প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষায় দেবী দুর্গা, ত্রিধারা সম্মিলনীতে সবুজের সমাহার

নিজস্ব চিত্র

হারিয়ে যাচ্ছে প্রকৃতি। নষ্ট হচ্ছে প্রাকৃতিক ভারসাম্য। ভুল খাদ্যাভ্যাস। বেনিয়ম জীবনযাপন।

  • Share this:

    #কলকাতা: হারিয়ে যাচ্ছে প্রকৃতি। নষ্ট হচ্ছে প্রাকৃতিক ভারসাম্য। ভুল খাদ্যাভ্যাস। বেনিয়ম জীবনযাপন। এগিয়ে থাকার দৌড়। সবুজ ছেঁটে একের পর এক বহুতল। হারিয়ে যাচ্ছে সূর্য ওঠা ভোর দেখার অভ্যাস। ক্রমেই গাঢ় হচ্ছে রাত-জীবন। আর এসবেরই ফলশ্রুতি প্রতিশোধ। প্রতিশোধ নিতে শুরু করেছে প্রকৃতি। এবার তাই অনেকটা খোলা আকাশ, বৃষ্টি, সবুজ নিয়ে মর্তে আসছেন দুর্গা। ত্রিধারা সম্মিলনির মণ্ডপে।

    সব প্রাণীর চেয়ে বুদ্ধিমান মানুষ। সর্বনাশের মূল সেখানেই। মানুষ এখন যন্ত্র। মানসিকভাবে। আধুনিকতার জোয়ারে গা ভাসাতে গিয়ে একের পর এক ভুলে ভরে উঠছে জীবন। বদলে যাচ্ছে তার জীবনের নির্ঘণ্ট।চারদিকে সবুজের চিহ্নমাত্র নেই । সব কেমন রুক্ষ ফাঁকা। কংক্রিটে ঘোরা কনটেম্পোরারি জঙ্গল। সব জেনেও নীরব সকলে। সেই নীরবতায় একটা ঝাকানি দিতে চান রাষ্ট্রপতি পুরস্কারপ্রাপ্ত শিল্পী গৌরাঙ্গ কুইল্যা। ত্রিধারা সম্মিলনীর মণ্ডপ সেজে উঠছে তাঁরই পরিকল্পনায়।

    অনেকটা খোলা আকাশ নিয়ে আসছেন শিল্পী। তাঁর কল্পনায় দুর্গা এখানে প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষা করতে আসছেন। তাঁর হাতে নটি গাছের চারা। সঙ্গে আনছেন ফুল, পাখি, বৃষ্টি। মণ্ডপের মাটি ফুঁড়ে উঠে আসছে বড় বড় বাড়ি। রাতের জীবন বোঝাতে মণ্ডপ জুড়ে কালো বাদুড়ের ইনস্টলেশন। চারদিকে গোল্ডেন ট্রি। প্রাণহীন যে গাছ পয়সা দেয়। শান্তি দেয় না।

    অসুর এখানে প্রাকৃতিক দুষণ। মণ্ডপের আনাচে কানাচে কোথাও ফাস্ট ফুডের দোকান। তো কোথাও ওষুধে বিশাল ডাব্বা মাটি ফুঁড়ে উঠছে। সকলে মিলে গিলতে চায় পুরো আকাশটাকে।

    ঠাকুর দেখা। একই সঙ্গে নিজেকে চেনা। যদিও ত্রিধারার সামনে সরু রাস্তা দিয়ে যেতে গিয়ে শিল্পীর এই বার্তা কতটা বুঝবেন দর্শক, তা নিয়ে সন্দেহ থেকেই যাচ্ছে।

    First published: