যমিকে ৮০০র মধ্যে তিনি পান ৫৬১। তুলনামূলকভাবে উচ্চ মাধ্যমিকের ফল খারাপ হয় দেবাঞ্জনের।

উচ্চমাধ্যমিকে বিজ্ঞান নিয়ে পড়াশোনা করেন তিনি। পরীক্ষা দেন ২০১১ সালে। বাংলায় পান ৭২, ইংরেজিতে ৬৩, কেমিস্ট্রিতে ৪৪, অঙ্কে ৫০, বায়োলজিতে ৬৫, এবং পরিবেশ বিদ্যায় ৭৭ নম্বর পায় দেবাঞ্জন। বেস্ট অফ ফাইভ এর নিরিখে মোট প্রাপ্ত নম্বর ছিল দেবাঞ্জনের ২৯৪। বিজ্ঞানের বিষয়গুলিতে খুব একটা ভালো ফল তিনি করতে পারেননি। দেবাঞ্জন স্কুলের বন্ধুদের কথায় অবশ্য, তিনি পড়াশোনায় ভালো ছিলেন।

অন্যদিকে এদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও এই ঘটনায় কড়া অবস্থান নিয়েছেন। তিনি বলেন "এত বড় প্রতারক সব কিছু প্রতারণা করেছে। যারা এইসব কাজ করে তাদের আমি মানুষ বলে মনে করি না। আমি নিজে পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে তিন চারবার কথা বলেছি। ওর পিছনে যেই থাকুক না কেন কাউকে রেয়াত করা হবে না। আমার ধিক্কার জানানোর ভাষা নেই। পুলিশের চোখের সামনে এ কোন অফিস চালাচ্ছে সেটা মাঝে মাঝে দেখা উচিত। পুলিশ তার দায়িত্ব এড়াতে পারে না। পুরসভাও তার দায়িত্ব এড়াতে পারেনা বলেই আমি মনে করি।"

সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:

পরবর্তী খবর