সোনাগাছির দুর্গাপুজো নিয়ে হাইকোর্টের নয়া পদক্ষেপ

সোনাগাছির দুর্গাপুজো নিয়ে হাইকোর্টের নয়া পদক্ষেপ

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Sep 19, 2017 07:50 PM IST
সোনাগাছির দুর্গাপুজো নিয়ে হাইকোর্টের নয়া পদক্ষেপ
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Sep 19, 2017 07:50 PM IST

#কলকাতা: এ যেন প্রতিবছরের লড়াই ৷ মহিষাসুরের বিরুদ্ধে যুদ্ধ জয়ের আগেই পুজো পেতে লড়াই ৷ আদালতে লড়াই জিতে তবেই মন্ডপে আগমন ঘটে উমার ৷ যৌনপল্লী সোনাগাছির দুর্গাপুজোর অনুমতি নিয়ে জটিলতা প্রতিবারের ঘটনা ৷ এবারেও পুজোর অনুমতি পেতে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন সোনাগাছির যৌনকর্মীরা ৷ অবশেষে কোর্টের হস্তক্ষেপে খুলল জট ৷

এবার সোনাগাছিতে ম্যারাপ বেঁধে চলবে মা দুর্গার আরাধনা ৷ একইসঙ্গে পুজো উদ্যোক্তাদের পছন্দমতো জায়গাতেই পুজো করার অনুমতি দিল কলকাতা হাইকোর্ট ৷ তবে এর জন্য মানতে হবে কিছু নিয়ম ৷

এবছর মসজিদবাড়ি লেনে হবে সোনাগাছির পুজো মণ্ডপ ৷ তার মার হবে ২০ ফুট লম্বা এবং আট ফুট চওড়া। লক্ষ্মীপুজো পর্যন্ত থাকবে মণ্ডপ ৷ দুর্গাপুজোর পর লক্ষ্মীপুজো শেষ হলে তারপরই খুলে ফেলতে হবে মণ্ডপ ৷ এদিন এই নির্দেশই দিয়েছেন বিচারক দেবাংশু বসাক ৷

গত তিনবছর ধরেই পুজো করার অনুমতি চাইতে আদালতের চক্কর কাটতে হয় সোনাগাছির যৌনকর্মীদের এবং প্রায় শেষ মুহূর্তে সিদ্ধান্ত স্থির হয় পুজো হবে কি হবে না ৷ সোনাগাছির যৌনকর্মীদের পুজোর অনুমতির জটিলতা নিয়ে গতবছর আদালতে তীব্র ভৎর্সিত হয় প্রশাসন ৷ বিচারপতি প্রশ্ন তোলেন, কেন এই নির্দিষ্ট সংগঠনকে বারবার পুজোর অনুমতির জন্য আদালতের দ্বারস্থ হতে হয় ৷ প্রশাসন আইনশৃঙ্খলা ও সংকীর্ণ রাস্তার কথা বলায় আদালত দেশপ্রিয় পার্কের সবচেয়ে বড় দুর্গা-এর অনুমতি নিয়ে পাল্টা প্রশ্ন তুলেছিল ৷

এবছরও নীলমণি মিত্র স্ট্রিট ও মসজিদ বাড়ি লেনের সংযোগস্থলে পুজোর অনুমতি চেয়ে পায়নি পুজোর উদ্যোক্তারা ৷ প্রশাসনের তরফে অনুমতি না দেওয়ার জন্য যুক্তি ছিল, মণ্ডপ তৈরির জন্য ১২ ফুট জায়গা ছাড়তে হবে ৷ সংকীর্ণ রাস্তায় পুজোমণ্ডপ তৈরি হলে বাসিন্দারা দুর্ভোগে পড়বেন ৷ একইসঙ্গে আইনশৃঙ্খলারও সমস্যা হতে পারে ৷ তখন এর বিরুদ্ধে দুর্বারের আইনজীবীরা পাল্টা যুক্তি দেন, কলকাতার বহু নামী পুজো এই নিয়ম না মেনেই মণ্ডপ তৈরির অনুমতি পান ৷ দু’পক্ষের সওয়াল শুনে অবশেষে সোনাগাছি যৌনকর্মীদের পক্ষে রায় দেয় কলকাতা হাইকোর্ট ৷

First published: 06:43:21 PM Aug 17, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर