খাস কলকাতায় থানায় সালিশি, অভিযোগ প্রত্যাহারে চাপ পুলিশের

খাস কলকাতায় থানায় সালিশি, অভিযোগ প্রত্যাহারে চাপ পুলিশের

খাস কলকাতায় থানায় সালিশি। অভিযোগ খতিয়ে দেখার বদলে তা প্রত্যাহারে চাপ পুলিশের।

  • Share this:

#কলকাতা: খাস কলকাতায় থানায় সালিশি। অভিযোগ খতিয়ে দেখার বদলে তা প্রত্যাহারে চাপ পুলিশের। কাঠগড়ায় পার্কস্ট্রিট থানা। তিন পুলিশকর্মীর ব্যবহারে স্তম্ভিত কলিন স্ট্রিটের আসবাব ব্যবসায়ী আখতার লস্কর। অগত্যা পুলিশকে কর্তব্যের কথা মনে করিয়ে দেয় হাইকোর্ট।

পার্কস্ট্রিটের বহু পুরনো কাঠ ব্যবসায়ী মগরাহাটের লস্কর পরিবার। ক্রতুপর্ণ ঘোষের চিত্রাঙ্গদা বা হালফিলের অনেক বাংলা ছবির সেটের ফার্নিচার গেছে এই দোকান থেকে। দোকানের মালিকানা নিয়ে দুই ভাই আখতার হোসেন ও আবু তৈয়বের বিবাদ গড়ায় দেওয়ানি আদালতে। ২০০৭ সাল থেকে দোকানে স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে নির্দেশ দেয় নগর দেওয়ানি আদালত। দোকানে চুরি, জালিয়াতি নিয়ে একাধিক অভিযোগ হয় পার্ক স্ট্রিট থানায়। অথচ অনুসন্ধান তো দূর, অভিযোগকারীকে থানায় ডেকে কার্যত সালিশি সভায় বসানোর অভিযোগ থানার তিন পুলিশকর্মীর বিরুদ্ধে।

অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেওয়ার আবেদন গ্রহণও করেন পার্কস্ট্রিট থানার এক এএসআই। স্থানীয় বাসিন্দারাও জানেন সে কথা।

গোটা ঘটনায় প্রতিকার চেয়ে পুলিশ কমিশনারের কাছে যান ব্যবসায়ী। তাতে কাজ না হওয়ায় হাইকোর্টে আবেদন জানান আখতার। বিচারপতি জয়মাল্য বাগচি চুরি ও পুলিশ সংক্রান্ত অভিযোগ ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জানাতে নির্দেশ দেন। পাশাপাশি পুলিশের কর্তব্য মনে করিয়ে দিয়ে নির্দেশে জানান, যে কোনও আদালতের নির্দেশ সম্পাদন করা পুলিশের উচিত কাজ।

প্রতিকার চেয়ে পুলিশ কমিশনারের দ্বারস্থ ব্যবসায়ী

Loading...

কাজ না হওয়ায় হাইকোর্ট আবেদন আখতার লস্করের

চুরি ও পুলিশ সংক্রান্ত মামলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে

নির্দেশ বিচারপতি জয়মাল্য বাগচির

বিচারপতির নির্দেশ যে কোনও আদালতের নির্দেশ সম্পাদন করা পুলিশের উচিত কাজ

অভিযোগ প্রত্যাহারে বাধ্য করা হয়ে থাকলে সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেট IPC 167 ধারায় মামলা রুজু করার নির্দেশ দিতে পারেন অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে।

অভিযোগ খতিয়ে দেখা পুলিশের কর্তব্য। তবু কেন ঘটে এমন ঘটনা ? প্রশ্নটা উঠছেই।

First published: 02:03:29 PM Mar 06, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर