এবার নিজের জেলাতেই শিক্ষকতার সুযোগ পাচ্ছেন প্রাথমিক শিক্ষকরা, জানালেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়

এবার নিজের জেলাতেই শিক্ষকতার সুযোগ পাচ্ছেন প্রাথমিক শিক্ষকরা, জানালেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়

এপ্রিল থেকেই শুরু হবে বদলি প্রক্রিয়া

  • Share this:

#কলকাতা: নিজেদের জেলার স্কুলে পড়াতে পারবেন শিক্ষক-শিক্ষিকারা। বুধবার বিধানসভায় এমনই ঘোষণা করলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। মূলত শিক্ষা মন্ত্রী জানান নিজের জেলায় শিক্ষকদের পড়ানোর যত আবেদনপত্র জমা পড়েছে সব আবেদনই ছেড়ে দেওয়া হবে। মূলত শিক্ষামন্ত্রী এই ঘোষণার পরেই বিশেষত প্রাথমিক শিক্ষকদের খুশির হাওয়া। সরস্বতী পুজোর প্রাক্কালে শিক্ষকদের উপহার দিয়েছিলেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ট্যুইট করে তিনি ঘোষণা করেছিলেন এখন থেকে শিক্ষক-শিক্ষিকারা নিজেদের জেলার স্কুলে চাকরি করার সুযোগ পাবেন। মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণার প্রায় দেড় মাস পর বুধবার বিধানসভায় শিক্ষা মন্ত্রী এমনই খুশির খবর জানান। মূলত দীর্ঘদিন ধরেই প্রাথমিক স্তরের স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকাদের নিজেদের জেলায় চাকরি করার দাবি ছিল। শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন "এপ্রিল মাস থেকেই ধাপে ধাপে এই নির্দেশ কার্যকর করবে রাজ্য স্কুল শিক্ষা দপ্তর।" সরস্বতী পুজোর আগেই ট্যুইটে মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন আমাদের শিক্ষক ও ছাত্রদের নিয়ে আমরা গর্বিত। শিক্ষকরাই প্রকৃত অভিভাবক।আগামীদিনের প্রকৃত নেতা হিসেবে গড়ে তুলে আমাদের সমাজ ও দেশ গঠনে শিক্ষকদের প্রচুর অবদান রয়েছে। আমাদের সব শিক্ষককে শ্রদ্ধা জানানোর সেরা সময় হল এই সরস্বতী পুজোর সময়। আমরা একটা নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছি। শিক্ষকরা তাদের নিজেদের জেলাতেই পোস্টিং পাবেন।"শিক্ষকদের স্বার্থের কথা ভেবেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রী আরো লিখেছিলেন "এই ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তের ফলে তারা শান্তিতে নিজেদের পরিবার ও কাজে মন দিতে পারবেন। দেশ গঠনে তাদের মহান কাজে সম্পূর্ণ মনোযোগী হতে পারবেন। তাদের সবার জন্য আমার শুভেচ্ছা রইল।" স্কুল শিক্ষা দপ্তর সূত্রে খবর প্রাথমিক ও উচ্চ প্রাথমিকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা তুলনামূলক ভাবে সহজ। কারণ প্রাথমিকে শূন্য পদে কোন বিষয় ভিত্তিক সংরক্ষণ থাকেনা। তেমনি উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগের ক্ষেত্রে ৫০% স্নাতকে ও দু বছরের প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক। সেখানেও সমস্যা হওয়ার কথা নয়় বলেই স্কুুল শিক্ষা দপ্তর সূত্রে খবর। এদিকে দীর্ঘদিন ধরেই স্কুল সার্ভিস কমিশন সাধারণ বদলি ও আপস বদলি বন্ধ পড়ে আছে। একাংশের ধারণা এবার এই বদলি গুলিও দ্রুত চালু হবে।

সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

First published: March 11, 2020, 11:47 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर