corona virus btn
corona virus btn
Loading

কবে ফিরবে সুদিন ! যাত্রী নেই ! কোনও রকমে দিন কাটছে কলকাতার ট্যাক্সি চালকদের !

কবে ফিরবে সুদিন ! যাত্রী নেই ! কোনও রকমে দিন কাটছে কলকাতার ট্যাক্সি চালকদের !

সকাল থেকেই হাপিত্যেশ করে বসে থাকে প্রদীপ, সুবোধ, ইমরানরা। কবে আবার রাস্তায় গাড়ি নামানো যাবে?

  • Share this:

#কলকাতা: সকাল থেকেই হাপিত্যেশ করে বসে থাকে প্রদীপ, সুবোধ, ইমরানরা। কবে আবার রাস্তায় গাড়ি নামানো যাবে? এই আশায় সকাল থেকে ফোন করেন অ্যাসোসিয়েশনের অফিসে। খবরের কাগজের পাতায় চোখ রাখেন। কিন্তু সুদিন কবে আসবে? এই প্রশ্নের উত্তর মেলেনা। শহর কলকাতার ভবানীপুর থেকে যাদবপুর। রাস্তায় চোখে পড়বে একের পর এক হলুদ, নীল-সাদা ট্যাক্সি সার দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। বিভিন্ন গলিতে দাঁড়িয়ে আছে নানা সংস্থার অ্যাপ ক্যাব। ধুলো জমেছে গাড়িতে। গাড়িতে পুজো হয়নি অনেকদিন। কারণ একটাই, লকডাউন চলছে। আর এতেই চরম বিপাকে পড়েছেন ট্যাক্সি চালকরা।

ভবানীপুরে থাকতেন প্রদীপ সিং। আদতে বিহারের বাসিন্দা। কলকাতায় হলুদ ট্যাক্সি চালান ১৫ বছর হল। কথা দিয়েছিলেন পরিবারকে ডাকবেন মে মাসে। ঘুরিয়ে দেখাবেন কলকাতা। লকডাউনের জেরে ২৫ দিন হয়ে গেল তার ট্যাক্সি রাস্তায় নামেনি। হাতে টাকা নেই, তাই ভাড়া বাড়িতে আর কতদিন থাকতে পারবেন তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন তিনি। গাড়ির ডিকিতে রাখা আছে হাঁড়ি, কড়া সহ রান্নার সরঞ্জাম। প্রদীপ সিং জানাচ্ছেন, "সকাল হতে খোঁজ করি, কোথায় কোথায় ত্রান পাওয়া যেতে পারে। অধিকাংশ সময় হাসপাতালের সামনে চলে যাই। সেখানে খাবার পেয়ে যাই বা ত্রাণের জিনিষ পেয়ে যাই। গাড়িতেই রান্না করে নিচ্ছি। আশা করছি যদি একটা যাত্রী পেয়ে যাই।" যদিও সেই আশায় জল ঢেলে দিচ্ছে ভাগ্য। এই ২৫ দিনে মেলেনি কোনও যাত্রীই। সকাল থেকে রাত অবধি হতাশ হয়েই ঘরে ফিরতে হয় ট্যাক্সি চালক প্রদীপকে। সাধারণ সময় সকাল সাতটার মধ্যেই গাড়ি নিয়ে রাস্তায় নেমে পড়েন তিনি। বাড়ি ফিরতে ফিরতে রাত ১১টা। দিনে মেরেকেটে রোজগার হতো ১৫০০ টাকা। এখন অবশ্য সেই রোজগার শুন্যে এসে ঠেকেছে। মিলছে না কোনও টাকাই। ফলে দু-মুঠো অন্ন জোগাড়ের আশায় দিন গুজরান করছেন প্রদীপ। এখন কলকাতায় চলাচল করে ৫০০০ হলুদ ট্যাক্সি। নীল-সাদা ট্যাক্সি আছে প্রায় ৩০০০ সংখ্যায়। তারা প্রত্যেকেই সুদিন ফেরার অপেক্ষায়।

ABIR GHOSAL 

First published: April 15, 2020, 10:20 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर