দার্জিলিং নিয়ে উদ্বিগ্ন কেন্দ্র, নিরাপত্তা আরও জোরদার করার আর্জি রাজ্যের

দার্জিলিং নিয়ে উদ্বিগ্ন কেন্দ্র, নিরাপত্তা আরও জোরদার করার আর্জি রাজ্যের
West Bengal Chief Minister Mamata Banerjee and Union Home Minister Rajnath Singh during a press conference after the meeting “Review of Indo-Bangladesh Border Issues” in the state secretariat building on Thursday.

দার্জিলিং পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ উঠে এল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর একান্ত বৈঠকে।

  • Share this:

#কলকাতা: দার্জিলিং পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ উঠে এল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর একান্ত বৈঠকে। পাহাড়ের লাগোয়া নেপাল, ভুটান ও বাংলাদেশ সীমান্ত। তা নিয়ে কেন্দ্রকে বাড়তি নজরদারির কথা বলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একইসঙ্গে বাংলাদেশ সীমান্তের নিরাপত্তা নিয়ে পাঁচ রাজ্যের সঙ্গে বৈঠকে কেন্দ্র ও রাজ্যের সমন্বয়ে জোর দিয়েছেন রাজনাথ সিং।

পাহাড় আন্দোলনের সময় বিমল গুরুংপন্থীদের হাতে দার্জিলিঙের এসআই অমিতাভ মালিকের হত্যার ঘটনা ঘটে। তাতেই সামনে আসে বিমল গুরুঙদের আন্দোলনে নেপালের মাওবাদী ও উত্তর-পূর্বের জঙ্গি সংগঠনগুলির যোগের কথা। সেই রিপোর্ট যায় কেন্দ্রের কাছেও। বৃহস্পতিবার, নবান্নে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে রাজনাথ সিংয়ের একান্তে ১৫ মিনিট বৈঠক হয়। সূত্রের খবর, সেই বৈঠকে ওঠে পাহাড় প্রসঙ্গ। পাহাড় সমস্যার স্থায়ী সমাধানে দু'জনের কথা হয়।

রাজনাথকে মমতার আবেদন

- দার্জিলিঙের কাছে নেপাল, ভুটান ও বাংলাদেশের সীমান্ত

- আন্তর্জাতিক সীমান্তে বাড়তি নজরদারি প্রয়োজন

বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী পাঁচ রাজ্যের নিরাপত্তা নিয়ে নবান্ন সভাঘরে বৈঠক করেন রাজনাথ সিং। জঙ্গি, অনুপ্রবেশ- সহ একাধিক সমস্যা রুখতে কেন্দ্র ও রাজ্যের সমন্বয় বাড়ানোর দাওয়াই দিয়েছেন তিনি। সীমান্তরক্ষী বাহিনী, কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা ও রাজ্য পুলিশকে একছাতার তলায় এনেই এগোনোর ইচ্ছাপ্রকাশ করেছেন রাজনাথ।

নিরাপত্তা বৈঠকের নির্যাস

- জঙ্গিদমন, চোরাচালান, নকল টাকার কারবার, অস্ত্র, নারী, মাদক ও পশু পাচার দমনে বাড়তি নজরদারি

- যেখানে কাঁটাতারের বেড়া নেই সেখানে বাড়তি নজরদারি

- অরক্ষিত স্থানে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়া

- ইলেকট্রনিক ডিভাইসের মাধ্যমে নজরদারি

- সীমান্ত এলাকায় আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে জোর কেন্দ্রের

রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের অনুপ্রবেশ রোখার পরামর্শ দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তবে, মুখ্যমন্ত্রীর পাল্টা বার্তা, যেসব রোহিঙ্গারা ইতিমধ্যেই রাজ্যে ঢুকে পড়েছেন, তাদের ফেরাবে না রাজ্য।

First published: 11:42:03 AM Dec 08, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर