• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • SUVENDU ADHIKARI WARNS MUKUL ROY TO RESIGN AS MLA BY TUESDAY DMG

Suvendu Adhikari warns Mukul Roy: মঙ্গলবারের মধ্যে বিধায়ক পদ না ছাড়লে পদক্ষেপ, মুকুলকে হুঁশিয়ারি শুভেন্দুর

মুকুলকে হুঁশিয়ারি শুভেন্দুর৷

শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari) মুকুল রায়ের (Mukul Roy) বিরুদ্ধে দলত্যাগ বিরোধী আইন কার্যকর করার দাবি জানানোয় তাঁকে পাল্টা কটাক্ষ করেছে তৃণমূলও৷

  • Share this:

    #কলকাতা: মুকুল রায় মঙ্গলবারের মধ্যে বিধায়ক পদ না ছাড়লে বিধানসভার অধ্যক্ষের কাছে তাঁর বিধায়ক পদ খারিজের আবেদন জানাবে বিজেপি৷ মুকুলকে কার্যত সময় বেঁধে দিয়ে হুঁশিয়ারি দিয়ে রাখলেন শুভেন্দু অধিকারী৷ মুকুলের বিধায়ক পদ খারিজ করার জন্য প্রয়োজনে আদালতে যাওয়ার হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন বিরোধী দলনেতা৷

    এ দিন দলীয় বিধায়কদের নিয়ে রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের সঙ্গে দেখা করেন শুভেন্দু অধিকারী৷ মুকুল রায় বিজেপি ছাড়ার পর গেরুয়া শিবিরে ভাঙনের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে৷ কিন্তু বিজেপি বিধায়করা ঐক্যবদ্ধ আছেন তা বোঝাতেই মূলত এ দিন রাজভবন যাত্রা শুভেন্দুর৷ পাশাপাশি নির্বাচন পরবর্তী সময়ে রাজ্যে রাজনৈতিক হিংসার ঘটনা নিয়েও রাজ্যপালের কাছে অভিযোগ জানান তিনি৷ রাজ্যে দলত্যাগ বিরোধী আইন কার্যকর করার জন্যও রাজ্যপালের কাছে দরবার করেন বিরোধী দলনেতা৷

    রাজভবন থেকে বেরিয়ে শুভেন্দু মুকুলের নাম না নিয়েই বলেন, 'কৃষ্ণনগর উত্তরের বিধায়ক দলত্যাগ করেছেন৷ আশা করি তিনি কালকের মধ্যে পদত্যাগ করবেন৷ তা না হলে বুধবার আমরা তাঁর বিরুদ্ধে দলত্যাগ বিরোধী আইন কার্যকর করার জন্য বিধানসভার অধ্যক্ষের কাছে আবেদন জানাব৷' এ দিন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ও অভিযোগ করেন গত দশ বছরে রাজ্যে দলত্যাগ বিরোধী আইন কার্যকর করা হয়নি৷ তিনি বলেন, 'পশ্চিমবঙ্গে দলত্যাগ বিরোধী আইন একশো শতাংশ লাগু আছে৷ অথচ গত দশ বছরে তা কার্যকর করা হয়নি৷' যদিও তৃণমূল সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায়ের পাল্টা দাবি, দলত্যাগ বিরোধী আইন কার্যকর করার প্রক্রিয়ায় রাজ্যপালের কোনও ভূমিকাই নেই৷

    শুভেন্দু অধিকারী মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে দলত্যাগ বিরোধী আইন কার্যকর করার দাবি জানানোয় তাঁকে পাল্টা কটাক্ষ করেছে তৃণমূলও৷ বিরোধী দলনেতার বাড়ি থেকেই এই প্রক্রিয়া শুরু হওয়া উচিত বলে এ দিন মন্তব্য করেছেন তৃণমূল নেতা তাপস রায়৷ কারণ শুভেন্দু অধিকারীর বাবা এবং কাঁথির সাংসদ শিশির অধিকারীর বিরুদ্ধে দলত্যাগ বিরোধী আইন কার্যকর করে সাংসদ পদ খারিজের দাবি জানিয়ে এ দিনও লোকসভার অধ্যক্ষকে ফোন করেছেন সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়৷ এ প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে শুভেন্দু বলেন, 'সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় ওম বিড়লাকে ফোন করেছিলেন, যা বলার ওম বিড়লাই বলবেন৷'

    এ দিন মোট শুভেন্দু সহ মোট ৫১ জন বিধায়ক রাজ ভবনে গিয়েছিলেন৷ ফলে প্রশ্ন উঠছে, বিজেপি-র বাকি বিধায়করা কোথায় গেলেন? কারণ মুকুলকে বাদ দিলেও রাজ্যে বিজেপি-র বিধায়ক সংখ্যা ৭৪৷ শুভেন্দুর অবশ্য দাবি, রাজ্যপাল ৩০ জনকে নিয়ে আসারই অনুমতি দিয়েছিলেন৷ অতি উৎসাহে আরও বেশি সংখ্যক বিধায়ক চলে এসেছেন বলেও দাবি করেন বিরোধী দলনেতার৷ বিধানসভার অধিবেশন শুরু হলে সব বিধায়কদের নিয়ে তিনি ফের রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করতে আসবেন৷ তৃণমূলের অবশ্য পাল্টা কটাক্ষ, কেন বাকি বিজেপি বিধায়করা রাজ ভবনে গেলেন না তা অন্তর্তদন্ত করে দেখুক বিজেপি৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: