ফের মামলার জটে আংশিক এবং চুক্তিভিত্তিক কলেজ শিক্ষকদের স্থায়ীকরণ

ফের মামলার জটে আংশিক এবং চুক্তিভিত্তিক কলেজ শিক্ষকদের স্থায়ীকরণ
File Photo

সমবেতনের আবেদনে সরব চুক্তিভিত্তিক শিক্ষকরা ৷

  • Share this:

#কলকাতা:ফের মামলার জটে আংশিক এবং চুক্তিভিত্তিক কলেজ শিক্ষকদের স্থায়ীকরণ। সমবেতনের আবেদনে সরব চুক্তিভিত্তিক শিক্ষকরা।

রাজ্যের কলেজগুলিতে দীর্ঘদিন ধরে আংশিক এবং চুক্তিভিত্তিক শিক্ষকতা করে চলেছেন এমন সংখ্যা নেহাত কম নয়। বাম আমল থেকে বর্তমান রাজ্য সরকার তাঁদের পাশে দাঁড়িয়ে চাকরির একটা পাকা বন্দোবস্তও করে দেয়। ২৩ ডিসেম্বর ২০১৯, রাজ্যের শিক্ষা দফতর মেমোরেন্ডামও জারি করে। তাতে বলা হয়, ১০বছরের কম বা ১০ বছরের বেশি রাজ্যের কলেজগুলিতে যাঁরা আংশিক এবং চুক্তিভিত্তিক কলেজ শিক্ষকতায় যুক্ত তাঁদের বেতন বাড়বে।

ইউজিসি নিয়মে, কলেজ শিক্ষকতা করার যোগ্যতা যাঁদের রয়েছে সেই সব আংশিক ও চুক্তিভিত্তিক শিক্ষকদের মাসিক বেতন বাড়িয়ে করা হয় ৩১ হাজার থেকে ৩৫ হাজার টাকা পর্যন্ত। যে সমস্ত আংশিক এবং চুক্তিভিত্তিক কলেজ শিক্ষকদের, ইউজিসি নিয়ম অনুযায়ী যোগ্যতা নেই তাঁদের বেতন করা হয় মাসিক ২০ হাজার থেকে ২৫ হাজার টাকা। প্রতিবছর ৩ শতাংশ হারে বেতন বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত জানানো হয় বিজ্ঞপ্তিতে। রাজ্যের ২৩শে ডিসেম্বরের এই বিজ্ঞপ্তিতে তীব্র অসন্তুষ্ট চুক্তি ভিত্তিক ও আংশিক সময়ের শিক্ষকরা।

বৈশাখী দত্ত-সহ একাধিক পার্টটাইম শিক্ষক হাইকোর্টে মামলা ঠুকেছেন। বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তীর বেঞ্চে মামলা দায়ের হয়েছে।  বৈশাখী'র আইনজীবী সুদীপ্ত দাশগুপ্ত কথায়, ‘আংশিক এবং চুক্তিভিত্তিক কলেজ শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির নামে কলেজ গুলির শূন্যপদ ভরাট হচ্ছে।সেখানে ইউজিসি যোগ্যতাহীন কলেজশিক্ষকের সংখ্যাই বেশি। দীর্ঘদিন যাঁরা শিক্ষকতা করছেন তাদের অভিজ্ঞতার কোনও মূল্য থাকছে না। অন্য সুবিধাও কমিয়ে দেওয়া হয়েছে নতুন বিজ্ঞপ্তিতে।’

মামলায় আবেদন করা হয়েছে, রাজ্যের বিজ্ঞপ্তি সম্পূর্ণ খারিজ করা হোক। মামলা বিচারাধীন থাকলে বিজ্ঞপ্তির উপর অন্তর্বর্তী স্থগিতাদেশ জারি করুক হাইকোর্ট।  মামলাকারীদের আরও বক্তব্য, ইউজিসি যোগ্যতা মান থাকা আংশিক ও চুক্তিভিত্তিক কলেজ শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি করতেই পারে রাজ্য। কিন্তু ইউজিসি যোগ্যতা না থাকা ব্যক্তিদের বেতন বৃদ্ধি-সহ একাধিক সুযোগ সুবিধা দিলে ভবিষ্যতে রাজ্যে কলেজ সার্ভিস কমিশনের মত পরীক্ষাগুলির কোনও প্রয়োজনীয়তা থাকে না। ৯ডিসেম্বর, ২০১১-র পুরোন বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী আংশিক শিক্ষকদের প্রতি সপ্তাহে ২৪ ক্লাস নেওয়ার কথা এবং বছরে ১৪টি ক্যাসুয়াল লিভ। সবনিয়ে বেতন বলা হয়, ২১ হাজার ৪০০ টাকা। নতুন বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী আংশিক শিক্ষকরা সবথেকে বেশি ৩৫ হাজার টাকা বেতন পেতে পারেন। সুপ্রিমকোর্টের জগজিৎ সিং মামলা অনুযায়ী সমকাজে সমবেতন রায় ভূলুন্ঠিত হচ্ছে বলে অভিযোগ মামলাকারীদের।

ARNAB HAZRA

First published: January 25, 2020, 9:50 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर