• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • RECORD NUMBER OF FOOTFALL AT DUARE SARKAR CAMP TO GET BENEFIT OF LAKSHMIR BHANDAR SCHEME DMG

Lakshmir Bhandar Scheme: লক্ষ্মীর ভান্ডারে নাম লেখানোর তাগিদ, প্রথম দিনেই দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে ১২ লক্ষ মানুষ

প্রত্যাশা মতোই লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পে বিপুল সাড়া৷

সবথেকে বেশি ভিড় হয়েছে লক্ষীর ভান্ডার ক্যাম্পে। ভিড় সামাল দিতে জেলাগুলিতে আরো ক্যাম্প বাড়ানোর নির্দেশ নবান্নের (Lakshmir Bhandar Scheme)।

  • Share this:

#কলকাতা: প্রথম দিনেই দুয়ারে সরকারের ক্যাম্প গতবারের সব রেকর্ড ভেঙে দিল। সোমবারই দুয়ারে সরকারের ক্যাম্পে গোটা রাজ্যে ভিড় করলেন প্রায় ১২ লক্ষ ৩০ হাজার মানুষ। যাকে কার্যত নজিরবিহীন বলছে প্রশাসনিক মহলের একাংশ।

সোমবার সন্ধ্যে ৬টা পর্যন্ত যে পরিসংখ্যান নবান্নের হাতে এসেছে,  তাতে দেখা যাচ্ছে গোটা রাজ্যে ১২,২৮,৬১১ জন মানুষ দুয়ারে সরকারের ক্যাম্পগুলিতে হাজির হয়েছেন। এর মধ্যে সবথেকে বেশি ভিড় হয়েছে লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের জন্য ক্যাম্পে। দুয়ারে সরকার ক্যাম্প শুরু হওয়ার আগেই মুখ্যসচিব বারবারই জেলাশাসকের নির্দেশ দিয়েছেন যাতে ভিড়কে ঠিকভাবে সামাল দেওয়া যায়। করোনা বিধিনিষেধ বজায় রেখে ভিড় সামাল দেওয়াই ছিল প্রশাসনের কাছে মূল চ্যালেঞ্জ৷

প্রথম দিনেই একাধিক জায়গায় কয়েক হাজার করে মানুষ জমায়েত করায় বেশ কয়েকটি ক্যাম্পে কয়েকজনের অসুস্থ হয়ে পড়ার ঘটনাও ঘটেছে। ভিড় কমাতে সোমবারই নবান্নের তরফে প্রত্যেকটি জেলার জেলাশাসক দের ক্যাম্পের সংখ্যা বাড়ানোর নির্দেশও দেওয়া হয়েছে বলে সূত্রের খবর। শুধু তাই নয় যে সমস্ত ক্যাম্প গুলিতে ১০০০ জনের বেশি মানুষ আসছেন, সেখানে আরও বেশি করে কাউন্টার বাড়ানোরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলেই নবান্ন সূত্রে খবর।

অন্যদিকে নবান্নের তরফে লক্ষ্মীর ভান্ডার নিয়েও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে জেলাশাসকদের। নির্দেশে জানানো হয়েছে, লক্ষ্মীর ভান্ডার ফরমের জন্য যেভাবে ভিড় হচ্ছে সেক্ষেত্রে সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে হবে। সেপ্টেম্বর মাস থেকেই লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পের টাকা পেতে তড়িঘড়ি ক্যাম্পে ভিড় করছেন বহু মানুষ৷ কিন্তু সেপ্টেম্বর মাসে আবেদনপত্র জমা করলেও যে ওই মাস থেকেই টাকা পাওয়া যাবে, সেই প্রচার করার জন্যও নবান্নের তরফে জেলা প্রশাসনের কর্তাদের জানানো হয়েছে৷

নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, দুয়ারে সরকারের ক্যাম্পে সবথেকে বেশি ভিড় হয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলাতে। সেখানে ১৬৫ টি ক্যাম্পে ২লক্ষ ১৩ হাজার ৭৫০ জন হাজির হয়েছিলেন। দক্ষিণ ২৪ পরগনার পর মুর্শিদাবাদের ৮৭টি ক্যাম্পে ১,৩১,৭৪৪ জন গিয়েছিলেন। নবান্ন সূত্রে খবর দুয়ারে সরকারের প্রথম দিনে সন্ধ্যে ৬ টা পর্যন্ত উত্তর দিনাজপুরে ৪৪,৭২৫ জন, পশ্চিম মেদিনীপুরে ৭৮, ৭৬২ জন, পূর্ব মেদিনীপুরে ৬৪,৪২৮ জন, আলিপুরদুয়ারে ২০,৮৯০ জন, বীরভূমে ৫৪,২৮৮ জন, দক্ষিণ দিনাজপুরে ২১,৮৪৮ জন, হুগলিতে ৬৬,৮৮৩ জন, পূর্ব বর্ধমানে ৬২,৫০৮ জন, কোচবিহারে ৫৬ ১০০ জন, মালদহতে ৩৪,৩৪০ জন, ঝাড়গ্রামে ২৬, ৭৩১ জন, বাঁকুড়াতে ৪৫,৭০৭ জন, পশ্চিম বর্ধমানে ১২,৬৯৫ জন, জলপাইগুড়িতে ৩৪,৬২০ জন, দার্জিলিঙে ২০,৯৫৫ জন, উত্তর ২৪ পরগণাতে ৭৭,১২৫ জন, নদিয়াতে ৫৭,৪৯৬ জন, পুরুলিয়াতে ৪২,৬১৩ জন, হাওড়াতে ৪৭,৯১৪ জন, কালিম্পংয়ে  ২৩৪১জন, এবং কলকাতায় ১০,৪৪৮ জন দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে আসেন।

নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রথম দিনে মোট ৮৮৩টি ক্যাম্প তৈরি করা হয়েছিল। যেখানে বেশিরভাগ ক্যাম্পেই গড়ে এক হাজারেরও বেশি মানুষ এসেছেন। নবান্ন সূত্রে খবর, গড়ে প্রত্যেকটি ক্যাম্পে ১৩৯১ জন করে এসেছেন।

সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by:Debamoy Ghosh
First published: