করোনা আতঙ্ক! ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ শিবপুর আইআইইএসটি

করোনা আতঙ্ক! ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ শিবপুর আইআইইএসটি

যদি কোনও পড়ুয়া বাড়ি যেতে চান, সেক্ষেত্রে অভিভাবকদের কর্তৃপক্ষের কাছে নির্দিষ্ট লিখিত দিয়েই বাড়ি নিয়ে যেতে হবে।

  • Share this:

#শিবপুর: করোনা আতঙ্কে ৩১ মার্চ পর্যন্ত শিবপুর আইআইইএসটি-তে ক্লাস বন্ধ। শনিবার জরুরি ভিত্তিতে বৈঠকে বসে শিবপুর কর্তৃপক্ষ। মূলত করোনা ভাইরাসের জেরে কী কী ব্যবস্থা নেওয়া উচিত, পড়ুয়াদের জন্য কি সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে তা আলোচনার হয়। বৈঠকে ক্লাস বন্ধ রাখার পাশাপাশি সিদ্ধান্ত হয়েছে অধ্যাপকরা অনলাইনে ক্লাস নেবেন। অর্থাৎ বিভিন্ন সোশ্যাল সাইটকে হাতিয়ার করে যাতে ক্লাস নেওয়া যায় সে বিষয়ে এদিনের বৈঠকে অধ্যাপকদের অনুরোধ জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে যদি কোনও পড়ুয়া বাড়ি যেতে চান, সেক্ষেত্রে অভিভাবকদের কর্তৃপক্ষের কাছে নির্দিষ্ট লিখিত দিয়েই বাড়ি নিয়ে যেতে হবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে আইআইইএসটি। তবে পড়ুয়ারা যাতে হোস্টেল না ছাড়েন সে বিষয়েও এদিনের বৈঠকে আবেদন রাখা হয়েছে স্টুডেন্ট কাউন্সিলের কাছে।

দেশে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। বৃহস্পতিবার থেকেই শিবপুর আইআইইএসটি'র আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে উঠে আসে করোনার জন্য কী কী ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। ইতিমধ্যেই রাজ্যের স্কুল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে ৩১ মার্চ পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করেছে রাজ্য সরকার। শুক্রবারই শিবপুরের তরফে একাধিক বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছিল। যদিও বেশ কিছু কেন্দ্রীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ইতিমধ্যেই  বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ৩১মার্চ পর্যন্ত। সেই দিকে তাকিয়েই জরুরি ভিত্তিতে শনিবার বৈঠক ডাকে শিবপুর আইআইইএসটি কর্তৃপক্ষ। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে আপাতত কোনও পড়ুয়া হস্টেল ছাড়তে পারবেন না। ৩১ মার্চ পর্যন্ত ক্লাস বন্ধ করা সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও অধ্যাপকরা অনলাইন মারফত পড়ুয়াদের ক্লাস নেবেন। এ প্রসঙ্গে শিবপুর আইআইইএসটি'র অধিকর্তা পার্থসারথি চক্রবর্তী বলেন "আমরা ক্লাস বন্ধ করলেও চেষ্টা করব যাতে পঠন পাঠনের কম ক্ষতি হয়।"

এদিনের বৈঠকে পড়ুয়াদের জানানো হয়েছে তারা আপাতত হস্টেল ছাড়তে পারবেন না। যদি তাঁরা বাড়ি যেতে চান তাহলে অভিভাবকরা কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত দিয়ে নিয়ে যেতে পারবেন। তবে হস্টেলগুলিতে সবসময় নজরদারিও চালান হবে বলে জানিয়েছে আইআইএসটি অধিকর্তা। পড়ুয়াদের শারীরিক অসুস্থতা হলে ক্যাম্পাসেই আইসোলেশনের ব্যবস্থা করা হবে বলে জানিয়েছেন অধিকর্তা।

SOMRAJ BANDOPADHYAY

First published: March 14, 2020, 4:37 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर