corona virus btn
corona virus btn
Loading

শিক্ষক নিয়োগ কবে? ব্লকে ব্লকে দেওয়াল লিখে আন্দোলন উচ্চ প্রাথমিকের প্রার্থীদের

শিক্ষক নিয়োগ কবে? ব্লকে ব্লকে দেওয়াল লিখে আন্দোলন উচ্চ প্রাথমিকের প্রার্থীদের

উচ্চ প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের মেধাতালিকা নিয়ে হাইকোর্টে মামলা হওয়ার জেরে নিয়োগ প্রক্রিয়ার ওপর স্থগিতাদেশ জারি করে হাইকোর্ট।

  • Share this:

কখনও প্রটেস্ট ফ্রম হোম আবার কখনও বা শিক্ষামন্ত্রীর ফেসবুক পেজে লিখে শিক্ষক নিয়োগের দাবি। গত দুমাস ধরে উচ্চ প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের দাবি নিয়ে এই ভাবেই আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন আবেদনকারী প্রার্থীরা। এবার ব্লকে ব্লকে দেওয়াল লিখে রাজ্যজুড়ে আন্দোলন শুরু করেছেন উচ্চ প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের প্রার্থীরা।

কয়েকদিন আগে থেকেই এই পদ্ধতিতে দীর্ঘ ৭ বছর ধরে নিয়োগ প্রক্রিয়ার টালবাহানার অভিযোগ তুলে আন্দোলনে সামিল হয়েছেন রাজ্যজুড়ে এই নিয়োগ প্রার্থীরা। ইতিমধ্যেই প্যানেলভুক্ত প্রার্থীদের দ্রুত নিয়োগের দাবি নিয়ে দেওয়াল লেখা শুরু করেছেন প্রার্থীরা। অন্যদিকে কিছুদিন আগে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় স্কুল সার্ভিস কমিশনকে নির্দেশ দিয়েছে যাতে অবিলম্বে হাইকোর্টে বিচারাধীন মামলার দ্রুত নিষ্পত্তির ব্যাপারে উদ্যোগী হয় এসএসসি। পাশাপাশি হাইকোর্টে এই মামলার দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য যাতে এসএসসি আবেদন জানায় সেই মর্ম শিক্ষামন্ত্রী তবে প্রয়োজনীয় নির্দেশ গেছে বলে জানা গিয়েছে।

দীর্ঘ চার বছর হতে চলল এখনও উচ্চ প্রাথমিকের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় কার্যত শেষ করা গেল না। দীর্ঘ আইনি জটিলতার পর উচ্চ প্রাথমিকের মেধা তালিকা গত বছর পুজোর আগে প্রকাশ করল তা নিয়ে অস্বচ্ছতা গড়মিলের অভিযোগ তোলেন আবেদনকারী প্রার্থীদেরই একাংশ।

উচ্চ প্রাথমিকের মেধাতালিকা নিয়ে হাইকোর্টে মামলা হওয়ার জেরে নিয়োগ প্রক্রিয়ার ওপর স্থগিতাদেশ জারি করে হাইকোর্ট। যার জেরে পুরো নিয়োগ প্রক্রিয়ায় কার্যত থমকে যায়। এই মামলার শুনানি পর্ব শুরু হলেও করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এবং তার জেরে চলা লকডাউন মামলার গতিকে অনেকটাই স্তব্ধ করে দেয়। তার জেরে এই শুনানি পর্ব অনেকটাই পিছিয়ে যায়।

তবে একাধিকবার স্কুল সার্ভিস কমিশনের তরফে এই মামলার দ্রুত শুনানির জন্য আবেদন জানানো হয় হাইকোর্টের কাছে। স্কুল সার্ভিস কমিশন সূত্রে খবর উচ্চ প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের শূন্য পদ রয়েছে ১৪ হাজারেরও বেশি। সে ক্ষেত্রে লকডাউন এর মধ্যেই যাতে এসএসসির মামলার শুনানি করা হয় তার জন্য হাইকোর্টের কাছে আবারও আবেদন জানাতে চলেছে স্কুল সার্ভিস কমিশন। কমিশন সূত্রে খবর সে ক্ষেত্রে হাইকোর্ট স্থগিতাদেশ তুলে দিলে নিয়োগ প্রক্রিয়া এক মাসের মধ্যেই শেষ করতে পারবে কমিশন।

অন্যদিকে রাজ্যে লকডাউন চলার জেরে রাস্তায় নেমে আন্দোলন করতে পারছেন না উচ্চ প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের প্রার্থীরা। এবার দেওয়াল লিখনের মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগের দাবি নিয়ে আন্দোলনের সরব হয়েছেন রাজ্যব্যাপী উচ্চ প্রাথমিক এর কয়েক হাজার প্রার্থী। তাঁদের মতে, গত কয়েক বছর ধরে রাজ্যে উচ্চ প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ কেন হল না তা জানা দরকার সাধারণ মানুষেরও। তাই এই পদ্ধতিতেই আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত। প্রশ্ন হল বিভিন্ন ভোটকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল দেওয়াল লিখনের মাধ্যমে তাদের দাবি-দাওয়া বা রাজনৈতিক কর্মসূচি জানান। রাজনৈতিক দলগুলি নিজেদের জনমত গড়ে তোলার জন্য দেওয়াল লিখনের আশ্রয় নেন। তাহলে এবার কি উচ্চ প্রাথমিকের নিয়োগ প্রার্থীরাও দেওয়াল লিখনের মাধ্যমে জনমত গড়ে তুলতে চাইছেন রাজ্যব্যাপী?

SOMRAJ BANDOPADHYAY

Published by: Arindam Gupta
First published: May 20, 2020, 11:56 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर