সময়ের সঙ্গে হারিয়ে যাওয়া বহু বাঙালি পদ ফিরিয়ে আনল আহেলী

সময়ের সঙ্গে হারিয়ে যাওয়া বহু বাঙালি পদ ফিরিয়ে আনল আহেলী
  • Share this:

#কলকাতা: মাঝিদের বিরিয়ানির নাম শুনেছেন? বা খৈয়ের বড়া? এমন নানাবিধ পদ রয়েছে এপার ও ওপার বাংলার৷ বাঙালি খাবার মানেই তো শুধু পাঠার মাংসের ঝোল বা সর্ষের ঝাল নয়৷ বাঙালি খানার রয়েছে বিপুল সম্ভার৷ বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণের মতো বাঙালি পদ রয়েছে অগুণতি৷ সময়ের সঙ্গে হারিয়ে যাওয়া এমনই বহু পদ ফিরিয়ে আনছে আহেলী৷ পিয়ারলেস ইনের এই বাঙালি রেস্তোরাঁয় এপার বাংলা ও ওপার বাংলার হরেক রকম পদের আয়োজন থাকছে মার্চ মাস জুড়ে৷

বাঙালি মানেই ভোজন রসিক৷ ঘরোয়া আহারেও এক পদে মুখে রোচে না কোনও বাঙালির৷ আর ভোজন বিলাসে তো কথাই নেই৷ চাই হরেক রকমের খানা, স্বাদে-গন্ধে যা হতে হবে অতুলনীয়৷ ২৫ বছর ধরে বাঙালি খাবারের ঐতিহ্য বয়ে চলা আহেলী এবার নিয়ে এল জিভে জল আনা এমনই নানা বাঙালি পদ, যা জুড়ে রয়েছে বাংলার ইতিহাস৷

পশ্চিম ও পূর্ব বাংলায় রয়েছে অনেক পদ, যা একান্তই এলাকাভিত্তিক৷ অর্থাৎ মানুষের চাহিদা ও এলাকার উৎপাদনের নিরিখে তৈরি হয়৷ সেইভাবে এসেছে মাঝিদের বিরিয়ানি৷ মূলত উপকূলের গরিব মাঝিরা এই ধরণের খাবার খেতেন৷ মাংসের বদলে ব্যবহার করা হত চিংড়ি মাছ, উপকূল এলাকায় যা বিস্তর পাওয়া যায়৷ নবাবি বিরিয়ানিতে ব্যবহৃত হত অনেক দামি কসমের মশলা যা মাঝিদের ধরা ছোঁয়ার বাইরে৷ সে কারণে তারা নিজেদের মতো করে বানাতেন এমন বিরিয়ানি, যার স্বাদ নাবাবি বিরিয়ানিকে হার না মানলেও যোগ্য টক্কর দিতে পারে৷

এইভাবে বাংলার ইতিহাস তৈরির সঙ্গে সঙ্গে তৈরি হয়েছে বাঙালি পদও! তাই তো প্রতিটি বাঙালি পদের সঙ্গে জড়িয়ে অনেক গল্প যা শোনালেন খাদ্য গবেষক পৃথা সেন৷ তিনিই বললেন যে বাংলা গান, লোকগীতি, ছড়াতেও রয়েছে বাঙালি খানার উল্লেখ৷ অর্থাৎ খাদ্যপ্রিয় বাঙালির সঙ্গে অতোপ্রতভাবে জড়িয়ে তাদের রান্নাবান্না৷ ইতিহাসের বার্তা বহনকারী এই সব পদ একেবারেই ঝা চকচকে নয়৷ বরং মাটির অনেক কাছাকাছি৷ ঘরোয়া সবজি বা সহজ লভ্য মাছ দিয়ে এমন রান্না যে সকলে চেটেপুটে খাবেন তা বলাই বাহুল্য৷

এমন রান্না করতে আহেলীতে ব্যবহার করা হয়েছে ভেষজ উপকরণ৷ চালের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছে মল্লিফুলো বা রাধাতিলক, যার স্বাদ অনেকটাই আলাদা৷ তবে এর খাদ্যগুণ বহু৷ মাসখানেক আহেলীতে চলবে এই খাদ্য উৎসব, যার নাম দেওয়া হয়েছে রসনায় পূর্ব পশ্চিম৷ এখানে পাওয়া যাবে হরেক রকমের বাঙালি কাবাব, চালতে দিয়ে অরহর ডাল, বাঁশের কড়ুল দিয়ে শুক্তো, মোচা ভাজার রস্সা, চিংড়ি মাছের হুসেনি কবাব, ঝিঁনুকের ঝাল তরকারি, রসুন দিয়ে দিশি মুরগির ঝোল৷ এছাড়াও থাকছে প্রচুর পদ৷

First published: March 2, 2020, 7:54 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर