ভেঙে পড়ল পোস্তার নির্মীয়মান উড়ালপুল, উদ্ধারকাজে সেনাবাহিনী

ভেঙে পড়ল পোস্তার নির্মীয়মান উড়ালপুল, উদ্ধারকাজে সেনাবাহিনী

উড়ালপুল ভেঙে পড়তেই দিশেহারা মানুষের ছোটাছুটি। চারদিকে আতর্নাদ। চারপাশ থেকে পথচলতি মানুষ, দোকানের কর্মী ও স্থানীয় বাসিন্দারা ছুটে আসেন। কিন্তু, কংক্রিটের চাঙর তাঁরা সরাবেন কী করে। বেলা পৌনে একটায় ভেঙে পড়ে উড়ালপুল। উদ্ধারকাজে সবার আগে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় দমকল ও পুলিশ। পৌঁছয় বিপর্যয় মোকাবিলা দল। ড্রিল মেশিন দিয়ে সিমেন্টের চাদর কাটা হয়। গ্যাস কাটার দিয়ে লোহার তারজাল কেটে চাপা পড়া মানুষদের বের করা হয়।

  • Share this:

#কলকাতা: উড়ালপুল ভেঙে পড়তেই দিশেহারা মানুষের ছোটাছুটি। চারদিকে আতর্নাদ। চারপাশ থেকে পথচলতি মানুষ, দোকানের কর্মী ও স্থানীয় বাসিন্দারা ছুটে আসেন। কিন্তু, কংক্রিটের চাঙর তাঁরা সরাবেন কী করে। বেলা পৌনে একটায় ভেঙে পড়ে উড়ালপুল। উদ্ধারকাজে সবার আগে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় দমকল ও পুলিশ। পৌঁছয় বিপর্যয় মোকাবিলা দল। ড্রিল মেশিন দিয়ে সিমেন্টের চাদর কাটা হয়। গ্যাস কাটার দিয়ে লোহার তারজাল কেটে চাপা পড়া মানুষদের বের করা হয়।

ধ্বংসস্তূপ না সরালে আটকে পড়া মানুষদের বের করতে সমস্যা হচ্ছিল। গিরীশ পার্কের তিনদিক থেকে ক্রেন আনা হয়। ছিল হাইড্রোলিক ক্রেনও। ধ্বংসস্তূপের মধ্যে কোথাও প্রাণের সাড়া আছে বোঝা গেলে সেখানে জল ও খাবার দেওয়ার ব্যবস্থা হয়। ক্রেন দিয়ে কংক্রিটের চাঙর সরানোর কাজ চলতে থাকে। দুর্ঘটনাস্থলে আসে আধাসেনা। তবু বিপুল ধ্বংসস্তূপের জন্য উদ্ধারকাজ বাধা পাচ্ছিল। ন্যাশনাল ডিজাস্টার রেসপন্স টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছতে কিছুটা গতি আসে উদ্ধারকাজে। ক্রেনের সাহায্যে উড়ালপুলের ভাঙা অংশ সরিয়ে দুর্গতদের একে একে বের করা হতে থাকে। অধিকাংশই গুরুতর আহত। বেশ কয়েকটি দেহ বিকৃত।

উড়ালপুলের ১৫০ মিটার ডানার নিচে কয়েকটি গাড়ি চাপা পড়ে। সেগুলি দেখা যাচ্ছিল, কিন্তু নাগাল পাওয়া যাচ্ছিল না। বেলা তিনটে নাগাদ সেনা নামে। ৪০০ জন জওয়ান উদ্ধারকাজে হাত লাগান। তাঁরা ইলেকট্রিক কাটার দিয়ে দ্রুত সিমেন্টের চাদর কাটা শুরু করেন। সিমেন্টের চাদর ও লোহার কাঠামো না কাটা পর্যন্ত রাস্তার উপর যারা পড়ে আছেন, তাঁদের নাগাল পাওয়া সম্ভব নয়। ধ্বংসস্তূপের নিচে যাঁরা চাপা পড়ে আছেন, তাঁদের জীবিত উদ্ধারের আশা ক্রমশ কমছে। উড়ালপুলের ভাঙা অংশ পুরো সরানো না হওয়া পর্যন্ত বলা সম্ভব নয়, মৃতের সংখ্যা কত। উদ্ধারকাজ শেষ করতে কত সময় লাগবে, তাও বলতে পারছেন না উদ্ধারকারীরা।

First published: 06:51:16 PM Mar 31, 2016
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर