corona virus btn
corona virus btn
Loading

বিচারপতির প্রশ্নে অস্বস্তিতে শাসক শিবির, গঙ্গারামপুরে নয়া অনাস্থা নোটিস খারিজ

বিচারপতির প্রশ্নে অস্বস্তিতে শাসক শিবির, গঙ্গারামপুরে নয়া অনাস্থা নোটিস খারিজ
  • Share this:

#কলকাতা: হাইকোর্টে আস্থা-অনাস্থার কোনও মামলার শুনানিতেই থাকলেন না সরকারি আইনজীবীরা। কার্যত বয়কট করলেন বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়ের এজলাস। সরকারি আইনজীবীদের অনুপস্থিতিতে শুনানি চলাকালীন ক্ষোভ উগড়ে দিলেন বিচারপতি। তুললেন প্রশ্নও। খারিজ করে দিলেন গঙ্গারামপুরে তৃণমূল কাউন্সিলরদের আনা নয়া অনাস্থা নোটিস ।

নজিরবিহীনভাবে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়ের বেঞ্চে সোমবার দিনভর গরহাজির রইলেন রাজ্য সরকারের আইনজীবীরা। এ দিন সকাল থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত বনগাঁ, গঙ্গারামপুর, মহেশতলা-সহ বেশ কয়েকটি পুরসভা মামলার শুনানি হয়। কিন্তু, বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়ের ১১ নম্বর আদালত কক্ষে দেখা যায়নি অ্যাডভোকেট জেনারেল বা রাজ্য সরকারি কোনও আইনজীবীকে। সূত্রের খবর, বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে প্রধান বিচারপতির কাছে নালিশও জানিয়েছেন তাঁরা। সরকারি আইনজীবীদের অনুপস্থিতিতেই বনগাঁ অনাস্থা মামলার শুনানি এ দিন শুরু হয়। তখন ক্ষোভ উগড়ে দেন বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়। বলেন,সরকারি আইনজীবীরা কী সিদ্ধান্ত নিলেন তাতে আমার কিছু যায় আসে না। আমি যে আসনে বসে আছি তার সঙ্গে ন্যায়বিচার করাই আমার প্রধান কাজ। আমার নির্দেশ পছন্দ না হলে প্রধান বিচারপতির কাছে আবেদন করতে পারেন। আমি ঠিক-ভুল নির্বিশেষে সরকারের সব সিদ্ধান্তেই সহমত পোষণ করলে সেটা অবিচার হবে। সরকারি আইনজীবীরা নিজেদের পছন্দের এজলাসে মামলা করবেন এটা চলতে পারে না। সরকারি আইনজীবাীরা আমার বিচার্য বিষয় ঠিক করেন না। হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি আমাকে মামলার কাজ দেন।

রাজ্য সরকারি আইনজীবীরা অনুপস্থিত থাকলেও বনগাঁ পুরপ্রধানের আইনজীবী পার্থসারথি সেনগুপ্ত সওয়াল করেন। দাবি করেন, বিজেপির তরফে যে নথি দেখানো হচ্ছে তা ঠিক নয়। বনগাঁ পুরপ্রধানের আইনজীবীর উদ্দেশে বিচারপতি প্রশ্ন করেন,আস্থা ভোটে কে বাধা দিল, কেন বাধা দিল কাউকে কি সনাক্ত করা গিয়েছে? আস্থা ভোটে অনাস্থা প্রস্তাব আনা কাউন্সিলররা যখন অনুপস্থিত তখনই কেন পদক্ষেপ করেননি এগজিকিউটিভ অফিসার?

বিজেপির কাউন্সিলরদের তরফে আইনজীবী অশোক চক্রবর্তী কর্নাটক বিধানসভার আস্থা ভোটের প্রসঙ্গ তুলে জানানঅনাস্থা প্রক্রিয়া আদালতের নির্দেশে শুরু হয়। আদালতের সম্পূর্ণ ক্ষমতা রয়েছে নতুন করে আস্থা ভোটের নির্দেশ দেওয়ার।

অনাস্থা নোটিসের ভিত্তিতে ৫ অগাস্ট হবে অনাস্থা বৈঠক। এই বৈঠকে কাউন্সিলররা যাতে উপস্থিতি হতে পারেন তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি।

First published: July 23, 2019, 12:05 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर