বড় নেতা বলেও শুভেন্দুকে খোঁচা প্রশান্ত কিশোরের, কী বললেন তৃণমূলের ভোট কুশলী?

বড় নেতা বলেও শুভেন্দুকে খোঁচা প্রশান্ত কিশোরের, কী বললেন তৃণমূলের ভোট কুশলী?

শুভেন্দুকে বিঁধলেন প্রশান্ত কিশোর৷

  • Share this:

    #কলকাতা: শুভেন্দু অধিকারী বড় নেতা৷ কিন্তু নিজের ক্ষমতা সম্পর্কে ভুল ধারণা থাকা ঠিক নয়৷ বিজেপি-তে যোগ দেওয়ার পর এই প্রথম শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে মুখ খুললেন তৃণমূলের ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোর৷ একই সঙ্গে তাঁর দাবি, তৃণমূলে থেকেই যে শুভেন্দু বিজেপি-র সঙ্গে যোগাযোগ রাখছিলেন তা তাঁরা জানতেন৷ আর সেই কারণেই গত এক বছরে শুভেন্দুর সাংগঠনিক দায়িত্ব কমানো হচ্ছিল৷

    একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শুভেন্দুকে নিয়ে এমন মন্তব্য করেছেন প্রশান্ত কিশোর৷ তাঁর আরও দাবি, লোকসভায় রাজ্যে ৪০ শতাংশ ভোট পেলেও বিধানসভায় বিজেপি-র পক্ষে প্রাপ্ত ভোটের হার আরও বাড়ানো মুশকিল হবে৷

    শুভেন্দু প্রসঙ্গে প্রশান্ত কিশোর বলেন, 'শুভেন্দু বড় নেতা ছিলেন৷ রাজনীতিতে উচ্চকাঙ্খী হওয়া ভাল৷ কিন্তু নিজের ক্ষমতা সম্পর্কে ভুল ধারণা থাকা ঠিক নয়৷ একেক সময় কারও মনে হতে পারে দলের সাময়িক খারাপ অবস্থা আমার পক্ষে ভবিষ্যতে ভাল হতে পারে৷ আমরা খুব খুশি যে উনি নিজে থেকে প্রকাশ্যে ২০১৪ থেকেই তিনি বিজেপি-র সঙ্গে ছিলেন৷ এবার ভেবে দেখুন, দলের একজন বিশ্বস্ত প্রথমসারির নেতা যদি এরকম করেন তাহলে দিদির জায়গায় থাকলে আপনি কী করতেন?' একই সঙ্গে প্রশান্ত কিশোরের দাবি, শুভেন্দুর সঙ্গে বিজেপি-র যোগাযোগের কথা তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্ব জানত৷ তাই গত একবছরে তাঁর সাংগঠনিক দায়িত্ব কমানো হয়েছিল৷

    কয়েক দিন প্রশান্ত কিশোর দাবি করেছেন, বিজেপি বাংলায় একশো আসন পেরোবে না৷ নিজের সেই অবস্থানেই অনড় তিনি৷ তাঁর মতে, গত লোকসভা নিরর্বাচনে বিজেপি ৪০ শতাংশ ভোট পেলেও বিধানসভা নির্বাচনে প্রাপ্ত ভোটের হার বাড়িয়ে ৪৫ শতাংশে নিয়ে যাওয়া বিজেপি-র পক্ষে কঠিন হবে৷ তৃণমূলের ভোট কুশলীর মতে, রাজ্যে ৯টি বড় জেলায় কমবেশি ১৮০টি আসন রয়েছে৷ সেগুলিতে ভাল ফল করতে পারলে তবেই বিজেপি-র রাজ্যে ক্ষমতা দখলের সম্ভাবনা বাড়বে৷ তবে এই মুহূর্তে সেই সম্ভাবনা কম বলেই দাবি প্রশান্ত কিশোরের৷

    শুভেন্দু প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে প্রশান্ত কিশোর আরও বলেন, 'মানুষ দিদিকে বিশ্বাস করবে নাকি যিনি পিছন থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ছুরি মারল তাঁকে বিশ্বাস করবে?'

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: