• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • 'খুব ভুল করলে, আমি কি পাপী?' স্ত্রীকে মুক্তি দিয়ে তৃণমূলকে চ্যালেঞ্জ সৌমিত্রর

'খুব ভুল করলে, আমি কি পাপী?' স্ত্রীকে মুক্তি দিয়ে তৃণমূলকে চ্যালেঞ্জ সৌমিত্রর

বিজেপি ছেড়ে সাংসদ ও যুব মোর্চা সভাপতির স্ত্রী সুজাতা তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর থেকেই রাজ্য রাজনীতিতে শোরগোল ৷ গেরুয়া শিবির থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে জোড়া ফুল শিবিরে সুজাতার যোগ দেওয়ার এক ঘণ্টা হতে না হতেই সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে ডিভোর্স দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন সৌমিত্র খাঁ ৷ বিবাহবিচ্ছেদের ঘোষণা করতে করতেই ফুঁপিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন বিজেপি যুব মোর্চার সভাপতি ৷

বিজেপি ছেড়ে সাংসদ ও যুব মোর্চা সভাপতির স্ত্রী সুজাতা তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর থেকেই রাজ্য রাজনীতিতে শোরগোল ৷ গেরুয়া শিবির থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে জোড়া ফুল শিবিরে সুজাতার যোগ দেওয়ার এক ঘণ্টা হতে না হতেই সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে ডিভোর্স দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন সৌমিত্র খাঁ ৷ বিবাহবিচ্ছেদের ঘোষণা করতে করতেই ফুঁপিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন বিজেপি যুব মোর্চার সভাপতি ৷

  • Share this:

    #কলকাতা: রাজনীতি ভাঙল সংসার৷ স্ত্রীর বিশ্বাসঘাতকতায় প্রকাশ্যেই কেঁদে ফেললেন সাংসদ৷ শুধু বঙ্গ রাজনীতি কেন, জাতীয় রাজনীতিতেও এ ছবি কখনও দেখা গিয়েছে কি না, তা মনে করা যাচ্ছে না৷ কিন্তু সোমবার দুপুরে বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ এবং তাঁর স্ত্রী সুজাতা মণ্ডল খাঁ-এর টানাপোড়েনে সেই দৃশ্যেরই সাক্ষী থাকল গোটা দেশ৷

    এ দিনই বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেন বিষ্ণপুরের বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ-এর স্ত্রী সুজাতা মণ্ডল খাঁ৷ তার পরেই সাংবাদিক সম্মেলন করেন সৌমিত্র৷ সেখানেই স্ত্রীকে বিবাহ বিচ্ছেদের ঘোষণা করেন তিনি৷ দশ বছরের সংসার কেন ভাঙল, তার ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে প্রকাশ্যেই কেঁদে ফেলেন রাজ্য বিজেপি-র যুব মোর্চার সভাপতি৷

    আবেগতাড়িত সৌমিত্র স্ত্রীর উদ্দেশে বলেন, 'দশ বছরের সম্পর্ককে এ ভাবে রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে ফেলবে জানা ছিল না৷ ২০১১-র ২১ নভেম্বর প্রেমপর্ব শুরু হয়েছিল৷ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কৃতকর্মের বিরোধিতা করেছিলাম৷ দু' বছর আগে যখন সোচ্চার হয়েছিলাম, সেদিন অনেকেই আমার সঙ্গেই ছিল না৷ বিজেপি-র মুকুলদা, কৈলাসজিরা আমার সঙ্গে ছিলেন৷ কিন্তু সেদিন সুজাতাও আমার সঙ্গ দিয়েছিল৷' সৌমিত্র জানিয়েছেন, 'সব দম্পতি মধ্যেই ঝগড়া হয়৷ তিন মাস আমাদের মধ্যেও ঝগড়া চলছিল৷ ঝগড়া হলেও তোমাকে ছাড়া একদিনও কোনও মহিলার সঙ্গে কাটাইনি৷ রাজনীতি তো রাজনীতির মতো চলবে৷ নিজের উচ্চাশার জন্য তুমি এই সিদ্ধান্ত নিলে৷'

    সাংবাদিক সম্মেলন যত এগিয়ে এসেছে, ততই সৌমিত্রর গলা ভারী হয়ে এসেছে৷ তিনি বলেন, 'তোমার সঙ্গে আমার রাগ, অভিমান হয়েছে৷ বেশ কিছু তোমার সঙ্গে কথা হয়নি৷ আজকেও সৌমিত্র খাঁ তোমাকে নিখাদ ভালবাসে৷ অনেক লড়াইয়ের সঙ্গী ছিলে৷ তুমি সেদিন লখিন্দর- বেহুলার মতোই কাজ করেছিলে৷ যে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে তোমার বাড়ি ভাঙা হয়েছিল, তুমি তাঁর সঙ্গ দিলে? আমি কি খুব খারাপ? আমি কি পাপী? '

    তবে স্ত্রীর সিদ্ধান্তে মানসিক ধাক্কা খেলেও সৌমিত্রর গলায় এ দিন কাঠিন্যও শোনা গিয়েছে৷ তিনি বলেন, 'খাঁ পদবী থেকে মুক্তি দিলাম৷ সৌমিত্র খাঁ নামটা থেকে মুক্তি দিচ্ছি৷ ভারতীয় জনতা পার্টির সৈনিক হয়ে কাজ করব৷ আমার এলাকার সাতটা বিধানসভা বিজেপি-কে তুলে দেব৷ আগে ১২ ঘণ্টা কাজ করলে ২০ ঘণ্টা কাজ করব৷ সুজাতা খুব ভুল করলে৷ অনুরোধ করে বলছি, সুজাতা মণ্ডল লেখ৷ খাঁ পদবী লিখবে না৷ এটা আমার বংশের পরিচয়, জাতির পরিচয়৷' সৌমিত্রর কথায়, সুজাতা তাঁর একমাত্র দুর্বলতা ছিল৷ কিন্তু এবার আর তাঁর কোনও পিছুটান থাকল না৷ কারণ বৃদ্ধ বাবা-মা ছাড়া তাঁর জীবনে আর কেউ নেই৷ ফলে দলের জন্য আত্মবলিদান দিতে তিনি তৈরি৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: