এবার গোটা জঙ্গলমহলই উঠে আসছে ভবানীপুরে!

এবার গোটা জঙ্গলমহলই উঠে আসছে ভবানীপুরে!
জঙ্গলমহলের সংস্কৃতি ফুটে উঠবে স্বাধীন সংঘে ৷ নিজস্ব চিত্র ৷

অনুপ্রেরণা কবি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাঁওতালি কবিতা। সাঁওতালদের জয়ের ছবি এবার ফুটিয়ে তুলতে চলেছে দক্ষিণ কলকাতার ভবানীপুরের স্বাধীন সংঘ।

  • Share this:

#কলকাতা: নগরজীবন তাঁদের বাস অনেক দূরে। তবুও অনুপ্রেরণা তিনিই। তাঁদের লড়াইকে কুর্নিশ করে এ দেশের স্বাধীনতা। আর কবির কলমে প্রতিফলিত হয় তাঁদের জীবন সংগ্রাম। সত্তরতম বছরে ভবানীপুর স্বাধীন সংঘের থিম জয় জিৎকৌর দেবন মেনা। অনুপ্রেরণা কবি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাঁওতালি কবিতা। সাঁওতালদের জয়ের ছবি এবার ফুটিয়ে তুলতে চলেছে দক্ষিণ কলকাতার ভবানীপুরের স্বাধীন সংঘ। কেউ বলতে পারেন পুজোয় আবার রাজনীতি কেন? কিন্তু কবিতা কেন সেটা তো বলতে পারবেন না। কবি রাজনীতির। কবিতাও তাহলে রাজনীতির হবে কোথায় ঠিক হল?

ইতিহাস বলে, পরাধীন দেশে ইংরেজরা যাঁদের কাছে সবচেয়ে বেশি বেগ পেয়েছিল, তাঁরা হলেন সাঁওতাল। সরল-আটপৌরে মানুষের সারল্যকে শোষণ করতে গিয়ে তির-ধনুকের আক্রমনের মুখে পড়তে হয়েছিল কোম্পানির সাহেবেদের। তারপরেও স্বাধীনতার লড়াইয়ে সিধু-কানহু রয়ে গিয়েছেন ইতিহাসের গহ্বরে। তাঁদের সরল আদিম, নগরজীবনে সাঁওতাল সম্পর্কে ধারণার তেমন কোনও পরিবর্তনও হয়নি। সাওতালি ভাষা অলচিকির স্বীকৃতি এসেছিল আগেই। এবার তাঁদের নিয়েই কবিতা মুখ্যমন্ত্রীর। রাজ্যে পালাবদলের পর পিছিয়ে পড়া এই মানুষগুলিকে মূলস্রোতে ফিরিয়ে আনার কাজে গতি এনেছেন। জঙ্গলমহলকে জুড়েছেন আধুনিক নগরজীবনের সঙ্গে। অলচিকি ভাষায় লেখা তাঁর কবিতা জয় জিৎকৌর দেবন মেনা। সেই কবিতাই অনুপ্রেরণা দিয়েছে সত্তর বছরের স্বাধীন সংঘের পুজোকে।

কখনও নিজেই মডেল। কখনও সবুজের অভিযান। এবার মুখ্যমন্ত্রীর কবিতা। চমক দিতে ভালবাসেন উদ্যোক্তা অসীম বসু। নিজেও কাউন্সিলর এখন শাসক দলের। যদিও নির্বাচিত হয়েছিলেন অন্য প্রতীকে। সেখানেও চমক ছিল। ভবানিপুরের এই পুরানো ক্লাবের মূল উদ্যোক্তা তিনিই। জয় জিতকৌর দেবন মনা। এখন তাঁর অনুপ্রেরণা।

শিল্পী সুব্রত দে’র ভাবনায় মণ্ডপের চারদিকে সাঁওতাল জীবনের সালতামামি। মা এখানে ছিমছাপ। হোগলা পাতা, কাপড়, নারকেল গাছের বাকোল আর সুপারির খোলের সংমিশ্রণে তৈরি এই মণ্ডপে পড়তে পড়তে জঙ্গলমহলের গন্ধ।

First published: 04:07:16 PM Oct 08, 2018
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर