• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • 'একুশ বছর তৃণমূল করেছি, ভেবেই লজ্জা লাগছে', ফের সোচ্চার শুভেন্দু

'একুশ বছর তৃণমূল করেছি, ভেবেই লজ্জা লাগছে', ফের সোচ্চার শুভেন্দু

তাঁর প্রতি নন্দীগ্রামের মানুষের সমর্থন দেকে স্বভাবতই খুশি শুভেন্দু৷ কারণ তৃণমূল নেতারা চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দাবি করেছিলেন, নন্দীগ্রামে জনসমর্থন হারিয়েছেন শুভেন্দু৷ তার পাল্টা শুভেন্দু এ দিন সৌগত রায় সহ তৃণমূল নেতাদের কটাক্ষ করে বলেছেন, 'রাজনৈতিক ভাবে এঁরা মানসিক ভারসাম্য হারিয়েছেন৷'

তাঁর প্রতি নন্দীগ্রামের মানুষের সমর্থন দেকে স্বভাবতই খুশি শুভেন্দু৷ কারণ তৃণমূল নেতারা চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দাবি করেছিলেন, নন্দীগ্রামে জনসমর্থন হারিয়েছেন শুভেন্দু৷ তার পাল্টা শুভেন্দু এ দিন সৌগত রায় সহ তৃণমূল নেতাদের কটাক্ষ করে বলেছেন, 'রাজনৈতিক ভাবে এঁরা মানসিক ভারসাম্য হারিয়েছেন৷'

  • Share this:

    #কলকাতা: একুশ বছর ধরে তৃণমূল কংগ্রেস করেছেন, ভেবেই তাঁর লজ্জা লাগছে৷ এ দিন কলকাতায় বিজেপি অফিসের সামনে সাংসদ সুনীল কুমার মণ্ডলের গাড়ি ঘিরে তৃণমূলের বিক্ষোভ দেখানোর ঘটনায় এমনই প্রতিক্রিয়া দিলেন শুভেন্দু অধিকারী৷ বিজেপি নেতার আরও বলেন, সিপিএমের ছেঁড়া চটি পরেই একুশ বছর কাটিয়ে দিয়েছে তৃণমূল৷

    এ দিনই হেস্টিংস-এ বিজেপি-তে যোগদানকারী নতুন নেতাদের নিয়ে কলকাতা হেস্টিংস-এর বিজেপি অফিসে বৈঠক ডাকা হয়েছিল৷ বিজেপি-তে যোগদানকারী নেতাদের সংবর্ধনারও ব্যবস্থা করা হয়৷ কিন্তু এ দিন হেস্টিংস-এ বিজেপি অফিসের অদূরেই পথসভার জন্য মঞ্চ তৈরি করে তৃণমূল৷ সেখানে জড়ো হন তৃণমূল কর্মী- সমর্থকরা৷ এ দিন সকালে বৈঠকে যোগ দেওয়ার জন্য সাংসদ সুনীল মণ্ডল হেস্টিংস-এ পৌঁছন৷ তাঁর গাড়ি বিজেপি অফিসের কাছে যেতেই পথ আটকান তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা৷ রাস্তায় শুয়ে পড়ে সাংসদের গাড়ি আটকানোর চেষ্টা করা হয়৷ এই ঘটনা দেখে এগিয়ে আসেন বিজেপি কর্মীরা৷ দু' পক্ষে শুরু হয় হাতাহাতি৷ কোনওক্রমে পরিস্থিতি সামাল দেয় পুলিশ৷ দু' পক্ষকে সামলাতে রীতিমতো হিমশিম খায় পুলিশবাহিনী৷

     শনিবার বিজেপি-র সাংগঠনিক সভায় শুভেন্দু অধিকারী৷ 

    এই ঘটনা প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বিজেপি অফিসে শুভেন্দু অধিকারী পরে বলেন, 'আজকে আমাদের জন্য এখানে সংবর্ধনার ব্যবস্থা করা হয়েছে৷ কিন্তু তার আগে যে আচরণটা ঘটল, তাতে আমার ভাবতে লজ্জা লাগছে যে একুশ বছর ধরে আমি তৃণমূল দলটা করেছি৷ সত্যিই লজ্জা লাগছে৷ এই কালচার থেকে বাংলাকে বের করে আনতে হবে৷ ২১ বছর ধরে বাংলায় ফর দ্য পার্টি, অফ দ্য পার্টি, বাই দ্য পার্টি ব্যবস্থা চলছে৷ ৩৪ বছর ধরে সিপিএম আমলেও তাই হয়েছে৷ সিপিএম-এর ছেঁড়া চটি পরেই আমরা একুশ বছর কাটিয়ে দিলাম৷ একমাত্র বিজেপি-ই পারে ফর দ্য পিপল, অফ দ্য পিপল, বাই দ্য পিপল ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত করতে৷'

    এ দিনও নিজের পুরোন দলকে কোম্পানি বলে কটাক্ষ করেছেন শুভেন্দু৷ দাবি করেছেন, যে কোনও মূল্যে বাংলাকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির হাতে তুলে দিতে হবে৷ যাতে কলকাতা এবং দিল্লিতে একই সরকার থাকে৷ সোনার বাংলা গড়ার কথাও শোনা যায় বিজেপি নেতার মুখে৷ যতদিন তৃণমূলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেননি, সরাসরি পুরোন দলকে আক্রমণ করেননি শুভেন্দু অধিকারী৷ কিন্তু বিজেপি-তে যোগদানের পর থেকেই রাখঢাক না করেই তৃণমূলকে তীব্র আক্রমণ শানিয়েছেন শুভেন্দু৷ নিশানা করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও৷ এ দিনও সেই ধারাই অব্যাহত রাখলেন তিনি৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: