• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • SSKM DOCTORS SAVED THE GIRLS LIFE BY SURGICALLY REMOVING THE IRON ROD PB

বুক ফুঁড়ে ঢুকে গিয়েছিল লোহার রড ! তরুণীর প্রাণ বাঁচালেন SSKM-এর চিকিৎসকরা

উত্তর ২৪ পরগনার সন্দেশখালি ব্লকের ধামাখালি এলাকার বাসিন্দা তুহিনা পারভিন, ২১ বছর বয়স।

উত্তর ২৪ পরগনার সন্দেশখালি ব্লকের ধামাখালি এলাকার বাসিন্দা তুহিনা পারভিন, ২১ বছর বয়স।

  • Share this:

#কলকাতা: অসম্ভবের পথে হেঁটেই এদের কিছুটা হয়ত আনন্দ। এছাড়া কিই বলা যেতে পারে! রবিবার এস এস কে এম হাসপাতালের ট্রমা কেয়ার সেন্টারে দুপুরের দিকে এক ২১ বছরের তরুণীকে নিয়ে আসা হয় গুরুতর আহত অবস্থায়। তখন তার যা অবস্থা,সেই অবস্থায় কেউই ভাবতে পারত না ,ওই তরুণীকে আবার জীবন ফিরিয়ে দেওয়া যাবে। আর রীতিমতো চ্যালেঞ্জ নিয়ে সেই অসম্ভবকে সম্ভব করলেন এস এস কে এম হাসপাতালের কার্ডিওথোরাসিক বিভাগের চিকিৎসকরা।

উত্তর ২৪ পরগনার সন্দেশখালি ব্লকের ধামাখালি এলাকার বাসিন্দা তুহিনা পারভিন, ২১ বছর বয়স।  গত রবিবার অটোর সামনের দিকে বসে যাওয়ার সময় দুর্ঘটনায় অটোর সামনের দিকে যে লোহার রড রাখা থাকে, তা তুহিনার ডান দিকের বুক ফুঁড়ে  বাঁ-দিকের বুক ফুটো করে শিরদাঁড়া ভেঙে দেয়। সেই অবস্থায় তাঁকে প্রথমে স্থানীয় স্বাস্থ্যকেন্দ্রে এবং তারপরে দ্রুত এস এস কে এম হাসপাতালের ট্রমা কেয়ার সেন্টারে নিয়ে আসা হয়। সেখানে পরীক্ষা করে চিকিৎসরা দেখেন, রডটি তরুণীর বুক ফুটো করে ফুসফুসের নীচ হয়ে হৃৎপিণ্ডের পিঁছন দিক দিয়ে বাঁ দিকের বুক ফুটো করে দিয়েছে। তবে ফুসফুস এবং হৃৎপিণ্ড ক্ষতিগ্রস্ত না হওয়ায় প্রাণে বেঁচে ছিলেন ওই তরুণী। তবে দুর্ঘটনার প্রভাব এতটাই ছিল যে, শিরদাঁড়া এবং লিভার ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। শিরদাঁড়া ফুটো হয়ে যায়। পেট এবং বুকের মাঝখানের মাংসপেশীও মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তুহিনা সোজা হয়ে শুতেই পারছিলেন না। কারণ তার বুকে তখনও 3 ফিটের ওই লোহার রড গেঁথে ছিল। ফলে তাঁকে উপুড় করে শুইয়েই অস্ত্রোপচার করার সিদ্ধান্ত নেন চিকিৎসকেরা।

হাসপাতালের কার্ডিওথোরাসিক সার্জারি বিভাগের চিকিৎসক শুভেন্দু শেখর মহাপাত্রের নেতৃত্বে ১৪  জনের একটা চিকিৎসক দল গঠন করা হয়। প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়ায় প্রথমেই তার অস্ত্রোপচার করা সম্ভব হয়নি। আগে রক্ত দিয়ে তাকে কিছুটা স্থিতিশীল করে ৫ ঘণ্টা ধরে চুড়ান্ত জটিল অপারেশন করে লোহার রড বের করে তুহিনাকে বিপন্মুক্ত করে চিকিৎসকরা। তবে তুহিনার শরীরের নিচের অংশে এখনও কোনো সাড় নেই। আগামীদিনে তাকে অত্যন্ত সতর্কভাবে জীবনযাপন করতে হবে বলে জানিয়েছে চিকিৎসকরা।

 ABHIJIT CHANDA

Published by:Piya Banerjee
First published: