corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা প্রতিরোধে রাজ্যে বিশেষ কমিটি, কী কাজ করবেন তারা? জানুন 

করোনা প্রতিরোধে রাজ্যে বিশেষ কমিটি, কী কাজ করবেন তারা? জানুন 

বৃহস্পতিবার রাজ্যে করোনা মোকাবিলার জন্য স্বাস্থ্য দফতর বিশেষ ডাটা এনালাইসিস সেল গঠন করল। স্বাস্থ্য দফতরের ডেপুটি ডিরেক্টর অসিত বিশ্বাস এর নেতৃত্বে ৯ সদস্যের এই সেল গঠন হল।

  • Share this:

#কলকাতা: গোটা বিশ্ব জুড়ে প্রাণঘাতী নোবেল করোনাভাইরাসের ছায়া তীব্র থেকে আরও তীব্রতর হচ্ছে। বিশ্বে এখন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে প্রায় ১৫ লক্ষ এর কাছাকাছি। আর করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যাও দিনে দিনে বাড়ছে। করোনা পজিটিভ হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা হয়েছে প্রায় ৯০ হাজার। ভারতবর্ষও তার ব্যতিক্রম নয়। এখানে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৬০০০ এবং মৃতের সংখ্যা ১৬৬। পশ্চিমবঙ্গে এখনো পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৫ জনের।রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর বেশ কিছুদিন ধরেই করোনা মোকাবিলায় বহু পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

বৃহস্পতিবার রাজ্যে করোনা মোকাবিলার জন্য স্বাস্থ্য দফতর বিশেষ ডাটা এনালাইসিস সেল গঠন করল। স্বাস্থ্য দফতরের ডেপুটি ডিরেক্টর অসিত বিশ্বাস এর নেতৃত্বে ৯ সদস্যের এই সেল গঠন হল। কোন এলাকায় বেশি আক্রান্ত হচ্ছে, সেই এলাকাকে চিহ্নিত করে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা এবং সেখানে কী কী বিধিনিষেধ আরোপ করা যায়, তা খতিয়ে দেখবে এই বিশেষ সেল। যে এলাকাগুলোতে বিশেষ করে বেশি করোনা আক্রান্তের খবর পাওয়া যাচ্ছে সেখানে করনা পরীক্ষা আরও কত বেশি করে করা যায়,অতিরিক্ত পরীক্ষা বা পরীক্ষা করা যায় কিনা তাও বিশ্লেষণ করবে এই বিশেষ কমিটি।

এই ডাটা অ্যানালাইসিস সেল এ রয়েছেন - এস এস কে এম হাসপাতালের এন্ডক্রিনোলজি বিভাগ বা সুগার বিশেষজ্ঞ ডক্টর সুজয় ঘোষ, বাঙুড় ইনস্টিটিউট অব নিউরো সাইন্স এর নিউরো মেডিসিন এর চিকিৎসক ডক্টর বিমান কান্তি রায়, রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের বিশেষ সচিব তমাল কান্তি ঘোষ, কামারহাটি সাগর দত্ত মেডিকেল কলেজের জন স্বাস্থ্যবিষয়ক চিকিৎসক  দীপ্তকান্তি মুখোপাধ্যায়, পুরুলিয়া দেবেন মাহাতো মেডিকেল কলেজের জনস্বাস্থ্যবিষয়ক চিকিৎসক প্রমিত ঘোষ, এছাড়া স্বাস্থ্য দপ্তরের ৩ জন উচ্চ আধিকারিক এবং স্বাস্থ্য দপ্তরের সহ অধিকর্তা অসিত বিশ্বাস।

এই ডাটা এনালাইসিস সেল প্রতিদিন বৈঠক করবেন। এই সেল কী করবে?

১.প্রতিদিন রাজ্যের সমস্ত প্রান্ত থেকে করোনা আক্রান্ত এবং করোনা আক্রান্ত সন্দেহে ব্যক্তিদের সমস্ত তথ্য সংগ্রহ করবে৷

২. সমস্ত তথ্য পরীক্ষা করে কি ধরনের প্রকৃতি তা বিশ্লেষণ করবে এবং কোন বিশেষ প্রকৃতি আছে কিনা অর্থাৎ আন্ডার কারেন্ট আছে কি না তা দেখবে৷

৩. করোনা ছড়িয়ে পড়ার কতটা সম্ভাবনা রয়েছে তা খতিয়ে দেখবে এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া যায় তার সুপারিশ করবে

৪. করোনা নিয়ে বর্তমান যে  বিশেষ এলাকা গুলি চিহ্নিত করা হয়েছে অর্থাৎ হটস্পট গুলি সেগুলো খতিয়ে দেখবে এবং নতুন কোন এলাকা বা হটস্পট হচ্ছে কিনা তাও নির্ধারণ করবে৷

৫. কোন কোন নির্দিষ্ট পকেট বা এলাকাগুলিতে চিহ্নিত করে সেখানে অতিরিক্ত করোনা পরীক্ষা বা রেনডম অর্থাৎ সন্দেহ হলেই সেই ব্যক্তিদের করোনা পরীক্ষা করার সিদ্ধান্ত নেবে।

Published by: Pooja Basu
First published: April 9, 2020, 4:22 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर