শহরে বেপরোয়া অটোর বলি এক ছাত্রী

শহরে বেপরোয়া অটোর বলি এক ছাত্রী

শহরে বেপরোয়া অটোর বলি এক ছাত্রী ৷ মৃত ছাত্রীর নাম পুজা পাল ৷ পুজা জয়পুরিয়া কলেজের ছাত্রী ৷

  • Share this:

#কলকাতা: কলকাতা: ফের বেপরোয়া অটোর গতি কেড়ে নিল একটা জীবন। ফের অটো চালকের ভুলের খেসারত দিতে হল যাত্রীদের। মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছেন অটো চালক নিজেও। সিগন্যাল ভেঙে গৌড়ীবাড়ির ক্রসিংয়ে দাঁড়িয়ে থাকা খান্নাগামী বাসের পিছনে সজোর ধাক্কা মারে একটি অটো। ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে এক ছাত্রীর।

সকাল তখন পৌনে সাতটা। নিত্যদিনের ট্রাফিকের ভোগান্তি তখনও শুরু হয়নি। কিন্তু সেই সকালেই ঘটে গেল মর্মান্তিক দুর্ঘটনা।  রাজা দীনেন্দ্র স্ট্রিট থেকে অরবিন্দ সরণির দিকে দ্রুত গতিতে ছুটছিল অটো WB 04C7121 ৷ গৌড়ীবাড়ির ক্রসিংয়ে সিগন্যালে দাঁড়িয়ে ছিল বারাসত হাওড়া রুটের একটি L238 নম্বরের বাস। উল্টোডাঙা থেকে খান্নার দিকে যাচ্ছিল বাসটি। ওই ক্রসিংয়ে দাঁড়ানোর কথা অটোর। কিন্তু সিগন্যাল ভেঙেই বাঁদিক কাটাতে যায় অটো। তখনই বাসের সঙ্গে চরম ধাক্কা লাগে অটোর। দ্রুত গতিতে থাকার দরুণ মুহূর্তেই ছাড়খাড় হয়ে যায় অটো। অটো চালক জয়দেব নস্করের পাশেই বসে ছিলেন জয়পুরিয়া কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী পূজা পাল। মাথায়, ঘাড়, বুকে চরম আঘাত লাগে ছাত্রীর। গুরুতর আহত হন অটো চালক ও পিছনে বসা তিন যাত্রীও। স্থানীয় বাসিন্দারাই উদ্ধারের জন্য প্রথম হাত লাগান। কিছুক্ষণের মধ্যেই গৌড়াবাড়ি এলাকায় পৌঁছন বড়তলা থানার পুলিশও।

আশঙ্কাজনক অবস্থায় চারজনকেই ভর্তি করা হয় আর জি কর হাসপাতালে। সেখানেই সকাল নটা কুড়ি মিনিট নাগাদ মৃত্যু হয় ওই ছাত্রীর। মাথায় গুরুতর চোট পেয়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন অজয় সরকার ও তার স্ত্রী ইতি সরকারও। দুজনেরই মাথায় গুরুতর চোট রয়েছে বলে জানান চিকিৎসকরা। তুলনামূলক কম চোট পেয়েছেন অটোর ডানদিকে বসা যাত্রী শিবু সোয়াইন। আর বর্তমানে কোমায় রয়েছেন অটো চালক জয়দেব নস্কর।

নিহত ছাত্রীর বাড়ি থেকে এখনও পর্যন্ত অটোচালকের বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ দায়ের হয়নি। কিন্তু অটো চালকের একটা ভুল সিদ্ধান্তেই যে এমন ছিন্নভিন্ন হয়ে গেল সবকিছু তা মানছেন সকলেই। 

First published: 12:44:54 PM Sep 16, 2016
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर