Rajib Banerjee meets Kunal Ghosh: ঘরে ফেরার জল্পনা বাড়িয়ে কুণালের বাড়িতে রাজীব, প্রকাশ্যেই বিজেপি-র নীতির সমালোচনা

কুণাল ঘোষের বাড়িতে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়৷

কুণালের সঙ্গে সাক্ষাৎকে সৌজন্যমূলক বললেও এ দিন ফের একবার নিজের দল বিজেপি-র নীতির বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন রাজীব (Rajib Banerjee)৷

  • Share this:

#কলকাতা: মুকুল রায়ের তৃণমূলে যোগদানের পরের দিনই তৃণমূল নেতা কুণাল ঘোষের বাড়িতে গেলেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়৷ কুণালের উত্তর কলকাতার বাড়িতে এক ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে ছিলেন রাজীব৷ স্বভাবতই এই বৈঠক ঘিরে রাজ্য রাজনীতিতে তুমুল আগ্রহ তৈরি হয়৷ তৃণমূলে ফেরার পথ প্রশস্ত করতেই রাজীব কুণালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন বলেও জল্পনা ছড়ায়৷ তবে বৈঠক শেষে রাজীব এবং কুণাল দু' জনেই একে সৌজন্য সাক্ষাৎ বলেই দাবি করেন৷ রাজীবের দাবি, তৃণমূলে ফেরা বা রাজনীতি নিয়ে এ দিন কুণালের সঙ্গে তাঁর কোনও আলোচনাই হয়নি৷ যদিও রাজীবের এই সাফাইয়ে তাঁর ঘরে ফেরা নিয়ে জল্পনা থামছে না৷

তবে কুণালের সঙ্গে সাক্ষাৎকে সৌজন্যমূলক বললেও এ দিন ফের একবার নিজের দল বিজেপি-র নীতির বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন রাজীব৷ কয়েকদিন আগে ফেসবুকে দলের সমালোচনা করে যে বার্তা দিয়েছিলেন, এ দিন সে কথাই শোনা গিয়েছে রাজীবের মুখে৷ শুধু তাই নয়, রাখঢাক না করেই রাজীব স্বীকার করেছেন নীতিগত ভাবে বিজেপি-র কিছু সিদ্ধান্ত নিয়ে তাঁর আপত্তি রয়েছে৷ সে কথা তিনি দলকে জানিয়েও দিয়েছেন৷

রাজীবের দাবি, উত্তর কলকাতার বাসিন্দা তাঁর এক আত্মীয় অসুস্থ৷ এ দিন তাঁকে দেখে ফেরার পথেই কুণালের বাড়িতে যান তিনি৷ একই দাবি করেছেন কুণালও৷

কয়েক দিন আগে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় ফেসবুকে প্রশ্ন তোলেন, বিপুল জনসমর্থন নিয়ে আসা সরকারের এবং মুখ্যমন্ত্রীর সমালোচনা করে রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারির চেষ্টা করা হলে মানুষ তা ভাল ভাবে নেবে না৷ এ দিনও সেই প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে রাজীব বলেন, 'এখনও বলছি, িবপুল জনসমর্থন নিয়ে একটা সরকার ক্ষমতায় আসার পর একমাস হয়েছে৷ এখনই যদি কেউ রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করতে চায় বা সাম্প্রদায়িক বিভাজন সৃষ্টি করতে চায়, তাহলে এই দলে থেকেও আমি তার বিরোধী৷ নীতিগত ভাবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে আমার আপত্তি আছে, দলকেও সেকথা জানিয়েছি৷'

শুক্রবার মুকুল রায় তৃণমূলে যোগ দেওয়ার সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, দলকে ছেড়ে যাঁরা চরমপন্থা নেননি বা ভোটের আগে দল ছেেড় গদ্দারি করেননি, তাঁদের ফেরানোর ক্ষেত্রে দল নমনীয় মনোভাব নেবে৷ রাজীব নির্বাচনের আগেই দল ছেড়েছিলেন ঠিকই, কিন্তু তাঁকে নিয়ে তৃণমূলের মনোভাব কী, তা এখনও স্পষ্ট নয়৷ ফলে রাজীব তৃণমূলে ফিরতে ইচ্ছুক হলেও শাসক দল তাঁকে ফেরাবে কি না, সেটাই গুরুত্বপূর্ণ৷

জানুয়ারি মাসে তৃণমূল ছাড়ার দিনেও বিধানসভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি নিয়ে বেরিয়ে এসেছিলেন রাজীব৷ রাজভবনে গিয়ে পদত্যাগ করে বেরিয়ে কেঁদে ফেলেছিলেন৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি তিনি চিরকৃতজ্ঞ থাকবেন বলেও জানিয়েছিলেন রাজীব৷ তার পরেও অবশ্য রাজীব বনমন্ত্রী থাকাকালীন তাঁর দফতরে হওয়া দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছিলেন তৃণমূল নেতারা৷ ফলে এখন সেই রাজীবকেই দলে ফেরানো নিয়ে শাসক দল কী সিদ্ধান্ত নেয়, তা নিয়েই চূড়ান্ত কৌতূহল তৈরি হয়েছে৷

তবে রাজীব বেরিয়ে যাওয়ার পরে কুণাল বলেন, 'ডোমজুড়ের তৃণমূল কর্মীরা ভোটের সময় কী লড়াই করেছেন, সেটা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ গোটা দল জানে৷ এমন কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে না যাতে আপনাদের আবেগে ধাক্কা লাগে৷ ফলে অহেতুক কোনও জল্পনা ছড়িয়ে লাভ নেই৷ আর এ বিষয়ে যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং দল নেবে৷'

Abir Ghosal

Published by:Debamoy Ghosh
First published: