• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • প্রত্যাশা পূরণে বাজেটে কৃষি ও গ্রামোন্নয়নে বিপুল বরাদ্দ

প্রত্যাশা পূরণে বাজেটে কৃষি ও গ্রামোন্নয়নে বিপুল বরাদ্দ

৮ কোটি টাকার ঘাটতি বাজেট পেশ করলেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। বাম আমলের ঋণের কথা মনে করিয়ে অর্থমন্ত্রী বললেন, টাকার অভাবে উন্নয়নের কাজ ব্যাহত হবে না।

৮ কোটি টাকার ঘাটতি বাজেট পেশ করলেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। বাম আমলের ঋণের কথা মনে করিয়ে অর্থমন্ত্রী বললেন, টাকার অভাবে উন্নয়নের কাজ ব্যাহত হবে না।

৮ কোটি টাকার ঘাটতি বাজেট পেশ করলেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। বাম আমলের ঋণের কথা মনে করিয়ে অর্থমন্ত্রী বললেন, টাকার অভাবে উন্নয়নের কাজ ব্যাহত হবে না।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: ৮ কোটি টাকার ঘাটতি বাজেট পেশ করলেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। বাম আমলের ঋণের কথা মনে করিয়ে অর্থমন্ত্রী বললেন, টাকার অভাবে উন্নয়নের কাজ ব্যাহত হবে না। তাঁর প্রস্তাবিত বাজেটে জোর দেওয়া হয়েছে  কৃষি, গ্রামোন্নয়ন ও সমাজকল্যাণের খাতে। বিশেষ নজর দেওয়া হয়েছে  ক্ষুদ্রশিল্পেও।

    গ্রামের দিকে নজর দিয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার । সাধারণ মানুষের সমর্থন পেয়ে দ্বিতীয়বার সরকার গড়ার পর, সরকারের কাছে  প্রত্যাশা দ্বিগুণ ৷ সেই প্রত্যাশা মেটাতেই গ্রামোন্নয়ন থেকে কৃষি, বাজেটে বিপুল বরাদ্দ রাজ্য সরকারের।

    তবে ভারী শিল্পের জন্য কোনও দিশা নেই অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রের ঘোষণায়। আয় না বাড়িয়ে কীভাবে ব্যয় বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিলেন অর্থমন্ত্রী, সেই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।

    গ্রামীণ জনতার আশীর্বাদে বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল জয় পেয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর মুখ্যমন্ত্রিত্বের দ্বিতীয় দফার প্রথম বাজেটে তাই গ্রামের উপর সবচেয়ে বেশি জোর দেওয়া হল।

    গ্রামোন্নয়নে বিপুল বরাদ্দ বৃদ্ধি করল রাজ্যে ৷ একবারে প্রায় ২ হাজার কোটি টাকার বরাদ্দ বৃদ্ধি করা হল ৷ পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়নে বরাদ্দ হল ১০,৫৫২ কোটি টাকা ৷

    কেন্দ্রীয় বাজেটের মতো গ্রামীণ অর্থনীতির কথা মাথায় রেখে কৃষিজীবীদের উপর উপুড়হস্ত অর্থমন্ত্রী। কৃষিতে বরাদ্দ রেখেছেন  ১,৭২৮ কোটি টাকা ৷ কৃষি বিপণনে বরাদ্দ ২৮৫ কোটি ৩৫ লক্ষ টাকা ৷

    একইভাবে ক্ষুদ্রশিল্পের উপর জোর দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। অতি ক্ষুদ্র, মাঝারি ও বস্ত্র শিল্পে বরাদ্দের পরিমাণ ৭১৬.২৭ কোটি টাকা ৷ শিল্প উন্নয়ন সহায়তা প্রকল্পের মেয়াদ আরও তিন বছর বাড়ানোর কথা ঘোষণা করলেন অর্থমন্ত্রী ৷

    বাজেটে গ্রাম ও ক্ষুদ্র শিল্পের জন্য খুশির বার্তা থাকলেও বড় শিল্প নিয়ে হতাশা। ভারী শিল্প নিয়ে ঘোষণা নেই অমিত মিত্রের বাজেটে। প্রশ্ন উঠছে, চলতি অর্থবর্ষে ২২ লক্ষ কর্মসংস্থান তৈরির ঘোষণা কীভাবে বাস্তবায়িত হবে।

    রাজ্য বাজেট নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া বণিকসভার সদস্যদের। কেউ ভারিশিল্প গুরুত্ব না পাওয়ায় হতাশ। কেউ আবার ফুল মার্কস দিচ্ছেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রকে।

    লক্ষ্য গ্রাম, কৃষির উন্নয়ন এবং বেকারদের কর্মসংস্থান। বিপুল ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে আয় বাড়ানোই ছিল স্বাভাবিক। সে পথে না হাঁটায় বিশেষজ্ঞরা এই বাজেটের সমালোচনা করেছেন  ।

    রাজ্য বাজেটকে তীব্র কটাক্ষ করেছেন বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নানের। তিনি বলেন, কর্মসংস্থান নিয়ে কোনও দিশা দেখাতে পারেননি অর্থমন্ত্রী। ভারী শিল্প নিয়ে কোনও প্রস্তাব রাজ্য বাজেটে না রাখায় সমালোচনা করেন মান্নান।

    বাজেটের প্রতিক্রিয়া সিপিএম বিধায়ক সুজন চক্রবর্তী জানান, রাজ্য বাজেট মানুষের আশাপূরণে ব্যর্থ। এই বাজেট থেকে সাধারণ মানুষের কোনও লাভ হবে না।

    First published: