Home /News /kolkata /
West Bengal| Tourism: জেলায় জেলায় পর্যটন সম্ভব্য এলাকা গুলো কী কী? জেলাগুলোর থেকে জানতে চাইল নবান্ন

West Bengal| Tourism: জেলায় জেলায় পর্যটন সম্ভব্য এলাকা গুলো কী কী? জেলাগুলোর থেকে জানতে চাইল নবান্ন

West Bengal Tourist Spot: পর্যটন দফতরের সচিব জেলা শাসকদের তালিকা চেয়ে চিঠি দিয়েছেন।৩০ এ জুনের মধ্য রিপোর্ট পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে সূত্রের খবর

  • Share this:

#কলকাতা: রাজ্যের নয়া পর্যটন নীতি তৈরি করতে জেলায় পর্যটনের সম্ভবনা সম্পন্ন এলাকার তালিকা তৈরি করতে জেলাশাসকদের দ্রুত রিপোর্ট পাঠাতে নির্দেশ দিল পর্যটন দফতর। এই তালিকায় অবশ্যিকভাবে জেলার মেলা, উৎসব সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য দিতে বলা হয়েছে। জেলাতে কোনও হেরিটেজ বিল্ডিং থাকলে তাও যেন রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়। এমন জানানো হয়েছে৷

আরও পড়ুন TMC 21 July || পাখির চোখ উত্তরবঙ্গ, ২১ জুলাই নিয়ে প্রস্তুতি শুরু

রাজ্যের পর্যটন সচিব সৌমিত্র মোহন চিঠি দিয়ে জেলাশাসকদের জানিয়ে দিয়েছেন ৩০ জুনের মধ্যেই মেল করে এই রিপোর্ট পাটাতে হবে। রিপোর্ট দিতে হবে একটি নির্দিষ্ট ফরমাটে। তাতে জেলাগুলিতে পর্যটন পরিষেবা কেন্দ্র কী রয়েছে, কারা এর সঙ্গে যুক্ত তাও উল্লেখ করতে হবে। পর্যটন দফতর জানতে চায় জেলাগুলিতে চালু পর্যটন কেন্দ্র কোথায় রয়েছে। এর বাইরে বহু এলাকায় নতুন করে পর্যকরা যাচ্ছেন। যেমন সংস্কৃতিক পর্যটনের নামে নদিয়ার গোড়ভাঙা ফকির গানের শিল্পীদের গ্রামে ,বর্ধমানে বাউল ফকিরদের গ্রাম বা নাট্যকারদের গ্রাম তেপান্তর,পশ্চিম মেদিনীপুরে পটুয়া পাড়া নয়াগ্রাম,পুরুলিয়ার ছৌ শিল্পীদের গ্রামে দেশ বিদেশের পর্যটকদের আকর্ষণ বাড়ছে। এছাড়াও মুর্শিদাবাদ, মালদহ, বর্ধমান, বীরভূম জুড়ে হেরিটেজ ট্যুরিজিমেও পর্যটকদের আসা যাওয়া বেড়েছে। পাশাপাশি বৈষ্ণব তীর্থস্থান ও বিভিন্ন মন্দিরকে ঘিরে উত্তর ও দক্ষিণ বঙ্গের একাধিক জেলায় পর্যটন বিকাশের সম্ভবনা রয়েছে।যা প্রস্তাবিত পর্যটন নীতিতে প্রতিফলন ঘটাতে জেলাশাসকদের কাছ থেকে বিস্তারিত রিপোর্ট সংগ্রহ করার উদ্যোগ নিল।

আরও পড়ুন  Local Train Problem|| অফিস টাইমে বনগাঁ শাখায় পর পর আটকে ট্রেন! চূড়ান্ত নাকাল নিত্যযাত্রী, কী নিয়ে সমস্যা?

ইতিমধ্যেই প্রতিটি পর্যটন কেন্দ্রে হোমস্টে তৈরি করতে স্থানীয় মানুষকে উৎসাহিত করতে প্রায় দেড় লক্ষ টাকা করে আর্থিক সাহায্য দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পাশাপাশি তিনমাসের মধ্য হোম স্টে-তে একনম্বর হতে হবে রাজ্যকে, তেমনটাই টার্গেট বেধে দিয়েছেন মুখ্য সচিব।রাজ্যে এই মুহূর্তে সরকারি স্বীকৃত হোম স্টের সংখ্যা প্রায় ৮০০। এর মধ্যে শুধু কালিম্পংয়ে রয়েছে ৫০০। উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে হোমস্টে গড়ে উঠলেও দক্ষিণবঙ্গে এর বিশেষ প্রভাব নেই। শুধু উত্তর ২৪ পরগনাতে রয়েছে মাত্র ৬টি। সুন্দরবন কেন্দ্রিক উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জুড়ে এধরণের হোমস্টে  অনেকগুন বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে। স্থানীয় মানুষ সরাসরি এর সঙ্গে যুক্ত৷ হোমস্টে সুন্দরবনের সংস্কৃতি ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় কার্যকর ভূমিক নিতে পারে। তাই রাজ্য সরকার প্রস্তাবিত পর্যটন নীতিতে এই প্রসঙ্গে বিস্তারিতভাবে রাখতে চায়। তাই সম্প্রতি মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী জেলাশাসকদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনাও করেছেন।নবান্ন সূত্রের খবর রিপোর্ট পেলেই দ্রুত এই বিষয় নিয়ে নবান্ন এর তরফে সেই এলাকা গুলো পরিদর্শন করার জন্য আধিকারিকদের পাঠানো হতে পারে।

সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়
Published by:Pooja Basu
First published:

Tags: Tourism, West bengal

পরবর্তী খবর