Road Tax বকেয়া আছে ? ৩১ মার্চের মধ্যে জমা দিলেই মিলবে বিপুল ছাড় ! জোড়া অফার পরিবহন দফতরের   

Road Tax বকেয়া আছে ? ৩১ মার্চের মধ্যে জমা দিলেই মিলবে বিপুল ছাড় ! জোড়া অফার পরিবহন দফতরের   
Representational Image

মার্চের ৩১ তারিখের মধ্যে আবেদন করুন। মিলবে ব্যাপক ছাড় ৷

  • Share this:

#কলকাতা: রোড ট্যাক্স বকেয়া আছে আপনার ? জরিমানা বাবদ টাকা বাড়ছে। ৩১ মার্চের মধ্যে টাকা মিটিয়ে দিন। জরিমানা পুরোপুরি মকুব হয়ে যাবে আপনার। গাড়ির বাকি কেসের জরিমানাও ওই সময়ের মধ্যে মেটান। প্রায় ৫০ শতাংশ ছাড় দিচ্ছে রাজ্য সরকার। বাণিজ্যিক ও ব্যক্তিগত দুই ধরনের গাড়ির মালিকদের জন্য এই বিশেষ সুবিধা আনল রাজ্য পরিবহন দফতর।

কোষাগার ফাঁকা তাই বকেয়া আদায়ে জোর দিচ্ছে রাজ্য সরকার। তাই ফের ওয়েভার স্কিম চালু করল রাজ্য পরিবহন দফতর। বাণিজ্যিক গাড়িতে জরিমানা মেটাতে বিশেষ ছাড় দেওয়া শুরু করল পরিবহন দফতর। আগামী মাসের ৩১ তারিখ পর্যন্ত মিলবে এই সুযোগ। মোটর ভেহিক্যালস আইনের বিভিন্ন ধারা লঙঘন করলে জরিমানা দিয়ে তা মেটাতে হয় গাড়ির মালিকদের। পরিবহন দফতরের হিসেব বলছে, বহু গাড়ির মালিক রয়েছেন যারা এই টাকা মেটাতে গড়িমসি করেই চলেছেন।

একাধিক বার জরিমানা মেটানোর কথা বলা হলেও তা মানছিলেন না অনেকেই। যদিও রাজ্যের রাজস্বে ফাঁক থেকে যাচ্ছিল। শেষমেষ রাজ্য বিশেষ ছাড় দিয়ে সেই বিপুল পরিমাণ টাকা আদায় করতে চলেছে। আগে শুধুমাত্র এটি বাণিজ্যিক গাড়ির জন্য ভাবা হলেও, ব্যক্তিগত  গাড়ি থেকেও এটি আদায় করতে চাইছে পরিবহন দফতর। দু'মাস আগেই বাণিজ্যিক গাড়ির বকেয়া ফিটনেস সার্টিফিকেটের জরিমানা বাবদ যে টাকা দেওয়ার কথা ছিল তার ফি মকুব করে দিয়েছিল রাজ্য পরিবহন দফতর।

দফতর সূত্রে খবর এর ফলে রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় সিএফ জরিমানার টাকা আদায় হয়েছে। আর এতে লাভ হচ্ছে পরিবহন দফতরের। কিন্তু পরিবহন দফতরের আসল উদ্দেশ্য ছিল সিএফের ক্ষেত্রে সেই সুযোগ দিয়ে, আসলে কত সংখ্যক গাড়ি ব্যবহারকারীর রোড ট্যাক্স বকেয়া রয়েছে তা জেনে নেওয়া। ফলে অনেকেই এসেছিলেন, সিএফের টাকা মেটাতে, যদিও রোড ট্যাক্স বকেয়া থাকলে সিএফ টাকা মেটানো নিয়ম অনুযায়ী হয় না। ফলে এক ঢিলে দুই পাখি মেরে সিএফ ও রোড ট্যাক্স বাবদ জরিমানার বকেয়া টাকা রাজ্য আদায় করে নিচ্ছে।

রাজ্যের হিসেব প্রায় ৮৩০ কোটি টাকা রোড ট্যাক্স বকেয়া পড়ে রয়েছে। তাই এই টাকা আদায়ের জন্য জরিমানা পুরোপুরি মকুবের স্কিম চালু করে দেওয়া হল।  রাজ্যের এই সিদ্ধান্তে খুশি বাস মালিকরা। জয়েন্ট কাউন্সিল অফ বাস সিন্ডিকেটের সাধারণ সম্পাদক তপন বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, নানা কারণে ব্যবসায় খরচের পরিমাণ বাড়ছে। ভাড়া বৃদ্ধি হয়না। এই অবস্থায় ওয়েভার স্কিম অবশ্যই আমাদের কাজে লাগবে। এই বিষয়ে সহমত পোষণ করছে লরি ও ট্যাক্সি সংগঠনের প্রতিনিধিরাও।

Abir Ghoshal

First published: February 28, 2020, 10:49 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर