• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • পুরভোটে রাজ্য পুলিশে ভরসা নেই রাজ্যপালের ! পরোক্ষে কেন্দ্রীয় বাহিনীর পক্ষে সওয়াল !

পুরভোটে রাজ্য পুলিশে ভরসা নেই রাজ্যপালের ! পরোক্ষে কেন্দ্রীয় বাহিনীর পক্ষে সওয়াল !

কেন্দ্রীয় বাহিনীর নিরাপত্তায় মুড়ে পুরভোট হোক রাজ্যে। অন্তত এমনটাই চান রাজ্যপাল জাগদীপ ধনখড়।

কেন্দ্রীয় বাহিনীর নিরাপত্তায় মুড়ে পুরভোট হোক রাজ্যে। অন্তত এমনটাই চান রাজ্যপাল জাগদীপ ধনখড়।

কেন্দ্রীয় বাহিনীর নিরাপত্তায় মুড়ে পুরভোট হোক রাজ্যে। অন্তত এমনটাই চান রাজ্যপাল জাগদীপ ধনখড়।

  • Share this:

#কলকাতা: কেন্দ্রীয় বাহিনীর নিরাপত্তায় মুড়ে পুরভোট হোক রাজ্যে। অন্তত এমনটাই চান রাজ্যপাল জাগদীপ ধনখড়। রাজভবন সূত্রে খবর  তেমনটাই। রাজ্যপালের এমন ভাবনার সুরটা বৃহস্পতিবারই স্পষ্ট হয়েছে। এদিন রাজ্য নির্বাচন কমিশনার সৌরভ দাসকে চিঠি দিয়েছেন রাজ্যপাল। সেই চিঠির মর্মবস্তু পুরভোটের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা। পাশাপাশি রাজ্যের সব রাজনৈতিক দলের মতকে সমান গুরুত্ব দেওয়া এবং তাদের ভোট নিয়ে অভিযোগ শোনা।

রাজ্যপাল চিঠিতে লিখেছেন, সংবিধান অনুযায়ী পুরভোটের শেষ কথা বলার অধিকার রাজ্য নির্বাচন কমিশনের রয়েছে। রাজ্য সরকারের অধীনস্থ কোন সংস্থা কমিশন নয় আবার রাজ্য সরকারের বর্ধিত কোন অংশও নয় কমিশন। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের জন্য রোলমডেল হয়ে উঠতে হবে কমিশনকে। ২০১৩ এবং ২০১৮ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনের তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা কমিশনকে চিঠিতে স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন রাজ্যপাল। প্রসঙ্গত ২০১৩ সালে পঞ্চায়েত নির্বাচন কবে হবে, কীভাবে হবে এবং কোন নিরাপত্তা বলয়ে হবে তা নিয়ে তৎকালীন রাজ্য নির্বাচন কমিশনার মীরা পান্ডে সঙ্গে সংঘাতে জড়িয়ে পড়ে রাজ্য সরকার। রাজ্য নির্বাচন কমিশনের ভাবনাকে অগ্রাধিকার দিয়ে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সেবার কেন্দ্রীয় বাহিনীর তত্ত্বাবধানে পঞ্চায়েত ভোট হয় রাজ্যে। ২০১৩ এবং ২০১৮ দুই পঞ্চায়েত নির্বাচনে প্রাণহানির ঘটনা আটকানো যায়নি। সেসময় বিরোধীরা অভিযোগ করে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। রাজ্য পুলিশ নিষ্ক্রিয় বলেও অভিযোগ ছিল বিরোধীদের।

 রাজ্যের বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে একাধিকবার আলোচনায় রাজ্যপাল হয়তো এটা বুঝেছেন রাজ্যের শাসক দল ছাড়া রাজ্য পুলিশের ওপর কেউই ভরসা রাখে না। তাই এদিন রাজ্য নির্বাচন কমিশনারকে দেওয়া চিঠিতে রাজ্য পুলিশের ওপর অনাস্থা ব্যক্ত করেছেন খোলাখুলি ভাবে। পুরনির্বাচনের যেকোনো ধরনের হিংসা রুখতে অতিরিক্ত পুলিশ ফোর্স-এর বন্দোবস্তের পরামর্শ দিয়েছেন রাজ্যপাল। রাজনৈতিক মহলের মতে, রাজ্যপালের এই অতিরিক্ত পুলিশ ফোর্স এর দাওয়াই আদতে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে বোঝানো।২৭ ফেব্রুয়ারি কমিশনের সঙ্গে রাজ্যপালের বৈঠকে যে পুরসভা নির্বাচনের নিরাপত্তা নিয়ে অনেক শব্দ খরচ হয়েছিল সেকথাও উল্লেখ করতে ভোলেননি রাজ্যপাল। পুরভোট নিয়ে রাজ্যের প্রস্তাব ও দিনক্ষণ জানতে চেয়ে নবান্নে পৌঁছেছে কমিশনের চিঠি। রাজ্য নির্বাচন কমিশন আইন অনুযায়ী, রাজ্য নির্বাচনের প্রস্তাব পাঠালে কমিশন তা চূড়ান্ত করার পথে হাঁটবে। ঠিক এমন সময় রাজ্যপালের নিরাপত্তা চিঠি রাজ্য এবং রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে ভাবাবে নিঃসন্দেহে।

ARNAB HAJRA 

Published by:Piya Banerjee
First published: