বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের হাতে ১০০ কোটি টাকা তুলে দিল রাজ্য সরকার

বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের হাতে ১০০ কোটি টাকা তুলে দিল রাজ্য সরকার

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে রাজ্য সরকার আড়াই লক্ষ ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের হাতে মোট ১০০ কোটি টাকা তুলে দিল।

  • Share this:

ABIR GHOSHAL #কলকাতা: বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের হাতে রাজ্য সরকার টাকা তুলে দিল। প্রায় ১০০ কোটি টাকা এখনও অবধি দেওয়া হয়েছে বলে কৃষি দফতর সূত্রে খবর। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের দাপটে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল বাংলা। সেই সব ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর প্রয়োজন মনে করেনি কেন্দ্রীয় সরকার৷ এমনটাই অভিযোগ করেছে রাজ্য। কেন্দ্র সাহায্য না করাতে রাজ্যের মানুষের পাশে দাঁড়ালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে রাজ্য সরকার আড়াই লক্ষ ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের হাতে মোট ১০০ কোটি টাকা তুলে দিল। সরকারের হিসেব অনুযায়ী, বুলবুল ঘূর্ণিঝড়ে ১৫ লক্ষ হেক্টর জমিতে চাষের ক্ষতি হয়েছে। মূলত ছ’টি জেলা দুই ২৪ পরগনা, দুই মেদিনীপুর, হাওড়া, হুগলিতে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের আগে আর্থিক সাহায্য করা হবে বলে জানা গিয়েছে কারণ সেখানে ক্ষতির পরিমাণ বেশি। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তিনি ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের জন্য ১৩০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছেন।

সূত্রের খবর অনুযায়ী, মোট ১১ লক্ষ ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক আবেদন করেছেন, সেই সব আবেদন খতিয়ে দেখছে কৃষি দফতর। ইতিমধ্যে পাঁচ লক্ষ কৃষকের নামে টাকা পাঠানোর কাগজপত্র তৈরি হয়ে গিয়েছে। তার মধ্যে আড়াই লক্ষ কৃষকের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সরাসরি টাকা পৌঁছে গিয়েছে। তবে কারও হাতে কোনও চেক দেওয়া হচ্ছে না। সরাসরি ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টে টাকা চলে যাচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে প্রতি হেক্টর জমির জন্য ১৩ হাজার ৫০০ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। ছোট জমির জন্য ন্যূনতম এক হাজার টাকা দেওয়া হচ্ছে।

নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, যতদিন সব ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক টাকা না পাচ্ছেন, ততদিন ক্যাম্প চলবে এবং সবাইকে টাকা দেওয়া হবে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে কৃষকদের চেক পাওয়ার ক্ষেত্রে জমির বিষয়টি সরলীকরণ করা হয়েছে। যদি কেউ লিজে চাষ করেন, তাহলে তিনি পাবেন কি না, সেই কাগজপত্র খতিয়ে দেখতে তিনজনের একটি কমিটি করা হয়েছে। সেই কমিটিতে রয়েছেন বিডিও, পঞ্চায়েত এবং বিএলআরও’র প্রতিনিধিরা। কৃষকদের টাকা পেতে যাতে কোনও অসুবিধা না হয় তার জন্য ইতিমধ্যেই বিভিন্ন জেলায় ক্যাম্প চলছে। প্রতিদিন কৃষি দফতর, খাদ্য দফতরের কর্তারা যোগাযোগ রাখছেন জেলা প্রশাসনের কর্তাদের সাথে।

First published: December 16, 2019, 2:39 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर