এলাকা থেকে কিছুতেই নামছে না জল, ড্রেনে ডুবুরি নেমে যা পেল, চক্ষু চড়কগাছ

sand bag and Blanket found in drain kolkata

ভেতরে দু'ফুট মত পাইপের মধ্যে...

  • Share this:

#কলকাতা: শহরে জল জমার জন্য এতদিন ড্রেনে প্লাস্টিক জমে থাকা  দায়ি করা হতো। কিন্তু যদি ড্রেন থেকে ওঠে একটার পর একটা বালির বস্তা, ইঁট, লেপ তোষক বেরোই তাহলে প্লাস্টিকের আর কি দোষ। অবাক হবেন না। কলকাতা পুরসভার ড্রেনে ডুবুরি নামিয়ে রবিবার উদ্ধার করেছে এই সমস্ত বস্তু।

কয়েক ঘন্টা টানা বৃষ্টি হলেই কলকাতা পুরসভার বিস্তীর্ণ এলাকা চলে যায় জলের তলায়। কোথাও কোথাও জল তাড়াতাড়ি নেমে গেলেও বহু জায়গায় নাগরিকদের জল যন্ত্রণা ভোগ করতে হয় টানা কয়েক দিন। সম্প্রতি পুরসভার বোরো ১৫ এর বিস্তীর্ণ এলাকায় একটু বৃষ্টিতে জল জমে যাচ্ছিল এবং সেই জল জমে থাকছিল দীর্ঘ সময় ধরে। কিন্তু পুরসভার হিসেব বলছে ওইসব এলাকায় অবস্থা এমন হওয়ার কথা নয়। নিকাশি ব্যবস্থা রয়েছে তাতে ভারী বৃষ্টিপাত হলে জল জমতে পারে। কিন্তু সেই জল তাড়াতাড়ি নেমে যাওয়ার কথা। এবারের বর্ষায় সেটা কোনও ভাবেই হচ্ছিল না। একই সঙ্গে কলকাতা পুরসভা লাগোয়া মহেশতলা পুরসভাতেও জল জমে মানুষের ভোগান্তি এবার চরমে পৌঁছেছে।

এই ঘটনা মাথা ব্যথার কারণ হয়ে ওঠে পুরো কর্তাদের। জল জমে থাকা এলাকার নিকাশি ব্যবস্থা নিয়ে অনুসন্ধান করতে গিয়ে সাংঘাতিক তথ্য উঠে আসে। কলকাতা পুরসভার প্রশাসক মন্ডলীর অন্যতম সদস্য তারক সিং বলেন, 'আমরা লক্ষ্য করি কিছু নির্দিষ্ট এলাকায় জল নামছে না। কারণ খুঁজতে গিয়ে আমরা অবাক হয়ে যায়।' রবিবার কলকাতা পুরসভার 80 নম্বর ওয়ার্ড এবং মহেশতলা পুরসভার এক নম্বর ওয়ার্ড সংলগ্ন রামনগরের টি জি রোডের অপর একাধিক জায়গায় ম্যানহোল খুলে ডুবুরি নামানো হয়। সেখান একটি ম্যানহোল থেকেই উদ্ধার হয়েছে ১৬টি বালির বস্তা। অন্য আরেকটি থেকে উদ্ধার হয়েছে লেপ, তোষক, বালিশ। আর সবগুলো থেকেই বেরিয়েছে অজস্র ইঁট। পুরসভার ডুবরি শহিদুল মোল্লা বলেন, 'ভেতরে দু'ফুট মত পাইপের মধ্যে জিনিসপত্র জমেছিল।'

এইসব দেখে পুরসভার কর্তাদের চক্ষু চড়কগাছ। তারক সিং বলেন, 'আমি চেয়ারম্যানের কাছে রিপোর্ট জমা দেব। তারপর একটি এনকোয়ারি কমিটি গঠন করা হবে। যারা এসব করেছে তাদের ধরতে পারলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।'

SOUJAN MONDAL

Published by:Debalina Datta
First published: