রত্নার সঙ্গে লড়াইয়ের টিকিট না পেয়ে বিজেপি ছাড়লেন অপমানিত শোভন, সঙ্গে বৈশাখী...

রত্নার সঙ্গে লড়াইয়ের টিকিট না পেয়ে বিজেপি ছাড়লেন অপমানিত শোভন, সঙ্গে বৈশাখী...

বিজেপি ছাড়ছেন শোভন- বৈশাখী।

সূত্রের খবর, দিলীপ ঘোষ, অরবিন্দ মেননকে এই সিদ্ধান্তের কথা চিঠি লিখে জানিয়ে দিয়েছেন তাঁরা।

  • Share this:

    #কলকাতা:  নিউজ ১৮ বাংলার খবরেই শিলমোহর। বিজেপির সঙ্গে সব সম্পর্ক ত্যাগ করলেন শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। বেহালা পূর্ব বিধানসভা কেন্দ্রে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের নাম না থাকায় এই সিদ্ধান্ত শোভন-বৈশাখী জুটির। সূত্রের খবর, দিলীপ ঘোষ, শিবপ্রকাশ অরবিন্দ মেননকে এই সিদ্ধান্তের কথা ই-মেলে জানিয়ে দিয়েছেন তাঁরা।

    এ দিন বিজেপির প্রার্থীতালিকা প্রকাশের পরেই দেখা যায় বেহালা পূর্বে রত্না চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে প্রার্থী শোভন চট্টোপাধ্যায় নন, বরং দাঁড় করানো হয়েছে পায়েল সরকারকে। বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় নিউজ১৮ বাংলাকে সঙ্গে সঙ্গেই জানান, অন্য কোনও কেন্দ্র থেকে লড়তেও রাজি নন শোভন। সিদ্ধান্ত জানানোর কথাও বলেন বৈশাখী। সেই সিদ্ধান্ত যে দলত্যাগের তা ইঙ্গিতেই স্পষ্ট ছিল। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই তাঁদের সিদ্ধান্ত স্পষ্ট হয়ে যায়।

    সূত্রের খবর, দলের তরফে প্রস্তাব ছিল শোভন চট্টোপাধ্যায় যাতে বেহালা পশ্চিমে দাঁড়ান। কিন্তু শোভন চেনা জায়গা ছাড়া অন্য কোথাও দাঁড়াতে রাজি হননি। তারপর দলের সিদ্ধান্ত সামনে এলে বিষয়টিক তাঁরা অবমাননা হিসেবেই দেখেন।  এবং সংস্রব ত্যাগের সিদ্ধান্ত নেন।

    বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় এ দিন ফেসবুক পোস্টে ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে বলেন,  "আপনি  আমার আইকনই থাকবেন। আজকের অবমাননা আমাদের উৎসাহ নষ্ট করতে পারবে না। ষড়যন্ত্র কখনও দীর্ঘস্থায়ী হয়‌ না। পূর্ব বেহালার মানুষ আপনাকে ভালোবাসে। সেটাই আপনার মূল শক্তি।

    বেহালার প্রতিটি পাড়া হাতের তালুর মতো চেনা শোভন চট্টোপাধ্যায়ের।  তাছাড়া দক্ষিণ চব্বিশ পরগণায় দখলদারি বাড়াতে তাঁর সাংগঠনিক দক্ষতা বিজেপির একান্তই প্রয়োজন, একথা প্রশ্নাতীত। তাহলে কেন চেনা ব্যাটলগ্রাউন্ডে শোভনের বদলে পায়েল, একাধিক ব্যখ্যা উঠে আসছিল এই প্রশ্নে। একাংশের মত, রাজনৈতিক মহলের একাংশের মত, শোভনের জনপ্রিয়তা যেমন রয়েছে, তাঁর ব্যক্তিগত জীবন, বিবাহে ভাঙনের ঘটনা বেহালার খাসতালুকে হাতিয়ার হতে পারে রত্না- ব্রিগেডের। আর এই জায়গা থেকেও শোভনকে অন্যত্র দাঁড় করানোর প্রস্তাব দিয়ে থাকতে পারে বিজেপি । শোভন এই বিষয়টিকে খুব ভালো ভাবে নেননি।

    কাহিনি এখানেই শেষ নয়। সূত্রের খবর, ঢাকঢোল পিটিয়ে দলে আনা হলেও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রার্থী হিসেবে বিবেচনাই করা হয়নি। অতীতে বারংবার নৈকট্য দূরত্বের খেলা চলেছে বিজেপির সঙ্গে শোভন বিজেপির। এবার সেই সম্পর্ক শেষ হচ্ছে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। সেক্ষেত্রে অবশ্য প্রশ্ন উঠছে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক কেরিয়ার নিয়েই।

    Published by:Arka Deb
    First published:

    লেটেস্ট খবর