Home /News /kolkata /
Rabindra Sarobar Lake || আবার চেনা ছন্দে ফিরছে রবীন্দ্র সরোবর, ভোর ৫টা থেকে সন্ধে ৭টা পর্যন্ত খোলা থাকবে লেক

Rabindra Sarobar Lake || আবার চেনা ছন্দে ফিরছে রবীন্দ্র সরোবর, ভোর ৫টা থেকে সন্ধে ৭টা পর্যন্ত খোলা থাকবে লেক

Rabindra Sarobar

Rabindra Sarobar

Rabindra Sarobar Lake || দু-বছর আগে করোনার কারণে সম্পূর্ণ বন্ধ ছিল লেক। পরবর্তীকালে  লেকের দরজা খুললেও সময় পরিবর্তন হয়। তবে বুধবার থেকে রবীন্দ্র সরোবর লেকে ফের পুরনো নিয়ম চালু। ভোর পাঁচটা থেকে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত খোলা থাকবে লেক, সেই আগের মতোই।

আরও পড়ুন...
  • Share this:

#কলকাতা: রবীন্দ্র সরোবর লেকের ভ্রমণকারীদের জন্য আপাত-সুখবর। বুধবার থেকে ফিরছে পুরনো নিয়ম। কেএমডিএ সূত্রে খবর, ভোর পাঁচটা থেকে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত খোলা থাকবে লেকের দরজা৷ স্বাভাবিকভাবেই,  এই উদ্যোগে খুশি শহরবাসী। চেনা ছন্দে ফিরতে কার না মন চায়!

ভ্রমণকারীদের জন্য সেরা ঠিকানা এই রবীন্দ্র সরোবর লেক। কলকাতা, বিশেষত দক্ষিণ কলকাতার মানুষের কাছে লেক যেন অন্ধের যষ্ঠি। সকালে গেলেই চোখে পড়বে প্রাতঃভ্রমণকারীদের ভিড়। কেউ হাঁটছেন, কেউ ব্যস্ত শরীরচর্চায়। বিকালের ছবি আবার অন্য। তখন  প্রেমের ঠিকানা, আড্ডার ঠিকানা- সব ওই লেকই। কিন্তু গত দুই বছরে পরিস্থিতি বদলেছে বেশ খানিকটা। পরিবর্তন হয়েছে সবেতেই। জীবনযাপনের ছন্দে শিকল পরিয়েছে নিয়মের বেড়াজাল, আর এর থেকে বাদ যায়নি রবীন্দ্রসরোবর লেকও।

আরও পড়ুন-   শহিদ দিবসের প্রস্তুতি চরমে, ২১ জুলাইয়ের আগে কর্মীদের পাঞ্জাবি উপহার অভিষেকের!

দু-বছর আগে করোনার কারণে সম্পূর্ণ বন্ধ ছিল লেক। পরবর্তীকালে  লেকের দরজা খুললেও সময় পরিবর্তন হয়। তবে বুধবার থেকে রবীন্দ্র সরোবর লেকে ফের পুরনো নিয়ম চালু। ভোর পাঁচটা থেকে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত খোলা থাকবে লেক, সেই আগের মতোই। মঙ্গলবার পর্যন্তও এ নিয়ম চালু হয়নি। কখনও ৪ ঘণ্টা,  কখনও ৬ ঘণ্টা কখনো বা আটঘণ্টা রবীন্দ্রসরোবর লেকে প্রবেশাধিকার ছিল। আজ বুধবার থেকে সময় বাড়ল অনেকটাই।

আরও পড়ুন- TMC 21 July Shahid Diwas : রাত পোহালেই একুশের সমাবেশ, কলকাতা জুড়ে তুঙ্গে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

এ প্রসঙ্গে পরিবেশবিদ সোমেন্দ্রমোহন ঘোষ বলেন, "KMDA-এর এই উদ্যোগে আমরা খুশি। তবে  যেহেতু করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এখনও রয়েছে, তাই লেকে প্রবেশ করার সময় সবাই যেন মাস্ক ব্যবহার করেন।" সাধারণ মানুষ এই উদ্যোগে খুশি। তবে এর পাশাপাশি, নিরাপত্তাও চান তাঁরা। পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকেই তাঁদের বক্তব্য আর যেন কোনও দুর্ঘটনা না ঘটে। রোয়িংয়ের ক্ষেত্রে যেন যাবতীয় সুরক্ষাবিধি মানা হয়।

Published by:Rachana Majumder
First published:

পরবর্তী খবর