• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • STATE GOVERMENT SHOULD BE THE NODAL AGENCY IN CASE OF MAKING AADHAR CARD CLAIMS WESTBENGAL GOVERNMENT

আধার কার্ড তৈরির কাজে রাজ‍্য সরকারকেই করা হোক নোডাল এজেন্সি! দাবি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের

Representational image

আধার কার্ড তৈরির কাজে রাজ‍্য সরকারকেই করা হোক নোডাল এজেন্সি! দাবি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের

  • Share this:

    #কলকাতা:আধার কার্ড তৈরির কাজে রাজ‍্য সরকারকে করা হোক নোডাল এজেন্সি। তাদের হাতেই ছেড়ে দেওয়া হোক আধার কার্ড তৈরির দায়িত্ব। এবার এই দাবিই তুলছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। যার একেবারেই বিপক্ষে রাজ‍্য বিজেপি নেতৃত্ব।

    রান্নার গ‍্যাসে আধার, মোবাইল ফোনে আধার, ব‍্যাঙ্কের কাজে আধার, বিমা করাতে আধার। সবেতেই এখন আধার দরকার। কিন্তু, এই আধারকে ঘিরেই বিতর্কের শেষ নেই। বার বার উঠেছে তথ‍্য ফাঁস এবং ব‍্যক্তি পরিসরে হস্তক্ষেপের অভিযোগ

    ২৪ এপ্রিল মুখ‍্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, ''আধার সতিই আঁধার। জনগণের ডেটা সুরক্ষিত নয়। আমি ঠিক করেছি লিঙ্ক করব না।''

    পশ্চিমবঙ্গ সরকার চায়, ইউআইডিএআই-এর মতো কোনও সংস্থার হাতে না দিয়ে আধার কার্ড তৈরির দায়িত্ব তাদেরই দেওয়া হোক। রাজ‍্য সরকারকেই করা হোক নোডাল এজেন্সি

    আধার-তথ‍্য কতটা সুরক্ষিত তা নিয়ে শুরু থেকেই বিতর্ক। গত বছর, সংবাদসংস্থা পিটিআইয়ে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, আধার কর্তৃপক্ষও স্বীকার করে নেয়, তথ‍্য ফাঁস হয়েছে সরকারি ওয়েবসাইটেই। কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারগুলির প্রায় ২১০টি ওয়েবসাইটে আধার প্রাপকদের নাম ঠিকানা দেওয়া হয়েছিল। পরে সে তথ্য সরিয়ে নেওয়া হয়।তথ্যের অধিকার আইনে এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানায় আধার প্রস্ততকারী সংস্থা - ‘ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অথরিটি অব ইন্ডিয়া’ বা UIDAI ।

    এর জেরে অনেকের মনেই আধার-তথ্য ফাঁসের আশঙ্কা আরও দৃঢ় হয়। এর পাশাপাশি ব্যক্তিপরিসরে হস্তক্ষেপের অভিযোগ তো ছিলই। এরকমই একগুচ্ছ অভিযোগের প্রেক্ষিতে এখনও আধার-মামলা চলছে সুপ্রিম কোর্টে। এই প্রেক্ষাপটে এবার পশ্চিমবঙ্গ সরকারের দাবি, তাদের হাতেই তুলে দেওয়া হোক আধার তৈরির দায়িত্ব। এতে সিঁদুরে মেঘ দেখছে রাজ‍্য বিজেপি নেতৃত্ব।

    সামনের বছর লোকসভা নির্বাচন। তার আগে কি এ বার আধার নিয়ে নতুন দাবিতে মোদি সরকারের বিরুদ্ধে সুর চড়াবে তৃণমূল? সেদিকেই এখন নজর।

    আরও পড়ুন-পরীক্ষায় বসতে গেলে ৭৫% উপস্থিতি বাধ্যতামূলক, জয়পুরিয়া কলেজ প্রসঙ্গে কড়া পার্থ

    First published: