corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা হওয়ার অপরাধে, রোগীকে জুতোপেটা করল প্রতিবেশী !

করোনা হওয়ার অপরাধে, রোগীকে জুতোপেটা করল প্রতিবেশী !
photo source collected

অপরাধ, কোভিড-১৯ পজেটিভ। সেই অপরাধে করোনা রোগীকে জুতোপেটা হতে হল।

  • Share this:

 #কলকাতা: অপরাধ, কোভিড-১৯ পজেটিভ। সেই অপরাধে করোনা রোগীকে জুতোপেটা হতে হল।এমনকি পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে শ্লীলতাহানী এবং শারীরিক নির্যাতন করল কয়েকজন। সম্পূর্ণ ঘটনা ঘটালো প্রতিবেশী, পাশের ফ্ল্যাটের লোকজন।  ওই নির্যাতিত পরিবার থানায় অনলাইন অভিযোগ দায়ের করেছে।  ঘটনাটি ঘটেছে বৈষ্ণবঘাটা কেন্দুয়া এলাকার একটি আবাসনে।

হীরক নাগ পেশায় তথ্যপ্রযুক্তি কর্মী। স্ত্রী সোমা নাগ কলকাতার একটি স্কুলের শিক্ষিকা। লকডাউন থেকেই ওঁদের  স্কুল, অফিস সবই বন্ধ। যার ফলে সব সময় বাড়িতেই ছিলেন তাঁরা। ১৭ই জুলাই হীরক এবং তাঁর পরিবারের কোভিড-১৯ পরীক্ষা হলে, জানা যায় হীরক বাবু করোনা আক্রান্ত। তাঁর স্ত্রী  সোমা এবং ছেলে দু'জনই করোনা নেগেটিভ। ওনাদের বাড়ির যে চাকরানী রয়েছেন, তিনিও করোনা পজেটিভ। ডাক্তারি পরামর্শে ওনারা সবাই হোম আইসোলেশনেই রয়েছেন। ফোনের মাধ্যমে ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলে ওষুধ খাচ্ছেন সবাই।  যেহেতু করোনা হয়েছে ,তাই ওরা যে এই সমাজের মানুষ নয় । সেটা পাশের ফ্লাটের জয়ন্ত ঘোষ এবং তার ছেলে অনির্বাণ ঘোষ প্রতিদিন ফোন করে নানাভাবে হুমকি দিয়ে বোঝাচ্ছেন তাঁদের।

আজ ফোন করে হুমকি দেওয়াতেই থেমে থাকে না বিষয়টা।  পাশের ফ্ল্যাটের লোকজন গিয়ে হীরক বাবুকে জুতো দিয়ে মারেন এবং তাঁর স্ত্রীকে ধাক্কা দেন এবং লাঞ্ছিত করেন বলে অভিযোগ।তবে এই অভিযোগের কথা অস্বীকার করেছেন,অনির্বাণ ঘোষ। তাদের দাবি করোনা হওয়ার পরও হীরক বাবুরা, রাস্তায় বেরোচ্ছেন ও দোকান,বাজার করতে যাচ্ছেন।  ঘটনায় হীরক বাবুর তিন বছরের সন্তান আতঙ্কে রয়েছে। ঘটনার বিবরণ দিতে গেলে ওই ছোট্ট শিশুটি আঁতকে উঠছে। যাকে এক কথায় বলা হয় ট্রমাটাইজড। বিষয়টি পাটুলি থানাতে ই-মেল করে সম্পূর্ণরূপে অভিযোগ জানিয়েছেন হীরক বাবু। এখনও পর্যন্ত পুলিশের তরফ থেকে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে দাবি করেন সোমা নাগ।  ওই নাগ পরিবার রীতিমতো ভয়ে রয়েছেন। এখনও বারে বারে তাদের কাছে হুমকি আসছে। ওই অনির্বাণ এবং জয়ন্ত বাবুর তরফ থেকে। এই ঘটনায় রীতিমতো বিস্মিত চিকিৎসকেরা। চিকিৎসকদের মত অনুযায়ী ,এইভাবে যদি করোনা আক্রান্ত রোগীদের শারীরিক লাঞ্ছনা এবং হেনস্তা করা হয়, তাহলে বেশিরভাগ মানুষ তাদের চিকিৎসা করাতে কুণ্ঠাবোধ করবেন এবং ভয় করবেন। যার পরিণাম হবে একশোর মধ্যে ৯০ শতাংশের বেশি করোনা সংক্রমণ।  এছাড়াও বিশিষ্ট মানুষেরা ,ওই জয়ন্ত এবং তার ছেলে অনির্বাণ এর বিরুদ্ধে  আইনত পদক্ষেপের দাবি করেছেন। যদি এইভাবে এই অপরাধ, অপরাধীরা ছাড়া পেয়ে যান। তাহলে ভবিষ্যতে পরিণতি খুব খারাপ হবে, মনে করছেন সবাই।

SHANKU SANTRA 
Published by: Piya Banerjee
First published: July 22, 2020, 9:13 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर