WB Election: 'রাজনীতিটা অভিসার নয়', মদন মিত্রের সঙ্গে পায়েল-শ্রাবন্তীদের দোল খেলা নিয়ে কটাক্ষ তথাগতর

মদন মিত্রের সঙ্গে পায়েল-শ্রাবন্তীদের দোল খেলা নিয়ে কটাক্ষ তথাগতর

দোলের এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল থেকে মদন মিত্র, দেবাংশু ভট্টাচার্য এবং শ্রীতমা। আর অন্যদিকে বিজেপি থেকে ছিলেন তিন তারকা প্রার্থী। পরস্পরের গালে আবির লাগিয়ে দিয়েছেন তাঁরা।

  • Share this:

    #কলকাতা: দোলের দিন রাজনীতি ভুলে পরস্পরকে রঙ মাখিয়েছেন তৃণমূলের মদন মিত্র এবং বিজেপির তিন তারকা প্রার্থী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্য়ায়, পায়েল সরকার ও তনুশ্রী চক্রবর্তী। সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন তাঁদের ছবি ভাইরাল। কিন্তু এই ঘটনা নিয়ে আপত্তি উঠছে বিজেপির অন্দরেই। বিজেপি নেতা তথাগত রায় এবার নিজের দলেরই এই তিন প্রার্থীকে সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনা করলেন। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতা অভিসার এর লাইন উদ্ধৃত করে তিন নায়িকা তথা বিজেপি প্রার্থীকে কটাক্ষ করলেন তিনি।

    দোলের এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল থেকে মদন মিত্র, দেবাংশু ভট্টাচার্য এবং শ্রীতমা। আর অন্যদিকে বিজেপি থেকে ছিলেন তিন তারকা প্রার্থী। পরস্পরের গালে আবির লাগিয়ে দিয়েছেন তাঁরা। সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন দৃশ্যও ভাইরাল হয়েছে যেখানে দেখা যাচ্ছে মদন মিত্র ঢাক বাজাচ্ছেন ও তিন তারকা প্রার্থী নাচছেন। এমনকি তৃণমূলের খেলা হবে গানেও এদিন নেচেছেন পায়েল, তনুশ্রী, ও শ্রাবন্তী। আর এতেই চটেছেন গেরুয়া শিবিরের কর্মী সমর্থকরা।

    “নগরীর নটী চলে অভিসারে যৌবনমদে মত্তা”! এই নটীদের এখনো এই বোধ হয়নি যে রাজনীতিটা অভিসার নয়। শেষপর্যন্ত বাসবদত্তার অবস্থা না হলেই ভালো। Posted by Tathagata Roy on Tuesday, 30 March 2021

    তথাগত রায় মদন মিত্রর সঙ্গে তিন তারকা প্রার্থীর একটি ছবি শেয়ার করে লিখেছেন, “নগরীর নটী চলে অভিসারে যৌবনমদে মত্তা!এই নটীদের এখনো এই বোধ হয়নি যে রাজনীতিটা অভিসার নয়। শেষপর্যন্ত বাসবদত্তার অবস্থা না হলেই ভালো।"  মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়ে এই টুইট।

    এছাড়াও প্রশ্ন উঠছে, বাংলায় এখন নির্বাচন চলছে। বিজেপি শিবিরের দাবি, এই ভোটযুদ্ধে ১৪৪ জন বিজেপি কর্মী প্রাণ হারিয়েছেন। সেই সময়ে কী ভাবে বিজেপির টিকিট প্রাপ্ত তারকা প্রার্থীরা এমন কাজ করতে পারেন।

    প্রশ্ন তুলেছেন অভিনেত্রী তথা বিজেপি কর্মী রূপাঞ্জনা মিত্রও। এই ঘটনা এভাবে নিন্দিত হওয়ায় সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিও করে ক্ষমা চেয়েছেন তারকা প্রার্থীরা। পায়েল সরকার বলেন, গতকাল দোল উৎসবের সময় একটা ছবি নিয়ে অনেকে আমার উপর হয়তো মনোক্ষুন্ন হয়েছেন। গত ৭০ বছর ধরে পশ্চিমবাংলাতে চলা রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বলি হয়েছেন আমার অসংখ্য বাংলার ভাইবোনেরা। এখানে বিরোধী দলকে তাঁদের মতপ্রকাশ করতে দেওয়া হয় না। বিজেপি করার অপরাধে খুন হয়েছেন ১৪০ এর উপর দলীয় কর্মী। ৭০ বছর ধরে চলা এই রাজনৈতিক হিংসার অবসানের জন্যে বিজেপির সংগ্রাম চলছে। ১৪০ জন শহীদের রক্তের শপথ নিয়ে বলছি তোমাদের রক্ত আমরা বৃথা যেতে দেব না।

    অন্যদিকে শ্রাবন্তীও ফেসবুকে ভিডিওর মাধ্যমে ক্ষমা চান। অভিনয় জগত ও রাজনীতির স্বতীর্থদের হয়ে ক্ষমা চান বরানগরের বিজেপি প্রার্থী পার্ণো মিত্রও। মনোনয়ন পত্র জমা দিয়ে তিনি বলেছেন, "আমি ওদের হয়ে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। ওরা রাজনীতির ময়দানে নতুন, তাই ভুল করে ফেলেছে। আমি ২০১৯ সাল থেকে বিজেপি করছি। এই বিষয়গুলো জানি।"

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published: