২১ শে জুলাই পঁচিশে পা শহিদ দিবসের, সমাবেশ নিয়ে প্রস্তুতি তুঙ্গে, মঞ্চের সুরক্ষা নিয়ে বিশেষ ব্যবস্থা

২১ শে জুলাই পঁচিশে পা শহিদ দিবসের, সমাবেশ নিয়ে  প্রস্তুতি তুঙ্গে, মঞ্চের সুরক্ষা নিয়ে বিশেষ ব্যবস্থা
নিজস্ব চিত্র

পঁচিশে পা ২১শে জুলাইয়ের সমাবেশের। শহিদ দিবসকে এবছর অঙ্গীকার দিবস হিসেবে পালন করবে তৃণমূল কংগ্রেস। লোকসভা ভোটে মোদি সরকারকে হঠানোর লক্ষ্যে কর্মীদের বার্তা দেবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

  • Share this:

#কলকাতা: পঁচিশে পা ২১শে জুলাইয়ের সমাবেশের। শহিদ দিবসকে এবছর অঙ্গীকার দিবস হিসেবে পালন করবে তৃণমূল কংগ্রেস। লোকসভা ভোটে মোদি সরকারকে হঠানোর লক্ষ্যে কর্মীদের বার্তা দেবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন: লোকসভায় মোদি সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব গৃহীত, শুক্রবার ভোটাভুটি

২০১৯-এর লোকসভা ভোটের আগে শেষ ২১ শে জুলাই। তৃণমূল কংগ্রেসের অন্দরে প্রস্তুতি তুঙ্গে। দিল্লির তখত থেকে নরেন্দ্র মোদি সরকারকে সরাতে ইতিমধ্যেই সক্রিয় হয়েছেন তৃণমূল নেত্রী। ফেডেরাল ফ্রন্ট তৈরির উদ্যোগ নিয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে দলের তরফে প্রথম বাঙালি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তৃণমূল নেত্রীকে তুলে ধরার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। সেই লক্ষ্যেই ২১শে জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে লোকসভা ভোটের প্রচারের সুর বেঁধে দেবেন তৃণমূল নেতৃত্ব। তাই এবারের ২১ শে জুলাইকে অঙ্গীকার দিবস হিসেবে তুলে ধরছে ঘাসফুল শিবির। ইতিমধ্যেই লোকসভা ভোটের কথা মাথায় রেখে রাজ্যে তৃণমূলের বিরুদ্ধে প্রচারে নেমে পড়েছে গেরুয়া শিবির। সভা করে গেছেন নরেন্দ্র মোদি-অমিত শাহ। মেদিনীপুরের সভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সরাসরি নিশানা বানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

আরও পড়ুন: শিশু বিবাহ সম্পূর্ণ অবৈধ হোক, কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভায় আবেদন মহিলা ও শিশু বিকাশ মন্ত্রকের

একুশের মঞ্চ থেকেই মোদিকে জবাব দিতে পারেন তৃণমূল নেত্রী। ঘটনাচক্রে ২১ এর সমাবেশের আগের দিনই মোদি সরকারের বিরুদ্ধে লোকসভায় আলোচনা ও ভোটাভুটি হবে।

এবারেও ৫টি মঞ্চ তৈরি করা হচ্ছে।

প্রথম স্টেজে দাঁড়িয়ে বক্তব্য রাখবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ১২ ফুট উঁচু এই মঞ্চ লম্বা ও চওড়ায় ৮ ফুট করে। দ্বিতীয়টি মূল মঞ্চ। এটি উচ্চতায় ১০ ফুট, লম্বায় ৫২ ফুট ও চওড়ায় ২৪ ফুট। এছাড়াও পাশে আরও ৩টি মঞ্চ করা হচ্ছে। সেখানে দলীয় নেতা, অতিথি ও জন প্রতিনিধিরা বসবেন। মঞ্চগুলি লোহার কাঠামোর ওপর প্লাইউড দিয়ে তৈরি হচ্ছে। পূর্ত দফতরের আধিকারিকরা নিয়মিত মঞ্চ বাধার কাজে নজরদারি চালাচ্ছেন। কতজন মঞ্চে থাকতে পারবেন সেই সংখ্যাও বেধে দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: টেন্ডার ছাড়া আর কোনও বরাত নয়, স্বচ্ছতা আনতে কড়া নবান্ন

ভিড় নিয়ন্ত্রণের জন্য এক হাজার দলীয় স্বেচ্ছাসেবক থাকছে এবারের সভায়। স্বেচ্ছাসেবকরা হালকা বেগুনি রঙের পাঞ্জাবি পড়বেন, বুকে ঘাসফুল প্রতীক আঁকা থাকবে।

First published: 09:02:48 PM Jul 18, 2018
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर