corona virus btn
corona virus btn
Loading

প্রসূতি করোনা আক্রান্ত, সংক্রমণের ভয়ে বন্ধ হল কলকাতার ঠাকুরপুকুর BMRI হাসপাতাল

প্রসূতি করোনা আক্রান্ত, সংক্রমণের ভয়ে বন্ধ হল কলকাতার ঠাকুরপুকুর BMRI হাসপাতাল

কলকাতায় আবার বন্ধ হাসপাতাল

  • Share this:

#কলকাতা: নভেল করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক পিছু ছাড়ছে না রাজ্যের। সবথেকে আশঙ্কার বিষয়, রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে একের পর এক চিকিৎসক- নার্স- স্বাস্থ্যকর্মী করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন। ফলে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল, নার্সিং হোম হয় সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যাচ্ছে, না হয় আংশিক বন্ধ থাকছে, সেক্ষেত্রে চালু থাকছে কিছু নির্দিষ্ট বিভাগ ।

শুক্রবার ঠাকুরপুকুর BMRI হাসপাতাল (Bangur Medicare Research Institute Hospital Pvt Ltd) বন্ধ করে দেওয়া হল। সম্প্রতি এক প্রসূতি ভর্তি হয় এই হাসপাতালে। অস্ত্রোপচারের আগে করোনা পরীক্ষা করার সিদ্ধান্ত নেন চিকিৎসকেরা। বৃহস্পতিবার রাতে রিপোর্ট আসলে দেখা যায়, প্রসূতি করোনা আক্রান্ত অর্থাৎ তাঁর রিপোর্ট কোভিড-১৯ পজিটিভ। এরপরই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে গোটা হাসপাতালে। এমনিতেই লকডাউনের জেরে হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা অনেকটাই কমে গিয়েছিল। এরমধ্যে চিকিৎসাধীন রোগী করোনা আক্রান্ত হওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কোন রকম ঝুঁকি না নিয়ে আপাতত হাসপাতাল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এর আগে বুধবার থেকেই বেহালা বিদ্যাসাগর স্টেট জেনারেল হাসপাতালে করোনা আতঙ্কের জেরে হাসপাতালের দুটি বিভাগ বন্ধ করে দেওয়া হয়। হাসপাতালে এক প্রসূতি সন্তান জন্ম দেওয়ার পর জানা যায় তিনি করোনা আক্রান্ত, ফলে  ফিমেল সার্জিকাল ওয়ার্ড বা মহিলা শল্য বিভাগ এবং শিশু বিভাগ বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এরপর আজ, শুক্রবার  ঠাকুরপুকুরের বেসরকারি বিএমআরআই  মাল্টিস্পেশালিটি হাসপাতাল বন্ধ করে দেওয়ায় সমস্যার মুখে বহু রোগী। বেহালা, তারাতলা, সরশুনা, হরিদেবপুর, ঠাকুরপুকুর, জোকা, পৈলান-সহ দক্ষিণ শহরতলির বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ চূড়ান্ত চিকিৎসাজনিত সমস্যায় পড়লেন।

রাজ্যের অন্যতম চিকিৎসক সংগঠন 'ওয়েস্টবেঙ্গল ডক্টরস ফোরাম'-এর পক্ষ থেকে রাজ্যের মুখ্য সচিবকে চিঠি দিয়ে জানানো হয়েছে গোটা রাজ্য জুড়ে বর্তমানে মোট ১৪০ জন চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী করোনা আক্রান্ত। সংগঠনের পক্ষ থেকে সভাপতি ডঃ অর্জুন দাশগুপ্ত জানিয়েছেন, 'বহু হাসপাতাল নার্সিংহোম বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। অবিলম্বে রাজ্য সরকার যেন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে। ন্যূনতম সুরক্ষা ছাড়া বহু চিকিৎসক,নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী রোগী পরিষেবা দিতে বাধ্য হচ্ছে। বহু সংখ্যক চিকিৎসক,নার্স,স্বাস্থ্যকর্মীরা করোনা আক্রান্ত হওয়ার ফলে হাসপাতাল পরিষেবা ভেঙে পড়েছে। ফলে করোনা ছাড়া অন্যান্য রোগে আক্রান্ত মানুষ চূড়ান্ত ভোগান্তির সম্মুখীন হচ্ছে।'

'অ্যাসোসিয়েশন অফ হেলথ সার্ভিসেস ডক্টরস'- এর পক্ষ থেকে ডক্টর মানস গুমটা জানিয়েছেন,'পরিস্থিতি মারাত্মক আকার ধারণ করছে। অবিলম্বে রাজ্য সরকার যদি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ না করে, তবে গোটা রাজ্যের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়বে।'

AVIJIT CHANDA

Published by: Rukmini Mazumder
First published: May 8, 2020, 4:51 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर