• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • মুম্বইয়ে জলে ডুবে মৃত্যু হুগলির গবেষকের

মুম্বইয়ে জলে ডুবে মৃত্যু হুগলির গবেষকের

মুম্বইয়ে জলে ডুবে মৃত্যু হল হুগলির মানকুণ্ডুর বািসন্দা গবেষক সৌম্যজিৎ‍্ সাহার।

মুম্বইয়ে জলে ডুবে মৃত্যু হল হুগলির মানকুণ্ডুর বািসন্দা গবেষক সৌম্যজিৎ‍্ সাহার।

মুম্বইয়ে জলে ডুবে মৃত্যু হল হুগলির মানকুণ্ডুর বািসন্দা গবেষক সৌম্যজিৎ‍্ সাহার।

  • Share this:

    #হুগলি: মুম্বইয়ে জলে ডুবে মৃত্যু হল হুগলির মানকুণ্ডুর বািসন্দা গবেষক সৌম্যজিৎ‍্ সাহার। ক্যানসার নিয়ে গবেষণা করতে পাঁচ বছর আগে মুম্বইয়ে যান তিনি। শনিবার বিকেলে বন্ধুদের সঙ্গে ধুম লেকে বেড়াতে গিয়ে তলিয়ে যান তিনি। তাঁকে বাঁচাতে গিয়ে ডুবে মৃত্যু হয়েছে আরেক বন্ধুরও। রবিবার ভোরে দু’জনেরই দেহ উদ্ধার হয়। ময়নাতদন্তের পর দেহ আনা হবে মানকুণ্ডুতে।

    বরাবরই মেধাবী ছাত্র। প্রেসিডেন্সি থেকে স্নাতকোত্তরের পর মুম্বইতে ক্যানসার নিয়ে গবেষণা করতে যান হুগলির ভদ্রেশ্বরের মানকুণ্ডুর বাসিন্দা সৌম্যজিৎ সাহা । পাঁচ বছর ধরে নবীনগরে তিন বন্ধুর সঙ্গে থাকতেন তিনি। শনিবার বিকেলে মহারাষ্ট্রের ধুম লেকে তলিয়ে মৃত্যু হল তরুণ গবেষকের। তাঁকে বাঁচাতে গিয়ে তলিয়ে মারা যান বন্ধু অবনীশ শ্রীবাস্তবও। জানা গিয়েছে,

    - শনিবার বিকেলে চার বন্ধু সৌম্যজিত, অবনীশ, সমীর মিশ্র ও শ্রীকান্ত মূর্তি বাইকে করে কোলাবা থেকে ২০০ কিমি দূরে ধুম লেকে বেড়াতে যান। লেকে স্নান করতে নেমে অনেক দূরে চলে যান সৌম্যজিত। তাঁকে বাঁচাতে নেমে পড়েন বন্ধু অবনীশও। অনেকক্ষণ কেটে গেলেও তাঁদের খোঁজ না পেয়ে সমীর ও শ্রীকান্ত পুলিশে খবর দেয়।

    পুলিশ ও নৌসেনার তল্লাশিতে রবিবার সকালে দেহ উদ্ধার হয় সৌম্যজিতের। কিছুক্ষণ পরে উদ্ধার হয় অবনীশেরও দেহ।

    শনিবার খবর পেয়েই সৌম্যজিেতর বাবা হরিপ্রসাদ সাহা ও মা নিবেদিতা দেবী মুম্বই রওনা দেন। এলাকার মেধাবী গবেষকের মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ প্রতিবেশীরা।

    First published: