• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • ‘রেপ করে দেব’ ! কলকাতার গায়িকাকে হুমকি দিল অ্যাপক্যাব ড্রাইভার

‘রেপ করে দেব’ ! কলকাতার গায়িকাকে হুমকি দিল অ্যাপক্যাব ড্রাইভার

Representative Picture

Representative Picture

  • Share this:

    #কলকাতা: মহিলাকে যাত্রীকে ধর্ষণের হুমকি দেওয়ায় ফের বিতর্কে জড়িয়ে পড়ল জনপ্রিয় অ্যাপক্যাবের ড্রাইভার ৷ কলকাতার প্রতিষ্ঠীত গায়িকা কৃষ্ণকলি বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেন, অ্যাপক্যাবের চালক তাঁকে ধর্ষণের হুমকি দেয় ৷ এমনকী, প্রাণনাশের কথাও বলে ৷ মঙ্গলবার পুরো ঘটনাটি, ফেসবুক পোস্টেও তুলে ধরেন গায়িকা কৃষ্ণকলি ৷

    ফেসবুকে কৃষ্ণকলি লেখেন, ‘গতকাল মা'কে নিয়ে সন্ধ্যা সাড়ে আটটা নাগাদ উবের কোম্পানীর এই গাড়ী চড়ে আমরা ফিরছি..ড্রাইভার কোড ল্যাঙ্গুয়েজে ক্রমাগত ফোনে কথা বলে....মা ভালো মানুষ,তেমন করেই বলে "দাদা গাড়ী চালাতে চালাতে এভাবে এক হাতে ফোনে কথা আর এক হাতে গাড়ী-এমন করবেননা"...ড্রাইভার বলে ওটা তার জরুরী ফোন..আমি তখন গলা চড়িয়েই (কারণ আমি মা এর মতো ভালো মানুষ নই) বলি জরুরী ফোন হলে সাইড করে কথা বলে তারপর গাড়ী চালান....ড্রাইভার বলে " আমি একহাতে কেন এক আঙুলেও গাড়ী চালাতে পারি,কোন পুলিশ আমার কিছু করতে পারবেনা,আপনার বাড়ীর ঠিকানা তো পেয়ে গেছি ওখানেই আমি থাকি, রেপ করে দেব না হলে আজ ascidant করেই মেরে দেব" বলে স্টিয়ারিং ছেড়ে দেয়,আমি যেহেতু ড্রাইভিং জানি আমি গিয়ার চেঞ্জ করে হ্যান্ড ব্রেক্ টেনে ওর গাড়ীর চাবি তুলে নিই,নিয়ে পাটুলী ট্র্যাফিক গার্ড ওখান থেকে ওর গাড়ী আর চড়বনা বলে অন্য উপায়ে পাটুলী থানা আসি মা'কে নিয়ে,ওর গাড়ীতে পুলিশ ওঠে..থানায় ঢোকার পর পুলিশ কী করবে জানিনা কারণ তখনও অবধি এক ঘা'ও পড়েনি,তাই আমি পুলিশের সামনেই প্রত্যেকটা নোংরা কথার জন্য এক'ঘা করে দিই আর বলি যতদিন আমাদের লড়াই আমাদেরকেই লড়তে হবে ততদিন এবার রাস্তাতেই শক্তি দেখাব থানাতে নয়...যদিও থানার O.C.Mr.Suvro Thakur আমার পরিচয় জেনে আমাকে চিনতে পেরে নিরাপত্তা নিশ্চিৎ করেছেন,মা-কে ভরসা দিয়েছেন... দুটো নাম উঠে এসেছে জেরার মাঝেই..সরকারী চাকরি হোক আর বেসরকারী নাম নিশ্চিৎ হলে তো বুঝতেই পারছিস.. বাবা'র অসুস্থতা???মা-এর শরীর????অর্থ রোজগার??? না অপরাধী দমন কোনটা করব????’

    একটি ইংরেজি দৈনিকে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, অভিযুক্ত গাড়ি চালককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ৷ অন্যদিকে, গোটা ঘটনার জন্য অ্যাপক্যাব কোম্পানির থেকেও ক্ষমা চাওয়া হয়েছে ৷

    First published: